আজ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

বাহারি ফুল ও অসাধারণ অর্কিড দ্বারা সজ্জিত চাঁসক ক্যাম্পাস ও উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগ

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁসক ক্যাম্পাস

চাঁদপুর জেলার সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ চাঁদপুর সরকারি কলেজ। মহামারি নোবেল করোনা ভাইরাসের কারণে যখন সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারি সাধারণ ছুটির আদলে বন্ধ। ঠিক তখনিই বাহারি রঙ আর বেরঙের ফুল আর অর্কিড ছুঁই ছুঁই করছে চাঁসক ক্যাম্পাস ও উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগ।
আর এর পিছনে রয়েছে অনেক ব্যক্তি ও অনেক দিনের নিরলস পরিশ্রম।

তাদের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য অবদান হলো, উক্ত কলেজের প্রকৃতি প্রেমী সাবেক প্রধান অধ্যক্ষ জনাব ড. প্রফেসর এএসএম দেলোয়ার হোসেন পিপিএ (বর্তমানে অবসর)। যার হাত ধরে শুরু চাঁসক ক্যাম্পাস সাজানোর কার্যক্রম।

আর তাহার সাথে নিরলসভাবে পরিশ্রম করেছেন সাবেক উদ্ভিদবিদ্যা প্রধান জনাব ড. প্রফেসর সুশীল কুমার নাহা ও বর্তমান উদ্ভিদবিদ্যা প্রধান জনাব কামরুল হাসান এবং উক্ত কলেজ ম্যানেজিং কমিটি।

উক্ত কলেজের সাবেক প্রধান জানান, আমাদের এতদিনের চেষ্টা এই মাহামারীর সফল হয়েছে যা ভাবা সত্যিই অসাধারণ। আমি মনেকরি, এটি কলেজের শিক্ষকদের নতুনভাবে শক্তি ও সাহসের সহিত কাজ করতে সাহস জোগাবে।

উক্ত কলেজের বর্তমান প্রধান জনাব প্রফেসর অসিত বরণ দাস বলেন, এ মহামারী কারণে কলেজ বর্তমান রূপ আমাকে সহ কলেজর শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও এলাকার সবাই কে মুগ্ধ করেছে। আমি এর জন্য উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগ কে ধন্যবাদ জানাই যাদের নিরলস প্রচেষ্টায় আজকের এ সৌন্দর্য সৃষ্টি হয়েছে। এবং এর ধারাবাহিকতা সামনে ধরে রাখতে চেষ্টা করবো।

উক্ত কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা প্রধান জনাব কামরুল হাছান বলেন, বর্তমানে অনাবৃষ্টি ও আবহাওয়া অনন্য বছরের তুলনায় অনুকূলে থাকায় অতিদ্রুত গাছে ও অর্কিডে ফুল এসেছে। আমি এতেনখুব খুশি।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে আমাদের ক্যাম্পাস ও বিভাগে বিভিন্ন ফুলসহ পঞ্চাশের অধিক অর্কিড রয়েছে।
তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ফুল হলো লিপস্টিক, রাধাচূড়া, লিপিড, কৃষ্ণচূড়া, জারুল, রক্তজবা, রঙ্গন, নয়নতারা, বকুল ইত্যাদি।
আর অর্কিডের মধ্যে রয়েছে ডেন্ড্রোবিয়াম, ডেন্ড্রোবিয়াম টান্সপারেন্স,ডেন্ড্রোবিয়াম এপাইলাম, ডেন ফরমেসাম, ফক্সটেইল, ডেন হাইব্রিন, ক্যাটালিয়া, ডেন্সি লেডিসহ আরো অনেক অর্কিড।

তিনি বলেন, প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য্যে বলে দেয় অচিরেই আমরা আগের মত চলাফেরা করতে পারবো।
এবং কলেজর প্রধানসহ সবার সহযোগিতায় পেলে আমরা ক্যাম্পাসকে একটি প্রকৃতি বান্ধব ও আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে উপহার দিতে পারবো ইনশাআল্লাহ।

লেখকঃ- ইব্রাহীম খলীল সবুজ, শিক্ষার্থীঃ- উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগ, ৩য় বর্ষ (২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ), রোলঃ- ৩৫২১।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ