আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

কাকে কীভাবে ম্যানেজ করতে হয়, সেটা ভালোই জানা আছে’

ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি :

ফরিদগঞ্জের ৬নং গুপ্টি ইউনিয়নের হামছাপুর গ্রামে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে কয়েক লক্ষ ফুট বালি উত্তোলন করছে একটি অসাধু চক্র।

লাউতলি গ্রামের সাবেক মেম্বার বাচ্চু মিজি দীর্ঘদিন ধরে নিষিদ্ধ ড্রেজার দিয়ে মাটি উত্তোলন করে আসছেন। জানা যায়, তিনি ফসলি জমি থেকে নিয়মিত ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে বালি উত্তোলন ও মাটি কাটা অব্যাহত রেখেছেন। গত ২০ দিন ধরে একনাগাড়ে দিনে ও রাতে প্রশাসনের চোখের আড়ালে ড্রেজিংয়ের কাজ করাচ্ছে অসাধু চক্রটি।

সংবাদকর্মীরা এই খবর পেয়ে সেখানে গেলে তাদের সাথে ক্ষমতার জোর দেখান বাচ্চু মিজি। তিনি আরও বলেন, আমি ২০ বছর ধরে এই ব্যবসা করে আসছি। কাকে কীভাবে ম্যানেজ করতে হয়, সেটা আমার ভালোই জানা আছে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয় লোকজন জানান, সরকারদলীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এই ড্রেজিং কারবার চলছে। রাস্তার পাশে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করা হলেও প্রশাসনের কেউ সেটা আমলে আনছেন না অথবা দেখেও না দেখার ভান করে ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। ফসলি জমি থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করার কারণে বসতবাড়ি ভেঙে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিউলী হরি জানান, ড্রেজার বসানোর খবর শুনলে সেখানে অভিযান পরিচালনা করি এবং আমাদের প্রশাসনিক অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন আক্তার আইনি ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, বালুমহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ধারা ৫-এর ১ উপধারা অনুযায়ী পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালি বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। ধারা ৪-এর (খ) অনুযায়ী সেতু, কালভার্ট, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকা থেকে এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ। আইন অমান্যকারী ব্যক্তি দুই বছরের কারাদণ্ড ও সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। আমরা সর্বদা এ বিষয়ে সজাগ থেকে কাজ করে যাচ্ছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ