আজ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

আদিতমারী মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর বাঁধ নির্মাণ

 

আতিকুল ইসলাম নয়ন,কালীগঞ্জ প্রতিনিধি :

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার ৮ নং মহিষখোচা ইউনিয়ন এর, তিস্তা নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায়, অত্র এলাকার ০৭, ০৮ ও ০৯ নং ওয়াডের ৫৫ টি পরিবাব গৃহবন্দী হয়ে আছেন।

নদীর পানি থেকে রক্ষার জন্য গ্রামবাসী সবাই মিলে, প্রায় ১ কি.মি দুর নদীর মাঝখান থেকে বালু সংগ্রহ করে প্রায় ০১ কি.মি বাঁধ নির্মান করেন।

বিশ্বব্যাপি করোনা ভাইরাসের কারনে, তাদের তেমন কোনো আয় করার মতো সামর্থ নেই। ফলে বাঁধটি সংরক্ষণ করতে ব্যার্থ হয়ে পড়েন এলাকা বাসী।

কিন্তুু নদীর পানি ধারণ ক্ষমতার বাহিরে যাওয়ায়, বাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ সেই অঞ্চলে। ফলে দেখা যায় তাদের ফসল সব পানিতে ডুবে যায় এবং ৫৫ টি পরিবার গৃহবন্দী হয়ে পরে।

এই বিষয় কে কেন্দ্র করে, গ্রামের লোকজন গত ২০জুন শনিবার, আদিতমারী ইউএনও কে কল করে বিস্তারিত বলেন।

২১ জুন রবিবার বেলা ০২ টায়, আদিতমারী উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও এবং ৮ নং মহিষখোচা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী সবাই মিলে সেই বাঁধ দেখতে যান।

পরে আদিতমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস ফারুক বলেন, এই বাঁধ সঠিক ভাবে না থাকায় আমরা আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। এই বাঁধ এর কারনে আজ অনেক মানুষ গৃহবন্দী। আমরা যতো তারাতাড়ি সম্ভব বাঁধটি সংরক্ষণ করে দিবে।

পক্ষান্তরে ইউএনও বলেন, এই বাঁধের কারনে যারা গৃহবন্দী, তাদেরকে আমরা ত্রাণ এর ব্যবস্থা করে দিবো। পরিশেষ এ বলেন, এই বাঁধ নির্মান যা প্রয়োজন সব কিছু আমরা বহন করবো।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী বলেন, এই কাজটি আরো আগে করা উচিত ছিলো। তবে আপনাদের আর কষ্ট করতে হবে না, সরকারি অনুদানে বাঁধটির জন্য আমারা আশাবাদী।

৮ নং মহিষখোচা ইউনিয়নের ০৭, ০৮ এবং ০৯ নং ওয়াডের গ্রামের লোকজন এর দাবি। তাদের কে সুন্দর করে একটা নতুন বাঁধ নির্মান করে দেয়া।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ