আজ ৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ ইং

আদর্শিক চর্চা; প্রেক্ষিত সূর্যসেন হল ছাত্রলীগের গেস্টরুম

সাদ্দাম হোসেন,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি :

ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গেস্টরুম নিয়ে বারবারই হয়েছে সমালোচনা। আর এই সমালোচনার তীর সবসময়ই দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দিকে গিয়েছে।

বাম ছাত্রসংগঠনগুলোর দাবি গেস্টরুমে হলের সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনসহ বিভিন্ন ধরনের অমানবিক আচরণ করা হয়।

তবে সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার দা সুর্যসেন হলে সরেজমিনে গিয়ে এক অন্যরকম গেস্টরুমের চিত্র দেখা গেছে। প্রতিরাতে হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফুল আলম শপু, মোজাম্মেল হক পারভেজ ও হাবিবুর রহমান সুমনের উদ্যোগে পাঠচক্রের আয়োজন করা হয়।

এতে অসমাপ্ত আত্মজীবনী, কারাগারের রোজনামচা, আমার দেখা গণচীন একজন একজন করে পাঠ করে আর বাকিরা মনোযোগ দিয়ে তার পাঠ শুনে। এছাড়া সমকালীন রাজনীতির হালচাল নিয়েও আলোচনা হয় সেখানে।

মাস্টার দা সূর্যসেন হলের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের গেস্টরুমে কোন কিছু জোর করা হয় না। কাউকে শাস্তি কিংবা ঝাঁড়ি দেয়া হয় না। সবাই সবার খোজ খবর নেয়। আমাদের কোনো সমস্যা হলে তা আমরা সিনিয়রদের কাছে বলি।

তারা তাদের সাধ্যমতো আমাদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করেন। মাঝে মাঝে আমাদের গেস্টরুমে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে সবাই সবার প্রতিভা উপস্থাপন করে। এছাড়া গেস্টরুমে আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক ফলাফল ও চারিত্রিক গুণাবলির উন্নয়নকল্পে সিনিয়ররা বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

মাস্টার দা সূর্যসেন হলের এরকম গেস্টরুমের চিত্রকে অনেকেই ইতিবাচক পরিবর্তন হিসেবে দেখছেন। রাজনীতি সংশ্লিষ্টরা এটিকে গুণগত পরিবর্তন হিসেবে অ্যাখ্যা দিয়েছেন।

এব্যাপারে হল শাখা ছাত্রলীগে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফুল আলম শপু বলেন, গেস্টরুমকে নিয়ে যারা সমালোচনা করে তাদের সমস্যা গেস্টরুম নিয়ে না। তাদের সমস্যা ছাত্রলীগকে নিয়ে। গেস্টরুমকে ইস্যু করে তারা ছাত্রলীগের প্রতি সাধারণ শিক্ষার্থীদের নেতিবাচক মনোভাব তৈরি করতে চায়।

আমরা গেস্টরুমকে একটা নতুন আঙ্গিকে সাজাতে চাই। গেস্টরুম আমাদের ঐতিহ্য।বর্তমানে গেস্টরুম নিয়ে যে অভিযোগের জায়গাগুলো রয়েছে তা দূর করতে আমরা বদ্ধ পরিকর।

আমরা প্রতিরাতে অসমাপ্ত আত্মজীবনী বা কারাগারের রোজনামচা বা আমার দেখা গণচীন থেকে পাঠচক্রের আয়োজন করি। তারপর আমরা বর্তমান ছাত্র ও জাতীয় রাজনীতি নিয়ে মুক্ত আলোচনা ও মতবিনিময় করি। এরপর কারো কোন সমস্যা থাকলে সেটি সমাধান করার চেষ্টা করি।

আমরা মনে করি, যারা ছাত্রলীগকে ভালোবাসে এবং মন থেকে মুজিবাদর্শকে ধারণ করে তারা কখনোই গেস্টরুমকে নিয়ে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করতে পারে না।

গেস্টরুমকে নিয়ে যারা নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করে তারা মূলত ছাত্রলীগের শক্তিশালী সাংগঠনিক ক্ষমতা নিয়ে ঈর্ষান্বিত। তাদের লক্ষ ছাত্রলীগকে সাংগঠনিকভাবে দূর্বল করা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ