আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২৪ ইং

ফরিদগঞ্জে গৃহবধূকে কুপিয়ে জখম,  থানায় মামলা

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি :
ফরিদগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গৃহবধূ মালা আক্তারের (২৮) ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর জখম করেছে আপন ভাসুর। উপজেলার  ৯নং গোবিন্দপুর ইউনিয়নের নয়াহাট বাজার সংলগ্ন বেপারী বাড়ির সিরাজ বেপারীর বড় ছেলে আব্দুল গফুর বেপারী (৩৫) দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে এই ঘটনাটি ঘটায়। গুরুতর আহত অবস্থায় মালা আক্তারকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ১১ জুন শুক্রবার সকালে পল্লীবিদ্যুৎ অফিস থেকে বকেয়া বিল কালেকশনের জন্য লোক এলে গৃহবধূ মালা আক্তার বিদ্যুৎ বিলের অর্ধেক অংশের জন্য ভাসুর গফুর বেপারীর ঘরে গিয়ে টাকা চায়। তারপর বকেয়া বিদ্যুৎ বিল নিয়ে উভয়পক্ষের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে গফুর বেপারী ক্ষিপ্ত হয়ে আপন ছোটভাই মিলন বেপারীর (৩৩) স্ত্রী মালা আক্তারকে হাতের কাছে থাকা মাটি কাটার বেলচা দিয়ে সজোরে আঘাত করলে মালা আক্তার বামহাত দিয়ে আঘাত ঠেকাতে গেলে তার হাতের কব্জি ভেঙ্গে গিয়ে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। মাটিয়ে লুটিয়ে পড়ার পর আরও ক্ষিপ্রগতিতে ভাসুর গফুর বেপারী হাতের স্টিলের বেলচা দিয়ে মালা আক্তারের মাথায় অনবরত কোপাতে থাকে। পরে বাড়ির লোকজন মালা আক্তারকে বাঁচাতে গেলে তাদের ওপরও আঘাত করে গফুর। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।
বাড়ির লোকজন বলেন, ‘মিলনের স্ত্রী মালা ও গফুরের স্ত্রী সুমি আক্তারের (৩০) মধ্যে প্রায় সময়ই ঝগড়া লেগে থাকতো। কিন্তু গফুর আজকে যে কাজটা করেছে, গফুর কাজটা ঠিক করেনি। আজ যদি আমরা বাধা না দিতাম, তাহলে মিলনের স্ত্রীকে বাঁচানো সম্ভব হতো না। ’
জখম হওয়া মালা আক্তারের বাবার বাড়ির আত্মীয়দের সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুর সদরের ১২নং চান্দ্রা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মনু মিয়া শেখের মেয়ে মালা আক্তারকে চার বছর পূর্বে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৯নং গোবিন্দপুর ইউনিয়নের নয়াহাট বাজার সংলগ্ন সিরাজ বেপারীর ছোট ছেলে ৯নং গোবিন্দপুর ইউনিয়নের তথ্যকেন্দ্রের কর্মকর্তা মিলন বেপারীর সাথে বিয়ে দেওয়া হয়। বিয়ের পর থেকে মালা আক্তারের ভাসুর গফুর বেপারী ও তার স্ত্রী সুমি আক্তাররা প্রায় সময়ই মিলন বেপারী ও মালা আক্তারের সঙ্গে নানান বিষয়ে ঝগড়া-বিবাদ করতো। আহত মালা আক্তারের বাবা মনু মিয়া জানান, ‘মেয়েকে নির্মমভাবে তারা কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে। এই সন্ত্রাসী হামলা কোনো অবস্থাতেই মেনে নেওয়া যায় না। এই হামলাকারী গফুর বেপারী তার স্ত্রী সুমি আক্তারকে আইনের আওতায় এনে কঠোর বিচারের দাবী জানাই।’
মারাত্মকভাবে জখম হওয়া মালা আক্তারের স্বামী মিলন বলেন, ‘প্রায় সময় বড়ভাই গফুর বেপারী আমার স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করতো ও আজেবাজে কথা বলতো। গফুর মিয়ার ঘরে মিটার নাই বলে আমার ঘর থেকে সাইড লাইন নিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে আসছে। গত ৭ মাস ধরে সে বিল দেয় না। বকেয়া বিলের জন্য বিদ্যুৎ অফিস থেকে লোক আসছে মিটারের লাইন কেটে দেয়ার জন্য। আমার স্ত্রী তাদের কাছ থেকে বিল চাইতে গেলে তারা আমার স্ত্রীকে প্রাণে মেরে ফেলার জন্য এইভাবে মারধর করেছে। আমি তার উপযুক্ত বিচার চাই।’
এদিকে বাড়িতে গফুর ও তার স্ত্রী সুমি আক্তারকে পাওয়া যায়নি। সরেজমিনে গিয়ে ঘরে তালা মারা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে। স্থানীয় লোকজনকে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, ‘মারামারির পরে সে বাড়ি থেকে পালিয়েছে।’ এ বিষয়ে ইউপি সদস্য আব্দুস ছাত্তার বলেন, ‘আমি ঘটনাটি শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে মালা আক্তারের শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্ত লেগে থাকতে দেখেছি। তারপর বাড়ির লোকজনদের জিজ্ঞাসা করলে তারা প্রকৃত ঘটনাটি আমাকে বলে। গফুর এই কাজ করেছে শুনে খুব খারাপ লাগলো। আমি চাই সঠিক তদন্ত করে বিচার হোক।’
চাঁদপুর সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার জানান, ‘আহত মালা বেগমের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার মাথায় ২০টি ও হাতে ৬টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। তাকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।’
গফুর বেপারী ও তার স্ত্রী সুমি আক্তারের মোবাইলে কয়েকবার কল করে বন্ধ পাওয়ায় তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহম্মদ শহীদ হোসেন বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ ফোর্স পাঠাই। সেখানে গিয়ে উপস্থিত লোকজনের বক্তব্য সংগ্রহ করি এবং এই বিষয়ে ইতোমধ্যে থানায় মামলাও হয়েছে। আসামী গফুর বেপারী ও তার স্ত্রী ঘরে তালা মেরে পলাতক রয়েছে।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ