আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

ইলেকট্রিক শক দিয়ে মাছ ধরার ফাঁদে মানুষ আহত

কে এম নজরুল ইসলাম : 
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে অবৈধ পন্থায় মাছ ধরার ফাঁদে পড়ে ইদ্রিস নামের একজন আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। উপজেলায় দিনে দিনে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মাছ শিকারের প্রবণতা বেড়ে চলছে।
মাছ ধরার জন্য তৈরি এই ডিজিটাল ফাঁদে মাছের বদলে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে! যারা এসব ইলেকট্রিক শর্ট-সার্কিট দিয়ে মাছ শিকার করেন তারা নিজেরাই বলেন যে, বানানো ফাঁদে অনেক সময় তারা ক্ষতির সম্মুখীন হবার আশঙ্কা থাকে।
উপজেলার উত্তরাঞ্চলের ৪নং সুবিদপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের নূরপুর, উটতলীসহ বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতিয়া নদীর বুকে ইলেকট্রিক শর্ট-সার্কিট দিয়ে অবৈধ পন্থায় মাছ শিকারের প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়ায় দুর্ঘটনা বেড়ে চলছে। ইতোমধ্যে মাছ শিকারের এই ফাঁদের কবলে পড়ে গুরুতর আহত হয়ে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন উপজেলার নূরপুর গ্রামের ২ সন্তানের জনক ইদ্রিস বেপারী।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, ২৪ ভোল্টের ব্যাটারি চার্জ দিয়ে ইনভার্টার মেশিনের মাধ্যমে ডিসিকে এসিতে রূপান্তর করা হয়। পরবর্তীতে পানিতে নেগেটিভ আর লাঠির সাথে জাল বেঁধে ওই লাটির মাথায় বিদ্যুতের পজেটিভ লাইন দিয়ে পানিতে ফেলা হয়। এসময় আশেপাশের প্রায় ১৫-২০ ফিট পানি বিদ্যুতায়িত হয়ে ওই স্থানে থাকা জলজ প্রাণীসহ সকল মাছ মারা যায়। এতে করে বিলুপ্তি ঘটছে নদীর বিভিন্ন প্রজাতির মাছেদের। ধ্বংস হচ্ছে অন্যান্য জলজ প্রাণীও।
এই ফাঁদে আক্রান্তের শিকার ইদ্রিস বেপারী বলেন, ‘আমি পানিতে ডুব দিলে তাদের নিয়ন্ত্রিত কারেন্টের আওতায় চলে যাই। এসময় ইলেকট্রিক শক খেয়ে আমি আমার শরীরের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অচেতন হয়ে পড়ি। পরে অচেতন অবস্থায় পানির স্রোতে অনেকদূরে গিয়ে নদীর পাড়ে ভেসে থাকতে দেখে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সদর হাসাপাতালে নিয়ে ভর্তি করায়।
সেখানে ৪ দিন প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আমাকে আরও ৩ মাসের চিকিৎসা দিয়ে ছুটি দেয় ডাক্তার। বর্তমানে আমি ২ সন্তান নিয়ে অনেক কষ্টে জীবনযাপন করেছি। এরফলে আমার অনেক ক্ষতি হয়েছে।’
বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য রুহুল আমিন মুন্সি জানান, ‘এখানে অনেকদিন ধরে মাছ শিকার করে আসছে তারা। তাদেরকে নিষেধ করলেও শোনে না। আমি চাই প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিক।’
এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারহানা আকতার রুমা জানান, ‘ইলেকট্রিক শর্ট-সার্কিট দিয়ে এভাবে সরাসরি মাছ ধরার কোনো অনুমতি নেই। বিষয়টা সম্পূর্ণ অবৈধ। আমরা এই বিষয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে অভিযানে বের হব।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ