আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

ভূরুঙ্গামারী সবজি বাজারে সবধরনের সবজির মুল্যের উর্ধগতিতে মানুষের জীবিকা দূর্বিসহ হয়ে পরেছে

 

আরিফুল ইসলাম জয়
কুড়িগ্রাম ভূরুঙ্গামারী প্রতিনিধি :

সবজির বাজার উর্ধমুখী হয়ে ১০০ ছুঁই ছুঁই ১ দিনেই আলুর মুল্য কেজিতে ১০ টাকা বাড়লো। কুড়িগ্রামে খুচরা বাজারে সবধরনের সবজির মুল্যের উর্ধগতিতে মানুষের জীবিকা দূর্বিসহ হয়ে পরেছে। সবজির বাজার বেশকিছুদিন থেকেই উর্ধমুখী। সাধারন মানুষ, চাকুরিজীবী,মধ্যবিত্ত সবাই নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য কিনতে এসে বাজার মুল্যের কাছে অসহায় হয়ে পরছেন।

বৃহস্পতিবার ( ৮ই অক্টোবর) কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী সবজি বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় সবজির মুল্য ও ক্রেতা বিক্রেতাদের মতামত জানতে সরেজমিন যাওয়া হয়। এক দিনের ব্যবধানে কার্ডিনাল আলু কেজিতে ১০ থেকে ১২ টাকা বেরে ৪৫-৫০ টাকা দরে বিক্রী হওয়ায় সাধারন মানুষের মধ্যে চরম অসন্তোষ ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। কারন আলুই একমাত্র সবজি,যা দিয়ে ভর্তা, ভাজি, তরকারি সবকিছুই হয় এবং সকলের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে। আছমা বেগম কাচাবাজার সংলগ্ন সম্ভ্রান্ত ও উচ্চ মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহবধু, তিনি সবজি ক্রয় করছিলেন। সবজি বাজাড়ে সবজির দাম নিয়ে তার বক্তব্য জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন , গত এক মাসেরও বেশী সময় ধরে প্রতিটি আইটেমের সবজি কেজিতে ৭০ থেকে ৮০ টাকার মধ্যে কিনতে হচ্ছে। মরিচ ১৮০ টাকা, পেয়াজ ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রী হচ্ছে, যা ক্রয়ে রীতিমত হিমশিম খেতে হয় কারন বাড়িতে মাছ মাংসের চেয়ে সবজির তরকারীর প্রয়োজন অনেক বেশী।

সবজীর খুচরা বাজারের বিভিন্ন দোকানে ঘুরে দেখা গেছে, কার্ডিনাল আলু ৪২ থেকে ৪৫ টাকা, দেশী আলু ৪৮ থেকে ৫০ টাকা,পটল ৭০ টাকা, বেগুন ৮০ টাকা,দেশী ছিম ১৪০ টাকা, ভেন্ডি ৮০ টাকা, সজনা ২০০ টাকা,করলা ৮০ টাকা,সসা ৬০ থেকে ৬৫ টাকা, রসুন ১০০ টাকা, মরিচ ১৮০ টাকা, দেশী মরিচ ২২০ টাকা, শুকনা মরিচ ৩০০ টাকা, পেয়াজ ৯০ টাকা, নতুন ফুলকপি ও বাধা কপি ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রী করতে দেখা গেছে। কিছু সবজী ক্রয়সীমার মধ্যে মনে হলেও পুর্বের বাজার মুল্যের থেকে এগুলোর মুল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। যেমন পেপে ৪০ টাকা, কচুর বই ৩০ টাকা,মিস্টি কুমড়া ৪০ টাকা, মুলা ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রী হচ্ছে। শুকনা আদা ২০০ টাকা কেজি হলেও বাজারে নতুন কাঁচা আদা আসায় তা ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রী করছেন বলে জানান সবজি দোকানদার জাহাঙ্গীর মিয়া। সবজি দোকানদাররা জানান, পেয়াজ দেশীটাই ৯০ টাকা কেজিতে বিক্রী হচ্ছে। গত ১৫ দিন থেকে ভারতের এলসি পেয়াজ কোন আরত দারদদের কাছে পাওয়া যাচ্ছে না। গত মাসে ভারতীয় পেয়াজ আমদানী কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর আবার তা চালু হলে ৫০/৬০ টাকা দরে বিক্রী হয়, পরবর্তীতে যা ৭০-৭৫ টাকা পর্যন্ত কেজিতে বিক্রী হয়েছে। গাজর টমেটো সহ (আগাম) শীতকালিন অনেক সবজি বাজারে দেখতে পাওয়া গেলোনা। কারন হিসেবে বলছেন, ১২০ থেকে ১৪০ টাকার উপর কিনতে হলে বেচতে হবে আরো বেশী দামে। তাই বেশীরভাগ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী এ সবজিগুলো দোকানে তুলছেন না।

বাজার মুল্য পরিস্থিতি উর্ধগতি হওয়ার কারন হিসেবে সবজি দোকানদারগন বলেন, পাইকারী বাজারে আমরা সবজি যে দামে ক্রয় করি তা কেজিতে ৩-৪ টাকা, কোন সবজিতে ২ টাকা ধরে বিক্রী করি। গত এক মাসেরও বেশী সময় ধরে প্রতিটি সবজি চড়া দামে বিক্রী হচ্ছে বলে তারা স্মীকার করেন। দাম বাড়ার কারনে বিক্রী অনেক কমে গেছে, মানুষ প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম খরচ করছেন বলে কাচামাল ও সবজি ব্যাবসায়ীদের দাবী। বেচা কেনা কম হওয়ায় তাদের লোকসান গুনতে হয়।

চাকুরিজীবী একজন স্কুল শিক্ষকের সাথে কথা হয়, তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে বেতন কাঠামো চলার মত হলেও বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্য থেকে শুরু করে বিশেষ করে খাদ্যদ্রব্য সবজির মুল্য যে হারে বেরেছে তা আর কমছেনা। ফলে মাসের আয়ের টাকা দিয়ে পুরো মাসের খাবারটাও সংকুলান দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

বাজারে সন্ধ্যা ৭ টার দিকে খরচ করতে আসা একজন রিক্সাচালক নাম আমজাদ হোসেন তার সাথে কথা হয়। আমজাদ বলেন, বাড়ির টুকটাক কাজ সেরে সকাল ৯ টার দিকে গরম ভাত খেয়ে রিক্সা নিয়ে বের হয়েছেন। দুপুড়ে শুধু মাত্র ২ টা পরাটা হোটেলে খেয়েছেন। সারাদিন রিক্সা চালিয়ে যা কামাই রোজগার করেছেন তা দিয়ে এখন চাল ডাল সবজি কিনে বাড়ি ফিরবেন। তিনি বলেন, ” এটা কথা হইলো বাহে, উদিন কে, কালকেও আলু কিনলং ৩৫ টেকা ; এলা সোগ দোকান ঘুরিফিরি দেখং ৪৫ টেকা আলুর দাম। মরুচের ঝাল খাওয়া বাদ দিছি, আলুর ভর্ত্তা ঝাল ছারা ভালো নাগে, এলা তো দেহং আলু খাওয়াও আর হবান নয়। ” এই কথা বলে বয়লার মুরগীর দোকানের দিকে হাটা দিলেন।

চাউল, ডাল, মাছ মাংস থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল পন্যের দাম নিয়ে তেমন প্রতিক্রিয়া না থাকলেও সবজির বাজাড় গত এক মাসেরও বেশী সময় ধরে চড়া থাকায় সর্বসাধারনের সংসারের ব্যয় মিটানো খুব কষ্টকর হয়ে পরেছে। এখন সবজি সাধারন মানুষের মুখে উঠছে না।

পাইকারী বাজারে কাচামাল ও সবজির দাম উর্ধগতি এবং বহুদিন যাবত বাজাড় একইরকম থাকার কারন হিসেবে পরপর বন্যায় কৃষিজ জমি নষ্ট হওয়াকে অন্যতম কারন হিসেবে বলছেন আরতদার ফুল মিয়া । সবজির আমদানী কম থাকায় মুল্য কিছুটা বেরেছে বলেও তার দাবী। পাইকার আনোয়ার হোসেন বলেন শীতের নতুন সবজি না আসা পর্যন্ত সবজির দাম সহসাই কমছে না। তবে সরকার আমদানীর ব্যবস্থা করলে দাম কমে আসবে বলে পাইকার আলম দাবী করেন।

স্থানীয় সচেতন মানুষদের দাবী, পাইকার আরতদার, মজুতদার সবাই জনগনকে জিম্মি করে অধিক মুনাফা অর্জনে ব্যাস্ত। প্রশাসনের নজরদারী ও তদারকি থাকলে এতটা কষ্ট মানুষ পেতোনা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ