আজ ২৫শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৮ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

চাঁদপুরে দুর্বৃত্তদের আগুনে বসত ঘর ও দোকান পুড়ে ছাই

 

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ -চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

 

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে অধিকাংশ পরিবার যখন এক প্রকার ঘরবন্দি এর মধ্য দিয়ে চাঁদপুরের ফরিদঞ্জ উপজেলায় রাতের আঁধারে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে বসত ঘর ও দোকান পুঁড়ে পথে বসেছে অসহায় পরিবার।

৮ এপ্রিল বুধবার গবীর রাতে উপজেলার রুপসা উত্তর ইউনিয়নের নারিকেলতলা কালি গাছতলের পাশে নোয়া বাড়ীর নুরজাহান বেগমের বসত ঘরে এ অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

নুরজাহান বেগম বলেন,
রাত প্রায় ১০ টার সময় অসুস্থ ছেলে বাবুল (৫৫) কে রাতের খাবার খাইয়ে ঘুমাতে রেখে আমি ঘরের দরজার কাছেই ঘুমাই ছিলাম ঠিক কিছুক্ষণ পর ছেলে ডাক চিৎকার করলে উঠে দেখি আমার ঘরের দরজায় কারা যেন বাহির থেকে শিকল লাগিয়ে রাখছে, আমি ঘরের ভেতর থেকে বাহিরে তাকিয়ে দেখি কারা যেনো ঘরে আগুন লাগিয়ে দিচ্ছে।
তখন চিৎকার করলে আশপাশের সবাই এসে আগুন নিভানোর চেষ্টা করে। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি। ততক্ষণে সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে জিজ্ঞাস করলে ক্ষতিগ্রস্ত নুরজাহান বলেন, ‘আমি মাইনষের বাড়িত্তন খুজি বিছারি আনি, ঘরের বিত্তে কিছুর অভাব ছিল নারে বাবা। ৪ থেকে ৫মণ চাইল এ আছিলো আর ষোল সতের হাজার টাকা আছিলেলো, কিনা আছিল কি কইতাম কিইছুর অভাব আছিল না ঘরে বিত্তে। মাইনষেরতন আনি এত এই ঘর কইছি।

নুরজাহান বেগমের ছোট ছেলে দুলাল ঘরের সামনে একটি ছোট দোকান ছিল। এই দোকানে দোকান করেই চলতো দুলালের সংসার।

প্রতিবেশি মো. খলিলুর রহমান জানান, রাত্রে আমি বাড়িতে ঘুমায়েছিলাম। গভীর রাতে আগুন লাগার চিৎকারের সংবাদ পেয়ে এসে দেখি ঘরের সবকিছুই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।
এলাকা বাসির প্রছেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আসলে ও কিছুই রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. লিঠন ও মামুন পাটওয়ারী জানান,
কি কারনে আগুন লেগেছে আমাদের জানা নেই।
তবে কেউ যদি আগুন লাগিয়ে থাকে তাহলে তাকে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দেওয়া হেবে।

সংবাদ পেয়ে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ, চাঁদপুর জেলা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান মিঠুসহ অন্যান্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
এবং অনুদানের ব্যাপারে আশা প্রদান করেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ