আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২১ ইং

আশুলিয়ায় নববধূ নিখোঁজ, থানায় লিখিত অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

 

আশুলিয়ায় এক নববধূকে গুমের অভিযোগ স্বামী, শ্বশুর শাশুড়ী ও ভাসুরের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে আশুলিয়ার আউকপাড়ার আনারকলি বাজার এলাকায়। নববধূর বাবা শাহাবুদ্দিন বাদি হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। অপরদিকে, এ ঘটনায় নববধূ ফাতেমা আক্তার শান্তার স্বামী ইয়াছিন হোসেন অমিত আশুলিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (নং-১৮৮৬) করেছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত জানুয়ারি মাসে আশুলিয়া ইউনিয়নের আনারকলি বাজার এলাকার অছিম উদ্দিনের ছোট ছেলে ইয়াছিন হোসেন অমিত (২৫) এর সঙ্গে একই ইউনিয়নের সদরপুর গ্রামের শাহাবুদ্দিনের মেয়ে ফাতেমা আক্তার শান্তা (২১) বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। আসবাবপত্র ক্রয় বাবদ ৭২ হাজার টাকা এবং ব্যবসার জন্য ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকাও দেওয়া হয় ছেলের পরিবারকে। পরে ওই ছেলের পরিবার থেকে আরো ২ লক্ষ টাকা, ২ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ও একটি পালসার মোটরসাইকেল যৌতুক হিসেবে দাবি করে। ওই যৌতুকের টাকা বাবার বাড়ি থেকে এনে দিতে অস্বীকৃতি জানালে প্রায়ই তার উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চালাতো হতো । পরে ওই নববধূ অত্যাচার সইতে না পেরে বাবার বাড়িতে চলে যায় এবং পরবর্তীতে সে আর স্বামীর বাড়িতে যেতে চাচ্ছিলো না। চলতি মাসের ১৫ তারিখ দেন দরবারের মাধ্যমে শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে তাদের বাড়ি নিতে আসে। গত বৃহস্পতিবার রাত ৯টারদিকে মেয়ের পরিবার থেকে মেয়ের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে শান্তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন বিভিন্ন টালবাহানা করতে থাকে। তারা জানান, ফাতেমা আক্তার শান্তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে ওই নববধূর বাবা বলেন, আমার মেয়ের বিয়ের পর থেকেই তারা বিভিন্ন অজুহাতে যৌতুক হিসেবে টাকা চাইতো। এছাড়াও ট্রাক চালক ঘটক সাত্তার মিয়ার মাধমেও যৌতুক চাইতো। এই নিয়ে ঘটক সাত্তারের সাথে কথা কাটাকাটি হলে সে আমাকে হুমকি দিয়ে বলে, তোর মেয়ে কিভাবে ওই পরিবারে সংসার করে তা দেখে নিবো। তারপর থেকেই আমার মেয়ের উপর আরো বেশি নির্যাতন করে । এখন আমার মেয়েকেও তারা গুম করেছে।
শান্তার স্বামী ইয়াছিন হোসেন অমিত জানান, বিয়ের পর থেকে আমার স্ত্রী কথা শুনতো না। সে তার নিজের মতো চলাফেরা করতো। তার কোনো কাজে বাধা দিলে সে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতো। তিনি আরো জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটার সময় তার স্ত্রী ব্যবহারের জামা-কাপর ও প্রায় ৬ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার এবং তার কাছে গচ্ছিত রাখা ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আমাকে বুঝিয়ে না দিয়ে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির সঙ্গে চলে যায়।
অন্যদিকে ইয়াছিন হোসেন অমিতের বড় ভাই মো: হাসান বলেন, তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী শান্তা তাদের পরিবারের সদস্যদের সাথে একটি বিয়ে বাড়িতে যায়। পরে সেখান থেকেই শান্তা পালিয়ে যায়। যা ওই বিয়ে বাড়ির সিসি টিভি ফুটেজে দেখা যায় বলেও জানান তিনি।
আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) জসিম রবিবার(২২ মার্চ) জানান অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তের পরই জানা যাবে আসল রহস্যটি কি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ