আজ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৪ই আগস্ট, ২০২২ ইং

পেকুয়ায় মাদ্রাসার সুপার ও পরিবারের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

দেলওয়ার হোসাইন, পেকুয়া কক্সবাজার :

কক্সবাজারের পেকুয়ার হেদায়েতুল উলুম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুহাম্মদ হাসান রাব্বানী ও তার পরিবারের উপর চিহ্নিত সন্ত্রাসী কর্তৃক হামলার প্রতিবাদে ও হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে উপজেলার ২০টি স্কুল- মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীদের মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

সোমবার (২১জুন) সকাল ১০টার সময় পেকুয়া বাজার হতে মিছিল সহকারে উপজেলা চত্বরে এসে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

মানবন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর স্মারক লিপি প্রধান করেন স্কুল -মাদ্রাসার শিক্ষক,শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসি।
মানববন্ধন পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেন,উজানটিয়া খাতুনে জন্নাত দাখিল মাদ্রাসার সুপার মওলানা নুরুল ইসলাম,

শিক্ষা ফাউন্ডেশনের পক্ষে মওলানা জহিরুল ইসলাম, উপজেলা ওলামা লীগ এর পক্ষে আব্দুল হকসহ ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ।

বক্তারা বলেন, পেকুয়ার হেদায়েতুল উলুম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মুহাম্মদ হাসান রাব্বানী ও তার পরিবারের উপর চিহ্নিত সন্ত্রাসী কর্তৃক বর্বরোচিত হামলার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

বক্তারা আরো বলেন মামলার বাদীকে সন্ত্রাসীরা হুমকি দিচ্ছে বলে দাবি করে অবিলম্বে শিক্ষক মাওলানা হাসান রাব্বানী ও তার পরিবারের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবিও জানান।

আহত মওলানা হাসান রাব্বানী বলেন, ১৮জুন (শনিবার) আমি পেকুয়া আনোয়ারুল মাদ্রাসার বিদায় অনুষ্ঠান শেষে বাড়ি ফেরার পথে দিনে-দুপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে স্থানীয় নেজাম উদ্দিনের ছেলে সজীবের নেতৃত্বে ৭/৮ জন সন্ত্রাসী আমাকে কিরিচ দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে,

আমাকে বাঁচাতে আমার স্ত্রী ও বড় ভাবি আসলে তাদেরকেও হত্যার উদ্যেশ্যে বেধড়ক পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। আমার আর্ত্ম-চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। আমার স্ত্রী ও বড় ভাবির অবস্থার অবনতি হওয়ায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ।

এরপর আমি বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু পুলিশ এখনও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি। হামলার পর এখনো মামলা না হওয়ায় আসামীরা প্রতিদিন হত্যার হুমকি দিচ্ছে।

আমি উপজেলা প্রশাসনের কাছে আমার পরিবারের নিরাপত্তায় পুলিশের সহযোগিতা কামনা করছি।

পেকুয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) মোহাম্মদ ফরহাদ আলী জানান, এঘটনার লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর মামলা রুজু করা হয়েছে। তদন্তপূর্বক দোষীদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। অপরাদ করে কেউ পার পাবে না।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ