আজ ২৭শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই জুন, ২০২১ ইং

শর্শদীতে পাহারা বসিয়ে মাটি কাটার অভিযোগ উঠেছে  ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে

আলাউদ্দিন সবুজ.ফেনী প্রতিনিধি

 

ফেনী সদর উপজেলার শর্শদী ইউনিয়নের শর্শদী গ্রামে অবাধে কৃষি জমির মাটি কেটে নিচ্ছে একটি চক্র। প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে ওই চক্র দিনে-রাতে সমানতালে মাটি বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। এতে করে জমি ফসল উৎপাদনের উপযোগিতা হারানোর পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে গ্রামীন রাস্তাঘাটও। এনিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করলেও জনপ্রতিনিধিদের সংশ্লিষ্টতা থাকায় কেউ মুখ খুলছে না।
গতকাল শুক্রবার সরেজমিনে দেখা গেছে, শর্শদী ইউনিয়নের সফিয়াবাদ গ্রামের কেরানী বাড়ী সংলগ্ন কৃষি জমি থেকে মাটি কাটা হচ্ছে। একটি স্কেভেটর মেশিন দিয়ে কাটা মাটিগুলো ৪টি পিকআপে করে অন্যত্র নেয়া হচ্ছে। প্রতি পিকআপ ভর্তি মাটি কিনতে খরচ হয় ১ হাজার ৬শ টাকা। সেখানে মাটি কেনাবেচার কারবার করছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য মোরশেদ আলম। সফিয়াবাদ ও শর্শদী সহ আশপাশের এলাকায় তার মাধ্যমেই মাটি কেনাবেচা হয়। মাটি কাটার স্থানে প্রশাসনের লোকজন উপস্থিত হওয়ার আগেই গাড়ী সরিয়ে নিতে নিজস্ব লোকজন দিয়ে পাহারা বসিয়েছেন। প্রশাসনের নজর এড়াতে নিকটস্থ সড়কে গাড়ী চলাচল না করে দূরবর্তী এলাকা হয়ে মাটি গন্তব্যে পৌছে দেয়া হচ্ছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, বেশ কিছুদিন ধরে ওই এলাকায় মাটি কাটার মহোৎসব চলছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই কেরানী বাড়ী সংলগ্ন ওই জমি থেকে স্কেভেটর দিয়ে মাটি কাটা হয়। স্থানীয় বাসিন্দা মিন্টু মিয়ার কৃষি জমিটি বর্তমানে ডোবায় পরিণত হয়েছে।
স্থানীয়রা আরো জানায়, মোরশেদ ও তার সহযোগিরা ফসলি জমির ৫-৬ ফুট গর্ত করে মাটি কেটে নেন। এতে করে পাশ্ববর্তী জমিও ফসল উৎপাদনে উপযোগিতা হারিয়ে ফেলবে। যে জমি থেকে মাটি কাটা হয় সেটি থেকে ৫-৬ বছর ধরে ফসল উৎপাদন সম্ভব হবেনা।
মাটি কেনাবেচার অভিযোগ অস্বীকার করেন ইউপি সদস্য মোরশেদ আলম। তার দাবী, মাটি কাটার জন্য তিনি শুধু স্কেভেটর ভাড়া দিয়েছেন।
ইউপি সদস্য মোরশেদ আলম এর মুঠোফোন যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায় তাই তার বক্তব্য নেওয়া যায় নাই।
শর্শদী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জানে আলম ভূঁইয়া জানান, দিনে মাটি বিক্রি হয়না। গভীর রাতে চুরি করে কয়েকটি গাড়ী নিয়ে মাটি বিক্রি করা হয় বলে তিনি জেনেছেন।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরীন সুলতানা জানান, কৃষি জমির টপসয়েল মাটি কেটে নেয়ার বিষয়ে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ