আজ ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই মে, ২০২১ ইং

গরম আসতে না আসতেই লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ ফরিদগঞ্জের মানুষ

কে এম নজরুল ইসলাম : 
ফরিদগঞ্জে গত ২/৩ বছর আগেও একটা ডায়ালগ খুবই প্রচলিত ছিল যে, ‘কারেন্ট মাঝেমধ্যে যায় না, মাঝেমধ্যে আসে’! যদিও এখন সেই কথার প্রচলন কিছুটা কমেছে, তবুও সেই ‘মাঝেমধ্যে আসা’র মতো ভেল্কিবাজি এখনও রয়ে গেছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দেখা যায় কোনো কোনো দিন ৭/৮ বারও লোডশেডিং হয়। উপজেলা সদরের অবস্থা মোটামুটি হলেও প্রত্যন্ত গ্রামীণ অঞ্চলে এর ভয়াবহতা অকল্পনীয়। এমন ঘনঘন লোডশেডিংয়ের কারণে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। শীত পরবর্তী গ্রীষ্মের তাপদাহের মাত্রা তীব্র থেকে তীব্রতর হতে না হতেই গরমের প্রথম ভাগে বিদ্যুৎ বিভাগের এমন খামখেয়ালিপনায় যারপরনাই বিরক্ত হচ্ছেন গ্রাহকগণ। প্রচণ্ড গরমের মাঝেও বিদ্যুৎ না থাকলে অসুস্থ ও শিশুদের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে ওঠাটা স্বাভাবিক। বিদ্যুতের এ ভেল্কিবাজিতে ব্যবসা-বাণিজ্য, অফিস-আদালত ও ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ায় মারাত্মক বিঘ্ন ঘটছে।
চাহিদার অনুপাতে ফরিদগঞ্জে বিদ্যুৎ সরবরাহ পর্যাপ্ত থাকলেও অহেতুক কেন এভাবে বিদ্যুতের যাওয়া-আসার খেলা চলে, তা ভুক্তভোগী গ্রাহকদের বোধগম্য নয়। গ্রাহকরা মনে করছেন পল্লীবিদ্যুৎ কর্মকর্তাদের গাফিলতির কারণেই এমনটা হচ্ছে। এদিকে বিদ্যুৎ খাতে বাংলাদেশ সরকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছে। উন্নয়নের ছোঁয়া ফরিদগঞ্জের পল্লীবিদ্যুতেও লেগেছে। সাধারণ গ্রাহকেরা মনে করছেন ফরিদগঞ্জ অফিসের কর্মকর্তাদের গাফিলতির শিকার হচ্ছেন তারা। অপরদিকে ভুতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের অভিযোগ নিয়ে প্রায়শই বিদ্যুৎ অফিসে গ্রাহকদের হয়রানিও বেশ চোখে পড়ার মতো।
এখন রমজান মাস চলছে। মুসলমানদের কাছে রমজানের গুরুত্ব অপরিসীম। বিগত রমজানগুলির তারাবিহ, সেহেরি ও ইফতারের সময় লোডশেডিংয়ের কবলে পড়েছিল ফরিদগঞ্জের জনগণ। বিদ্যুতের চলমান সমস্যা দ্রুত সমাধান না করলে রমজান মাসে তারাবিহ, সেহেরি ও ইফতারের সময় সিয়াম সাধনার এই পবিত্র মাসে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের মারাত্মক দুর্ভোগে পড়তে হবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় মুসল্লিরা।
ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ১৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ২টি সাব-স্টেশন রয়েছে। যার একটি অবস্থিত ৯নং গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের নয়াহাট এলাকায়, অপরটি উপজেলার উত্তরাঞ্চলের ৪নং সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়নের কামতা বাজারে। জানা গেছে, কামতা সাব-স্টেশনের আওতা হচ্ছে উপজেলার ১নং ইউনিয়ন হতে ৬নং ইউনিয়ন পযর্ন্ত এবং নয়াহাট সাব-স্টেশনের আওতা হচ্ছে অন্যান্য ইউনিয়ন ও হাইমচরের কিছু অংশ। বিদ্যুতের চাহিদা রয়েছে ২৪ মেগাওয়াট। এ উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ আছে চাহিদার চেয়ে বেশি। পল্লীবিদ্যুতের ডিজিএমের দেওয়া সূত্রমতে পুরো উপজেলা জুড়ে বিদ্যুতের গ্রাহক রয়েছে ১ লক্ষ ২৫ হাজারের মতো।
নয়াহাট বাজারের ব্যবসায়ী মাহিদুল ইসলাম রাজু বলেন, ‘সন্ধ্যার দিকে প্রচুর লোডশেডিং হয়। দোকানে আলোর জন্য জেনারেটর চালাতে হয়; এতে দেখা যায় কারেন্ট বিলের চাইতে দ্বিগুণ টাকা খরচ হয়ে যায়। এভাবে চলাটা কষ্টকর, যা মেনে নেওয়া যায় না।’ এদিকে উপজেলার ১৫নং রূপসা ইউনিয়নের রিক্সাশ্রমিক আলমগীর বলেন, ‘সরকার কইছে বিদ্যুতের নাকি অভাব নাই। তইলে এতবার বিদ্যুৎ যায় কা?’
এ বিষয়ে চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ এর ফরিদগঞ্জ জোনাল অফিসের ডিজিএম মো. নুরুল হোসাইন জানান, ‘বর্তমানে বিদ্যুতের কোনো ঘাটতি নেই । ফরিদগঞ্জে আগের চেয়ে বিদ্যুৎ ব্যবস্থার অনেকটা উন্নতি হয়েছে। তবে বিভিন্ন স্থানে মেরামত কাজের জন্য বিদ্যুতের কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এ উপজেলায় পল্লীবিদ্যুতের প্রায় সোয়া লক্ষ গ্রাহক রয়েছে।বিদ্যুতের কোনো ঘাটতি নেই।’
চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ এর জেলা সভাপতি ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিচালক মো. আলীম আজম রেজা জানান, ‘বর্তমানে দেশে করোনা মহামারি চলমান থাকায় পল্লীবিদ্যুতের চেয়ারম্যান কোনো মিটিং কল করেন না। তাই পল্লীবিদ্যুতের সাথে সংশ্লিষ্টদের জবাবদিহিতা না থাকার কারণে তাদের নিজেদের স্বেচ্ছাচারিতার দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ করেন।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘আমি নিজেও একজন গ্রাহক। তাই আমি নিজেও ভুক্তভোগী।’
ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান জিএস তসলিম জানান, ‘আমরা জনপ্রতিনিধি হিসেবে পল্লীবিদ্যুতের গ্রাহকেরা অনেক সময় আমাদের কাছে বিদ্যুতের সমস্যার কথা বলে। আমরা পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের কথার সাথে কাজের তেমন মিল পাচ্ছি না। পল্লীবিদ্যুতের এ সমস্যার কারণে সরকারের সফলতার বদনাম হচ্ছে বলে আমি মনে করি।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ