আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

সিরাজগঞ্জের পুঠিয়াবাড়িতে চাঁদা না দেওয়ায় বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট

নিজস্ব প্রতিবেদক :

সিরাজগঞ্জে চাঁদা না দেওয়ায় দোকানপাট, বাড়ীঘর ভাঙচুর ও মালামাল লুটপাট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার (২৮ মে) রাত সাড়ে ৮টার দিকে সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার পুঠিয়াবাড়ী মহল্লার মৃত আক্তার সেখের ছেলে সেলিম রেজার বাড়ীসহ প্রায় ১৫টি বাড়ীতে ভাঙচুর ও মালামাল লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। রাতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং ঐ এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

শনিবার (২৯ মে) সকালে সেলিম রেজা বলেন, গত (২০ মে) ধানবান্ধি মহল্লার বিশা সেখের ছেলে সানু, পুঠিয়াবাড়ী মহল্লার মোমিন ও মতিন গংরা আমার নিকট বিভিন্ন ভাবে চাঁদার দাবি করে আসছিল। চাঁদার টাকা না দেওয়ার কারণে আমাদের উপর এলোপাথারী মারপিট ও ভাংচুর করে। এই ঘটনায় আমার মা বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

সেই মামলায় গত শুক্রবার রাতে সানু গ্রেফতারের পর তার ছোট ভাই শামীম, পুঠিয়াবাড়ী মহল্লার মোমিন ও মতিন গংরা দলবল নিয়ে আমার এবং বড়ভাই শফি ও ছোট ভাই হাবুসহ আমাদের ১৫টি বাড়ীতে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।

এসময় আমার দোকান থেকে আটার বস্তা, ভুষির বস্তা, বাড়ী থেকে ৩টি টিভি, ৩টি ফ্রিজ ভাংচুর করে এবং আলমারী ভেঙ্গে নগদ প্রায় ৫ লক্ষ টাকা, মসজিদের ক্যাশের ৭০ হাজার টাকা, সোনার গহনা, ছোট ভাইয়ের ৪টি অটো রিক্সা, ১টি টিভি, নগদ ১ লক্ষ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। এতে আমাদের প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমরা এখন আতংকিত হয়ে পড়েছি। এ ঘটনায় আমরা সর্বশান্ত হয়ে পড়েছি।

তিনি আরো বলেন, সানু গংরা এখন আমাদের নানা ভাবে প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান করছে। আমাদের এলাকায় পুরুষ শূণ্য হয়ে পড়েছে। ঘটনাস্থলে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সানু গংদের ভয়ে আমরা এবং পুঠিয়াবাড়ী মহল্লার প্রায় লোক আসবাবপত্র নিয়ে অন্য স্থানে চলে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে সদর থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকী বলেন, রাতে ভাংচুরের ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছিলো। ঐ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ