আজ ২৬শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই মে, ২০২১ ইং

মানবতার ফেরিওয়ালা ইঞ্জিনিয়ার আকাশ খান

মোঃ মশিউর রহমান ইসাদ

 

বর্তমান যুগটা বড়ই যান্ত্রিক। এ যুগে মানুষ বড় আত্মকেন্দ্রিক। সবাই নিজের জগৎ নিয়ে ব্যস্ত হওয়ায় অন্যকিছু নিয়ে ভাবার সময় নেই। মানুষ যেন ভুলে গেছে মান্নাদের সেই বিখ্যাত গান -মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য। সৃষ্টির মাঝেই ষ্রষ্টা বিরাজমান।

সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টিকে ভালবাসলেই স্রষ্টার নৈকট্য লাভ করা সম্ভব। স্বার্থপর পৃথিবীতে নিজের স্বার্থ ছেড়ে অপরের জন্য কিছু করা এমন মানুষ পাওয়া ভার। এমন কঠিন ব্যস্তবতায়ও কিছু মানুষ থাকে যাঁদের জন্যই বোধকরি আমরা এগিয়ে যাবার উৎসাহ পাই সামনে চলার আলো দেখতে পাই। তেমনি রংপুরে একজন আলোকিত মানুষ পেশায় একজন সাংবাদিক, সংগঠক সমজাকর্মী ও আমরাই পাশে রংপুর ফেসবুক সামাজিক সংগঠন এর ফাউন্ডার এডমিন ও স্থানীয় দৈনিক সাইফ পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ইঞ্জিনিয়ার আকাশ খান।

একটি সাদা কাগজে কিছু না লিখলে যেমন সাদা কাগজের মূল্য থাকে না, ঠিক তেমনি ব্যক্তির জীবনে মনুষ্যত্ব বা গুন প্রকাশ না হলে তার প্রকৃত মানুষত্ব প্রকাশ পায় না। ইঞ্জিনিয়ার আকাশ খান যার হৃদয়, কাজ, চেহারা, ব্যক্তিত্ব অতুলনীয়। হৃদয়টা হচ্ছে শিশুতুল্য সহজসরল, স্নেহ-ভালোববাসায় পূর্ণ। স্বার্থ ছাড়া অতি পরিশ্রমী, অসহায়কে সাহায্য দানই হচ্ছে মনে হয় তাঁর একমাত্র কাজ । আর যদি চেহারার কথা বলি, তাহলে বলবো হাজারো লোকের মাঝেও আমি তাঁর মিল পাইনি । সাধারন পোশাক-আশাক পড়েই তিনি একজন সুন্দর ব্যক্তিত্বের অধিকারী। তিনি একজন প্রকৃত সুখী মানুষ। তিনি কেন সুখী তা জানানোর জন্যই এই লেখা ।

ইঞ্জিনিয়ার আকাশ খান প্রতিনিয়তই প্রতিবন্ধী, অনাথ,দরিদ্র মানুষের পাশে দাড়ান। তার আগে থেকেই ইচ্ছা ছিল সমাজের জন্য বা দেশের উপকারের জন্য কিছু একটা করতে । তাঁর সামনে যখন প্রতিবন্ধী, অনাথ, দতদরিদ্র কিছু মানুষ সাহায্যের জন্য তাঁর সামনে কেঁদে উঠলো-তখনই তিনি মনোস্থির করলেন এদের জন্য কষ্ট হলেও কাজ করবেন।

এজন্য ২ এপ্রিল ২০১৯ সালে প্রতিষ্ঠা করে আমরাই পাশে রংপুর ( একটি অরাজনৈতিক ফেসবুক সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন) সেইদিন থেকেই শুরু করলেন এক নতুন জীবন ।

অনাথ প্রতিবন্ধী হতদরিদ্রদের মুখে হাসি ফুটানোর জন্যই তিনি অদম্য ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন । আর দিনের কর্মকান্ডের শেষে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা জানিয়েছেন চোখের জল দিয়ে । তাঁর একটাই বিশ্বাস ছিল যে সৃৃষ্টিকর্তা সব জানেন, তিনি কাউকে নিরাশ করেন না । আর এই প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে চলছেন তিনি ।

এখন শুরু আমরাই পাশে রংপুরেই নয়
আমরাই পাশে লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর, গাইবান্ধাসহ বিভিন্ন জেলায় ইউনিট গড়ে তুলেছেন।

সংগঠনের বিভিন্ন কাজে কখনো কখনো একাই একটি সাদা রঙ্গের ১০০ সিসি মটরসাইকেল নিয়ে ছুটে যান লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, দিনাজপুর, গাইবান্ধাসহ বিভিন্ন জেলায় মানবসেবায়।

ঈদে ৫০০ গরিব,অসহার-হতদরিদ্র শিশুদের নতুন জামাকাপড়, বন্যায় ত্রাণ বিতরন, নসিমন নামে অসহায় এক বৃদ্ধাকে। নতুন ঘর উপহার ও তার অজীবনের দায়িত্ব, শীতবস্ত্র বিতরন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১০০ মেধাবী শিক্ষার্থীদের খাতা, কলম, ব্যাগ ও শিক্ষা সামগ্রী বিতরন সহ এবার করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে রংপুর শহরে বিভিন্ন স্থান, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রামে সঠিক নিয়মে হাত ধোঁয়া, লিফলেট, মাক্স ও শ্রমজীবী, খেটেখাওয়া মানুষদের ত্রান বিতরন করেন।
অন্যদিকে তিনি দেশের চলমান পরিস্থিতি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য সকালে ঘুম থেকে উঠে নিজের কাঁধে মেশিন বক্স সেট করে নিয়ে নগরীর বিভিন্ন জায়গায় ছিটাচ্ছেন জীবাণুনাশক ওষুধ। নগরীর বিভিস্থানে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য নিজ উদ্যোগে অটো রিক্সা নিয়ে মাইকিং করে বেড়াচ্ছেন।

আসুন আমরা মানুষের পাশে দাড়াই, নিজের বিবেককে জাগ্রত করি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ