আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

স্ত্রী হত্যায় আটক রাকিবুলের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পাবনা সাঁথিয়ায় স্বামীর পরকীয়া জের ধরে স্ত্রীকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করেছে সেনা সদস্য স্বামী রাকিবুল ইসলাম। ঈদের রাতে কানিছকে তার বাড়ি থেকে কৌশলে সাঁথিয়ার পাড় করমজা এলাকায় ডেকে নিয়ে যায় রাকিবুল।

পরে সে কানিজকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার পর ইছামতি নদীতে কচুরিপানার মধ্যে ফেলে পালিয়ে যায়। কানিজ বেড়া পৌর মহল্লার আব্দুল কাদেরের মেয়ে।

পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে বেড়া মডেল থানায় একটি নিখোঁজের অভিযোগ দায়ের করে। পরবর্তীতে পুলিশ স্বামী রাকিবুল কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে হত্যা’র ঘটনা শিকার করে। ১৫ মে শনিবার সকালে আসামি রাকিবুলকে সাথে নিয়ে পাবনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম সহ বেড়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ জিল্লুর রহমান, সাঁথিয়া থানা অফিসার ইনর্চাজ, বেড়া মডেল থানা অফিসার ইনর্চাজ উপস্থিত থেকে ফায়ার সার্ভিস এর সহযোগীতায় উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে।

আসামীর দেওয়া তথ্য মতে লাশ উদ্ধার করতে সক্ষম হলে ময়না তদন্তের পর লাশ দাফন কাজ সম্পূন হয়। এ ঘটনার পর থেকে পরিবার ও এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এ ঘটনায় ১৬ মে রবিবার ডাকবাংলা শহীদ আব্দুল খালেক স্টেডিয়াম গেট ও থানার সামনে ব্যানার হাতে আসামী রাকিবুলের কঠিন শাস্তি ফাঁসির দাবিতে স্বজন ও এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। এ সময় মানববন্ধনে উপস্থিত বক্তারা বলেন আমাদের আদোরের মেয়ে কানিজকে পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র করে বাড়ি থেকে ঠেকে নিয়ে অন্যায় ভাবে হত্যা করেছে। আমরা এর সঠিক বিচার দাবি করছি আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল প্রশাসনের ভাইদের কাছে অনুরোধ আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে যেনো আসামীরা পাড় পেয়ে না যায়।
আমরা পুলিশ ভাইদের কে ধন্যবাদ অল্প সময়ের মধ্যে ঘটনা স্থান চিন্হীত করে আসামী আটক করতে সক্ষম হওয়ার জন্য।প্রতিবাদ মানববন্ধনে
উপস্থিত ছিলেন, প্যানেল মেয়র শামসুল হক খান (কাউন্সিলর ৪নং ওয়ার্ড) জাহাঙ্গীর আলম মঞ্জু ( সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, বেড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ)
উপস্থিত ছিলেন বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর সম্মানিত ডঃ মোঃ হালিম এবং যুবলীগ নেতা সোহাগ, ছাত্রলীগ নেতা জব্বার হোসাইন সহ বেড়া উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ। বেড়া পৌর ম্যানেল মেয়র শামসুল হক খান বলেন আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই আমি আসামি রাকিবুলের ফাঁসির দাবি করছি।কানিজের বাবা আব্দুল কাদের বলেন, বিয়ের পর থেকেই জামাই রাকিবুল আমার মেয়েকে খুবই নির্যাতন করত। মেয়ে কান্না করতে করতে আমার বাড়িতে মাঝেমধ্যেই চলে আসত।

আমি মেয়ে হত্যার বিচার চাই। রাকিবুলের যেন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়। বেড়া মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকার বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। নিহতের বাবা আব্দুল কাদের বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। স্বামী রাকিবুলকে আটক করা হয়েছে। হত্যার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ