আজ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

৭ই মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও গনতন্র পুনরুদ্ধার

 

মতিউর রহমানঃ পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধ:

আজকের এই দিনের ইতিহাস বাংলাদেশ কাছে স্বরণীয় দিন।৭ই মে ২০০৭ সালের এই দিনে তৎকালীন তও্বাবধায়ক সরকার ঘোষিত জরুরী অবস্থা চলাকালীন শত প্রতিকূতা উপেক্ষা করে গনতন্র পুনরুদ্ধার করতে দেশে ফিরে আসে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। সে সময়ে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশে ফিরতে তও্বাবধায়ক সরকার অবৈধ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। দেশে প্রবেশ করতে না দেওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বে-আইনী নিষেধাজ্ঞা নাকোচ করে দেশে ফেরার ঘোষনা দেন। সেই অবৈধ নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে মিছিল ওঠে বিশ্বব্যাপী। তার সততা, নিষ্ঠা ও গনতন্ত্রকামী জনতার আন্দোলন তও্বাবধায়ক সরকার অবৈধ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাধ্য হয়।৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু কন্যা ঢাকায় ফিরে এলে লক্ষ জনতা তাকে সাধরে গ্রহন করে।বিমানবন্দর থেকে জনতার মিছিল সহকারে স্বরণীয় বঙ্গবন্ধু ভবনে নিয়ে আসে। হারানো গনতন্ত্রের পুনরুদ্ধারে শুরু হয় নবজাগরণের। তও্বাবধায়ক সরকার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই মিথ্যা সাজানো মামলায় গ্রেফতার করে। ২০০৮ সালের ১১ জুলাই প্যারোলে মুক্তি পাওয়া পর্যন্ত কারন্তরীন রাখা হয়। মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য বিদেশে গমন এবং শেষে ৪ ডিসেম্বর স্বদেশে ফিরে আসেন। গনতন্ত্রের মানষ কন্যার নেতৃত্বে আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যেদিয়ে পুনরুদ্ধার হয় গনতন্ত্র। চাপের মুখে জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে বাধ্য হয় তও্বাবধায়ক সরকার। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নিরঙ্কুশ জয় নিয়ে সরকার গঠিত করে আওয়ামীলীগের মহাজোট। দ্বিতীয় বারের মতো রাষ্ট্রের দ্বায়ীত্ব গ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। উন্নয়নের মহাসড়কেে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। বাবার মতো বাংলাদেশর গনতান্ত্রিক আন্দোলন – সংগ্রাম ও উন্নয়ন অগ্রগতি অর্জনের ইতিহাসে ৭ই মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন একটি তাৎপর্যপূর্ন ঘটনা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ