আজ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

লক্ষ্মীপুরে প্রশাসনের নির্দেশনা মানছে না জনসাধারণ

মোঃ হৃদয় হোসেন লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

 

মহামারি করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকারের কড়া নির্দেশনা দেওয়ার পরও  মানছে না জনসাধারণ।  নির্দেশনা উপেক্ষা করে লক্ষ্মীপুরের গ্রামগঞ্জে দোকানপাট খোলা রেখে জনসমাগম সৃষ্টি করছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। প্রশাসনের কঠোর নজরদারি না থাকায় ব্যবসায়ী আর সাধারণ জনগণ সচেতনতার বিষয়টি তোয়াক্কা করছে না বলে অভিযোগ সচেতন মহলের।

এদিকে সরকার কর্তৃক সাধারণ ছুটি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে স্থানীয়রা বাড়ি ফেরায় পাড়ামহল্লায় বাড়ছে গণজমায়েত। সকালে বাজার ও দোকানগুলোতে লোকজন কিছুটা কম হলেও বিকালে মেলে ঈদের আমেজ। দোকানের অর্ধেক সাঁটার খোলা ও প্রশাসনের টহলের খবর রেখে কৌশলে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। জেলা প্রশাসন সহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা মাইকিং, তদারকি ও ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে জরিমানা করলেও রোধ হচ্ছে না জনসমাগম।

সমাজকর্মী রিয়াদ হোসেন বলেন, কয়েকদিন ছুটি পাওয়ায় শহর ছেড়ে গ্রামে এসেছেন মানুষ। বন্ধ রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহন। যদিও নিজ নিজ বাসস্থানে নিরাপদে থাকার জন্য ছুটি দিয়েছেন সরকার। সেটি না করে অনায়াসে রাস্তায় ঘুরাফেরা, হাট-বাজার ও চা দোকানে আড্ডা দিচ্ছেন। তার মতে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত একজন লোকসমাগমে থাকলে তা বাকিদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এজন্য শহরঞ্চলের পাশাপাশি প্রশাসনের গ্রামে নজরদারি বৃদ্ধি করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন রিয়াদ।

চা দোকানই পরিবারের উপার্জনের একমাত্র সম্বল। এটি খোলা থাকলে চুলায় আগুন জ¦লে অন্যথায় না। নাম প্রকাশ না করা শর্তে একাধিক ব্যবসায়ী এমনটি বলেছেন। তবে অনেকেই আবার পাশের দোকান খোলা থাকায় তিনিও বন্ধ রাখেননি। তবে সকলেরই দাবি একটি ছাড়া করোনা সচেতনতায় সরকারের দেওয়া সবগুলো নির্দেশনা পালন করছেন।

আড্ডারতরা বলছেন, বাড়িতে বন্দি থাকতে ভালো লাগে না। এজন্য সময় কাটাতে ও চা খেতে বাড়ির বাইরে আসছেন। কেউ বলছেন, দীর্ঘদিন পর গ্রামের আসায় বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরাফেরা করছেন। তারাও বলছেন মহামারি করোনা থেকে বাঁচতে হলে প্রশাসনের আদেশ শুনা উচিত।

জেলা চেয়ারম্যান ফোরামের সদস্য ও বামনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন মুন্সি বলেন, সবগুলো ইউনিয়নে সচেতনতার জন্য মাইকিং, লিফলেট, মাস্ক ও হ্যান্ডওয়াশ সহ বিভিন্ন কর্মসূচি করা হয়েছে। অপ্রয়োজনে রাস্তায় ঘুরাফেরা, নিত্যপ্রয়োজনীয় ও ফার্মেসী ব্যতিত অন্য দোকানগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। তবুও ব্যবসায়ীরা পূর্বের ন্যায় দোকান পরিচালনা করে যাচ্ছেন। বাঁধা দিতে গিয়ে কয়েকটি স্থানে গ্রাম পুলিশের সদস্যরা দোকানী কর্তৃক লাঞ্চিত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।
সুশাসনের জন্য নাগরিক’র (সুজন) জেলা সভাপতি কামাল হোসেন বলেন, করোনা একটি ছোঁয়াছে রোগ। বর্তমানে বিশে^ মহামারি আকারে ধারন করেছে এটি। ভাইরাসটির সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সকলের উচিত জনসমাগম এড়িয়ে চলা, প্রশাসন কর্তৃক নির্দেশনাগুলো মেনে চলা। তবে শহরের তুলনায় গ্রামের রাস্তাঘাটে ও হাট-বাজারগুলোতে লোকসমাগম প্রতিনিয়ত হয়ে থাকে। প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কঠোর নজরদারি না থাকায় এমনটি হচ্ছে বলে মনে করেন সুজন সভাপতি।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল বলেন, মানুষ সচেতন হলেই জনসমাগম ও অপ্রয়োজনে চলাচল বন্ধ করা সম্ভব। তা না হলে জেলা প্রশাসনের পক্ষে এটি রোধ করা কষ্টকর। তবুও জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি প্রত্যেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছেন। সার্বক্ষনিক সেনাবাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশ টহল দিচ্ছে। নির্দেশনা অমান্যকারীদের ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে শাস্তিও দেওয়া হচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ