আজ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জুন, ২০২২ ইং

রাজশাহীর ১৪ পৌরসভায় ভোটের হাওয়া বইছে, প্রার্থীদের দৌর ঝাপ শুরু

 

নিজস্ব প্রতিবেদ: , আতিক খাঁন :

রাজশাহীর ১৪ পৌরসভায় মাঠ দাপাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। সামনে নির্বাচন ঘিরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতারা প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর এই পৌরসভাগুলোতে নির্বাচন হয়েছিল। সেই হিসেবে চলতি বছরের শেষের দিকে নির্বাচন হওয়ার কথা।

পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন নিতে বেশ কয়েক মাস ধরে বড় দুই দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৎপরতা শুরু করেছেন। জেলা ও কেন্দ্রের শীর্ষ নেতাদের আশীর্বাদ পেতে তারা প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছেন। আর স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সমর্থন পেতে বাড়িয়েছেন সাংগঠনিক তৎপরতা। ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে মেয়র প্রার্থী হিসেবে অনেকে আলোচনায় এসেছেন।

রাজশাহী জেলার ১৪ পৌরসভা হলো- তানোর, মুন্ডুমালা, গোদাগাড়ী, কাঁকনহাট, নওহাটা, কাটাখালী, কেশরহাট, ভবানীগঞ্জ, তাহেরপুর, চারঘাট, দুর্গাপুর, পুঠিয়া, বাঘা ও আড়ানী।
এসব পৌরসভার সবগুলোতেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীরা তৎপরতা শুরু করেছেন। গোদাগাড়ী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবু ও ওয়েজ উদ্দিন বিশ্বাস এবং বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সাবেক মেয়র আনোয়ারুল হক চৌধুরী ও গোলাম কিবরিয়া রুনু মাঠে নেমেছেন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে কাঁকনহাটের বর্তমান মেয়র আবদুল মজিদ ও যুবলীগের সাবেক নেতা আবদুল্লাহ হিল কাফি এবং বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় আছেন সাবেক কাউন্সিলর জিয়াউল হক ও হাফিজুর রহমান। তানোরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ইমরুল হক ও আবুল বাশার, বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় আছেন বর্তমান মেয়র মিজানুর রহমান মিজান। মুন্ডু-মালায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রাব্বানী, গোলাম মোস্তফা, সাইদুর রহমান ও শরিফ খান এবং বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মোজাম্মেল হক, ফিরোজ কবির ও আতাউর রহমানের নাম শোনা যাচ্ছে।
পবা উপজেলার দুটি পৌরসভা নওহাটা ও কাটাখালী। নওহাটায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবদুল বারী খান এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল কবির রুনুর নাম শোনা যাচ্ছে। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে আছেন বর্তমান মেয়র মকবুল হোসেন, ওয়াদুদ হাসান পিন্টু ও মামুনুর সরকার জেড। কাটাখালী পৌরসভার বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা আব্বাস আলী আবারও মেয়র প্রার্থী। বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে আছেন সিরাজুল ইসলাম ও নুরুল ইসলাম। মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ, বর্তমান কাউন্সিলর রুস্তম আলী প্রামাণিক ও শাহিনুর আলম এবং বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সাবেক মেয়র আলাউদ্দিন আলোর নাম শোনা যাচ্ছে। বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র আবদুল মালেক ও মামুন অর রশিদ মামুন

বিএনপির প্রার্থীদের মধ্যে আছেন সাবেক মেয়র আবদুর রাজ্জাক প্রামাণিক ও শাহিনুর রহমান শাহিন। তাহেরপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র আবুল কালাম আজাদ ও বিএনপির প্রার্থীদের মধ্যে আছেন সাবেক মেয়র আবু নাঈম শামসুর রহমান মিন্টু। দুর্গাপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনায় আছেন বর্তমান মেয়র তোফাজ্জল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মান্নান ফিরোজ, আবদুর রাজ্জাক ও আজাহার আলী। বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে আছেন জার্জিস হোসেন সোহেল ও সাইদুর রহমান মন্টু।

পুঠিয়া পৌরসভায় আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র রবিউল ইসলাম রবি, খালেদ হোসেন লালন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব এবং ইব্রাহিম সরকারের নাম শোনা যাচ্ছে। বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে মামুন খান, আসাদুল হক আসাদ ও বাবুল হোসেন আলোচনায় আছেন। চারঘাট পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের মধ্যে একরামুল হক ও কাজী মাহমুদুল ইসলাম মামুনের নাম শোনা যাচ্ছে। এ ছাড়া বিএনপির একমাত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র জাকিরুল ইসলাম বিকুল মাঠে আছেন। বাঘা পৌরসভায় আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন সাবেক মেয়র আক্কাছ আলী, শাহিনুর রহমান পিন্টু ও ওয়াহেদ সাদেক কবির। বিএনপির প্রার্থীদের মধ্যে আছেন বর্তমান মেয়র আবদুর রাজ্জাক ও কামাল হোসেন। আড়ানী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের বর্তমান মেয়র মুক্তার আলী, শহীদুজ্জামান শহীদ, মতিউর রহমান মতি এবং রিবন আহম্মেদ বাপ্পী মাঠে আছেন। বিএনপির প্রার্থীদের মধ্যে আছেন সাবেক মেয়র নজরুল ইসলাম ও সুজাত আহমেদ তুফান। এসকল প্রার্থীগণ পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ