আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২৪ ইং

টাঙ্গাইলে নগদ এজেন্টের কোটি টাকা আত্মসাৎকারী তিন কর্মচারী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক :

টাঙ্গাইলে মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান “নগদ” এজেন্টের প্রায় কোটি টাকা আত্মসাৎ করে আত্মগোপন করা তিন কর্মচারীকে কক্সবাজার থেকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ(ডিবি)।
বুধবার (৭ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭ টায় কক্সবাজার শহরের কলাতলী এলাকার আবাসিক হোটেল সেন্টমার্টিন রিসোর্টে এ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয় বলে ডিবি পুলিশের ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী জানান।গ্রেফতারকৃতরা হলেন- টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার দরিহাসিল এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে শামীম হোসেন (২৪),একই উপজেলার ব্রাম্মণবাড়ী এলাকার আনিসুল হকের ছেলে আতিকুর রহমান (২৪) ও তবানিটেকি এলাকার আব্দুল হামিদের ছেলে নুরুল ইসলাম বাবুল (২৫)।গ্রেফতারকৃত তিনজনই টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার মা এন্টারপ্রাইজ নামের প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী।আটককৃত শামীম প্রতিষ্ঠানটির সুপারভাইজার,আতিকুর রহমান বিক্রয় প্রতিনিধি ও নুরুল ইসলাম বাবুল অফিস সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলো বলে জানা গেছে।এবিষয়ে জানতে চাইলে ঘাটাইলের নগদ এজেন্ট মা এন্টারপ্রাইজের মালিক মহিউদ্দন সুমন মুঠোফোনে বলেন,ঘটনার পরদিন গত ৪ এপ্রিল ঘাটাইল থানায় তিন কর্মচারীর বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে তিনি একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। বুধবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ৩ জনকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতারের পর ঘাটাইল থানায় মামলা নথিভুক্ত হয়েছে।কক্সবাজার ডিবি পুলিশের ওসি মোহাম্মদ আলী জানান,টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলা সদরের নগদ এজেন্ট মা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের তিন কর্মচারী গত ৩ এপ্রিল ‘নগদ ও ট্রানজেকশন’ এর মাধ্যমে ৯৮ লাখ টাকার বেশি আত্মসাৎ করে পালিয়ে যায়।পরে প্রতিষ্ঠানটির মালিক কর্তৃপক্ষ তাদের নানা জায়গায় খোঁজাখোজি করেন।তাদের কোন সন্ধান না পেয়ে মা এন্টারপ্রাইজের মালিক মহিউদ্দন সুমন বাদী হয়ে গত ৪ এপ্রিল ঘাটাইল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে টাকা আত্মসাৎকারী কর্মচারীরা কক্সবাজার অবস্থান করছে বলে জেলা পুলিশকে অবহিত করে।’খবরটি অবহিত হওয়ার পর ডিবি পুলিশ টাকা আত্মসাৎকারীদের অবস্থান নিশ্চিত করতে কাজ শুরু করে। এক পর্যায়ে বুধবার সন্ধ্যায় মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাদের অবস্থান নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়। পরে ডিবি পুলিশের একটি দল কক্সবাজার শহরের কলাতলী এলাকার সেন্টমার্টিন রিসোর্ট থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে।’প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা নগদ এজেন্টের ৯৮ লাখের বেশী টাকা আত্মসাৎ করার তথ্য স্বীকার করেছে বলে জানান ওসি মোহাম্মদ আলী।ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী আরও জানান, বুধবার সন্ধ্যায় গ্রেফতারকৃতদের টাঙ্গাইল নিয়ে যেতে ঘাটাইল থানা পুলিশের একটি দল কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে। পুলিশের ওই দলটি কক্সবাজার পৌঁছালে গ্রেফতারদের হস্তান্তর করা হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ