আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

ট্রেন থেকে পড়ে ৯ মাস ধরে হাসপাতালে, পরিচয় মিলেনি শিশুর

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে চলন্ত ট্রেন থেকে পড়ে ১১ বছর বয়সী অজ্ঞাত শিশু গুরুতর আহত হয়ে ৯ মাস যাবত ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি রয়েছে।

সার্জারী বিভাগের সূত্রে জানা যায়, অজ্ঞাত শিশুটি ৯ মাস আগে মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হয়ে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি হয়। ওইদিন থেকে হাসপাতালে সার্জারী চিকিৎসক, নার্স, পরিচ্ছন্ন কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবীদের সেবায় শিশুটির শারিরীক অবস্থা অনেকটা উন্নতি হয়েছিল।

এখন শিশুটি আগের মত চোখ খুলতে পারে না। মাঝেমধ্যে কথা বলার চেষ্টা করলে এখন সেটাও পারে না। শিশুর মুখে খাবার দিলে তা খেতে খুব কষ্ট হয় তার। যেহেতু ওই শিশুর কেউ নেই, তাই সার্জারী বিভাগ হয়েছে শিশুটির চিকিৎসা শেষস্থল।

ওই শিশুর যাবতীয় ওষুধপত্র হাসপাতাল বহন করলেও খাওয়া-দাওয়া জোগান দিচ্ছে পরিচ্ছন্নকর্মী উজ্জ্বল ও বিভিন্ন সামাজিক-মানবিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা ইতিমধ্যে কিছু সাংবাদিকরা অজ্ঞাত শিশুটির খোঁজ খবরও রাখছেন। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে৷ দ্রুত শিশুটিকে সুস্থ করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়ে অনেকেই চেষ্টা করছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়ক ডা. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করার পর থেকেই শিশুটি অসচেতন ছিল। কয়েকদিন আগে শিশুটির শারিরীক অবস্থা আগের চেয়ে অনেক উন্নতি ছিল। কিন্তু হঠাৎ ছেলেটি আগের চেয়ে বেশী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। ওই শিশুর যাবতীয় ওষুধপত্র হাসপাতাল থেকে দেওয়া হচ্ছে এবং ডাক্তারগন সবসময় তার চেকাপ করে যাচ্ছেন।

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, ১১বছর বয়সী শিশুটি অজ্ঞাত, তার পরিবারের লোকদের খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছে পুলিশ। আমরা খুব শীঘ্রই পরিবারের খোঁজ পাবো।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ