আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

ভূরুঙ্গামারীতে লাভের বদলে লোকশানের মুখে সবজি চাষিরা

আরিফুল ইসলাম জয় কুড়িগ্রাম ভূরুঙ্গামারী প্রতিনিধি :

কুড়িগ্রাম এর উত্তুরের উপজেলা ভূরুঙ্গামারীতে সবজির বাজারে ধস, লাভের বদলে কার কত লোকশান গুনছে সবজি চাষিরা। শীত কালিন সবজি চাষে লোকসানের মুখে পড়েছে ভূরুঙ্গামারী উপজেলার কৃষকরা। লাভের আশায় সবজি চাষ করে এখন উৎপাদন খরচই তুলতে পারছেন না তারা। সবজির বাজারে মন্দাবস্থা বিরাজ করায় সবজি এখন কৃষকের গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে, কয়েকদফা বন্যা ও অতি বৃষ্টির কারণে সবজি চাষে যে ক্ষতি হয়েছিল সে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষক চলতি মৌসুমে ১ হাজার ২৩৫ হেক্টর জমিতে শীতকালিন সবজি চাষ করেন এবং ৪৭০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করেন।

উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও কৃষকদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, হঠাৎ করে সবজির দর পতন হওয়ায় উৎপাদন খরচই তুলতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন কৃষকরা। একদিকে নির্দিষ্ট সময় পরে সবজি ক্ষেতে রাখা যায় না, অপরদিকে পঁচনশীল পণ্য হওয়ায় কৃষক কম দামে বিক্রি করে দিতে বাধ্য হচ্ছে। ফলে লোকসানের মুখে হতাশগ্রস্ত কৃষকেরা।

ভূরুঙ্গামারীতে সবজি চাষে লাভের বদলে লোকসান গুনছেন কৃষকরা
(২ ফেব্রুয়ারি) মঙ্গলবার উপজেলার সবচাইতে বড় বাজার ভূরুঙ্গামারী বাজারে গিয়ে দেখা যায়, কৃষকেরা ফুলকপি, বাঁধাকপি, আলু, বেগুন, শিমসহ বিভিন্ন ধরনের বিপুল পরিমাণ সবজি বাজারে নিয়ে এসেছেন। বেগুনের কেজি ৫ থেকে ১০ টাকা, শিম ১৫, ফুলকপি-বাঁধাকপি ২-৩ টাকা পিচ, ধনেপাতা ১০ থেকে ১৫ টাকা, কাঁচা মরিচ ৪০ টাকা, গাজর ১৫ টাকা, টমেটো ১৫ টাকা, আলু ১৫ টাকা, পেঁয়াজ ২০ থেকে ২৫ টাকা,মূলা ২কেজি ৫ টাকা, মিষ্টি লাউ ১টি ২০টাকা, অন্যান্য শাক ৩ আঁটি ১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কৃষক ময়নাল হক জানান, দুই বিঘা জমিতে ফুলকপি ও বাঁধাকপি আবাদ করেছিলেন। এ জন্য ৩৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। উৎপাদন ভালো হয়েছে কিন্তু বাজারে প্রতি পিচ কপি বিক্রি করতে হচ্ছে ২ থেকে ৩ টাকায়। এতে শ্রমিকের মজুরিও উঠছে না।

আরেক কৃষক আয়নাল জানান দেড় বিঘা জমিতে আলু আবাদ করেছে। ফলন খুব ভালো হয়েছে। কিন্তু প্রতি কেজি আলু ১০ থেকে ১২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে লাভ তো দূরে থাক উৎপাদন খরচও উঠবে না।

কাচামাল ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম জানান,আড়ৎ থেকে প্রতি পিচ কপি ৩ টাকায় কিনে ৫ টাকায় ও প্রতিকেজি আলু ১২ টাকায় কিনে ২০ টাকায় বিক্রি করছি।

জনাব আসাদুজ্জামান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, বলেন, এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় শীতকালিন সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। একি সময়ে সব সবজি বাজারে ওঠায় হয়তো সবজির দাম একটু কম পাচ্ছে কৃষক।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ