আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

আশুলিয়ায় ঔষধ বিক্রেতা এখন ডাক্তার

আশুলিয়া প্রতিনিধি

ঢাকার আশুলিয়ায় মোঃ খোকন আলী নামে এক ব্যক্তি, যিনি ডিপ্লোমা ইন মেডিসিন ডিগ্রীধারী দাবি করেন, তবে সাইনবোর্ডে তার নামের আগে লাগিয়েছেন ডাঃ শব্দটি। শব্দটি লাগিয়ে নিজেকে অনেক বড় চিকিৎসক জাহির করে মানুষের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে প্রতারনা করে আসছেন।

এরকম অভিযোগ পেয়ে, আশুলিয়ার  নরসিংহপুর চিত্রশাইল কাঁঠালতলা বাজারে নেহা মেডিসিন সেন্টার ডিসপেন্সারিতে গিয়ে জানা যায়, তিনি নিয়মিত রোগী দেখা এবং রোগীদের বিভিন্ন ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই যেকোনো রোগের চিকিৎসা করছেন।

বিষয়টা গনমাধ্যম কর্মীরা অনুসন্ধান করার জন্য ভুয়া চিকিৎসক মোঃ খোকন আলীর নিকট একজন সুস্থ সংবাদ কর্মীকে পাঠান। পরে দেখা যায় রোগীকে তিনি পাঁচ মিনিট ধরে দেখার পরে প্রথমে তার ফী বাবদ দুই শত টাকা নিয়ে নেন।

এরপর তিনি বলেন, রোগীর অবস্থা খুবই খারাপ, রোগীকে এই মুহুর্তে তিনটা ইনজেকশন দিতে হবে, তার জন্য প্রতিটা ইনজেকশনের খরচ পড়বে দুই শত টাকা করে।

এই পর্যায়ে অনুসন্ধানী টিম এর বাকী সদস্যরা সেখানে গিয়ে হাজির হন এবং ভুয়া চিকিৎসক মোঃ খোকন আলীর কাছে জানতে চান, এই রোগীকে যে আপনি ইনজেকশন দিচ্ছেন, আপনি কি জানেন এই রোগী সুস্থ নাকী অসুস্থ? তবে এমন প্রশ্নের উওর তিনি দিতে পারেন নাই।

এসময় তার কাছে আরও জানতে চাওয়া হয়, নামের আগে যে সাইনবোর্ডে ডাক্তার লাগিয়েছেন, ডাক্তার হিসাবে সনদপত্র এবং কোন রেজিস্ট্রেশন আছে কিনা? এক্ষেত্রেও তিনি কোন সনদ দেখাতে পারেন নাই এবং জানান তিনি মেডিসিন এর উপর ডিপ্লোমা করেছেন।

এসময় আরও জানা যায়, অনুসন্ধানী টিম এর যাকে রোগী সাজিয়ে পাঠানো হয়েছিলো তাকে, এই ডাক্তার নামধারী ব্যক্তি নিজের নামের সাথে ডাঃ লাগানো পদবী সম্বলিত প্রেসক্রিপসন লিখে দিয়েছেন

এব্যাপারে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর ডাঃ নাজমুল হুদা মিঠুকে বিষয়টি জানালে তিনি বলেন, এই ধরণের কাজ কেউ চাইলে কোনোভাবেই করতে পারেন না। এটা গুরুতর অপরাধ, এরকম কোনো অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর প্রধান সায়েমুল হুদা বলেন শুধু বিএমডিসির সদস্যরাই ডাক্তার লিখতে পারবে। যদি কেউ ডাক্তার লিখে তাহলে সে প্রতারণা করছে। অবশ্যই অপরাধ করছে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ