আজ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুন, ২০২২ ইং

৭৫-এর প্রেতাত্মারা ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে চেয়েছিলো’ : শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি

 
ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধিঃ      
১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের স্মরণে চাঁদপুরে শোকসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২১ই আগস্ট শুক্রবার বিকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে পৌর আওয়ামী লীগের আয়োজনে এ শোকসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
চাঁদপুর পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাধা গোবিন্দ গোপের সভাপতিত্বে ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান বাবুল এবং প্রচার ও দপ্তর সম্পাদক এমরান হোসেন সেলিমের যৌথ পরিচালনায় উক্ত সভায় টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি। এ সময় মন্ত্রী বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান, তাঁর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ তাঁর পরিবারকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ঘাতকরা সেদিন এ হত্যার মাধ্যমে চেয়েছিলো বাংলাদেশকে হত্যা করতে। যাতে করে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে। কিন্তু তাদের সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়নি। আল্লাহর অশেষ রহমতে জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তাদের সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে দেননি।
মন্ত্রী আরো বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলে থাকাকালীন যখন সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ে সংগ্রাম করছিলেন, তখন ২০০৪ সালের ২১ই আগস্ট ওইসব ষড়যন্ত্রকারীরা ঠিক একই কায়দায় পল্টন ময়দানের জনসভায় গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিলো। এতে করে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভী রহমান ও কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের হাইমচরের কৃতী সন্তান কুদ্দুছ পাটওয়ারীসহ আমাদের দলীয় অনেক নেতা-কর্মী নিহত হন। সেদিন অনেকে মারা গেলেও অল্পের জন্যে প্রাণে বেঁচে ফিরেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। ২১ই আগস্ট গ্রেনেড হামলার মাধ্যমে ‘৭৫-এর প্রেতাত্মারা আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে চেয়েছিলো’।
কিন্ত, তারা সফল হতে পারেননি।
আজ জননেত্রী শেখ হাসিনা শত প্রতিকূলতা মাড়িয়ে বাংলাদেশকে উন্নতির ধারায় এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। এই করোনাকালেও তিনি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।
এছাড়াও উক্ত অনুষ্ঠানে আরো  বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সন্তোষ চন্দ্র দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী, অ্যাডঃ মজিবুর রহমান ভূঁইয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক অ্যাডঃ রনজিত রায় চৌধুরী, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক অজয় কুমার ভৌমিক, সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সভাপতি অ্যাডঃ বদিউজ্জামান কিরণ, যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদ আহমেদ মিঠু, সাংগঠনিক সম্পাদক সাবি্বর হোসেন মন্টু দেওয়ান, অ্যাডঃ সাইফুদ্দিন বাবু, মোজাহের হোসেন টিপু, জেলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব মাহবুবুর রহমান, জেলা আওয়ামী মহিলা যুবলীগের সভাপতি ফরিদা ইলিয়াছ, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী আয়েশা রহমান প্রমুখ। এ সময় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনা শেষে ১৫ আগস্ট নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের সকল সদস্য ও গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদে দোয়া ও মুনাজাত পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মাহফুজুর রহমান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ