আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ ইং

সংগ্রামী এক নারী বিজলী রানী গল্প

গৌতম চন্দ্র বর্মন, ঠাকুরগাঁওঃ

ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া থানার ২০নং রুহিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের (বেড়াবাড়ী) মন্ডলাদাম গ্রামের মৃত লাল বাবু সেনের স্ত্রী বিজলী রানী সেন তিন সন্তান নিয়ে ভাগ্যের সাথে সংগ্রাম করে চলেছেন। জানা যায়, এক সময় ব্যবসা করে দিব্বি চলত মৃত লাল বাবু সেনের সংসার। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাসে লাল বাবুর প্রথম স্ত্রী সুমিত্রা রানী সেনের ক্যানসারের চিকিৎসা করাতে জীবনের সব রোজগার শেষ হয়ে যায়। তারপরও দুই সন্তান রেখে পৃথিবী থেকে চলে গেলেন সুমিত্রা রানী সেন।

আবার নতুন করে সংসার গড়ার চিন্তা করে লাল বাবু দ্বিতীয় বিয়ে করেন বিজলী রানী সেনকে। বিয়ের ১০ বছরের সংসারে তিনটি সন্তান জন্ম হয়। রামনাথ এর এমপি মোড়ে একটি কাঁচামালের দোকান দিয়ে ভালোই চলছিল তাদের সংসার। কিন্তু প্রায় ৮ মাস আগে যেন নেমে গেল কালবৈশাখী ঝড়। আগের স্ত্রীর মতো লাল বাবুও ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন। এতিম হয়ে গেল তিন সন্তান।

কেমন কাটছে এই ছোটো সবজির দোকান করে জানতে চাইলে,  কান্নাজড়িত কণ্ঠে বিজলী রানী সেন বলেন, আমি এক অসহায় মহিলা,  আমার দুঃখের সীমা নেই।

স্বামী কীভাবে মারা গেছেন জানতে চাইলে তিনি অভিযাত্রা ডট কমকে বলেন, আমার স্বামীর দ্বিতীয় স্ত্রী আমি। প্রথম স্ত্রী সুমিত্রা রানী ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিল। তখন স্বামীর যেটুকু সঞ্চয় ছিল সব কিছু চিকিৎসার জন্য খরচ করেছেন। তারপর সুমিত্রা রানী মারা যান এবং আগের সংসারের দুইজন ছেলে আছে। তারা কাজকর্ম করে আলাদাভাবে  ভালোই চলছে।

তিনি আরও বলেন, আমার সঞ্চয় বলতে কিছুই নেই। এই ছোট ছোট তিনটা বাচ্চাকে নিয়ে আমি অসহায়ভাবে এবং জীবন যুদ্ধ করে সংসার চালাচ্ছি। আমার স্বামীর রেখে যাওয়া এই দোকানটি শুধু সম্বল। স্বামী মারা যাওয়ার পরে আমি এনজিও থেকে লোন নিয়ে আবার এই দোকানটি চালু করি।

এই দোকান দিয়ে সংসার কেমন চলে? উত্তরে বিজলী রানী বলেন, দোকানে তো বেশি মালামাল তুলতে পারি না। টাকার অভাবে তাই ৫-৬ শত টাকা বিক্রি হয়। সেখান থেকে ৮০ থেকে ১০০ টাকা লাভ হয়। এর মাঝে সপ্তাহে কিস্তি আর বাচ্চাদের ভরণপোষণ চালানো অসম্ভব হচ্ছে।

অভিযাত্রা ডট কমের মাধ্যমে সমাজের বিত্তবানদের কাছে সাহায্যের আবেদন করেছেন অসহায় নারী বিজলী রানী।

পাশের দোকানদার প্রদীপ চন্দ্র বলেন, এই দোকানটি লাল বাবু করতেছিলেন। কিন্তু কয়েক মাস আগে সে মারা যায়। ছোটো ছোটো তিনটা বাচ্চা নিয়ে বিজলী রানী সেন আবার চালু করে এই সবজির দোকানটি।

তিনি আরও বলেন, যখন লাল বাবু মারা যায় তখন অনেক টাকা ঋণ ছিল। পরে বিজলী রানী মোটামুটি পরিশোধ করেন। পরিশেষে আবার ঋণ নিয়ে সবজির দোকান চালু করেন। তিনিও সরকারের কাছে অনুরোধ করেন যাতে বিজলী রানী সেন কিছু সরকারি আর্থিক সহায়তা পান।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য গনেশ চন্দ্র  বলেন,  লাল বাবু মারা যাওয়ার পরে আমি তো ভাবতেই পারিনি বিজলী রানী এই ছোট্ট বাচ্চাগুলোকে নিয়ে এখানে থাকতে পারবেন। আমি একজন সদস্য হিসেবে যেটুকু পারছি তাকে একটা ভিজিএফ কার্ড করে দিয়েছি। সমাজের বিত্তবান মানুষকে অসহায় বিজলী রানীর পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান গনেশ চন্দ্র।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ