আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

ফেসবুকে রকির শেষ পোস্ট

নড়াইল :
রাত এগারোটা বেজে দশ মিনিট, ফেসবুকে নতুন একটি পোস্ট . পোস্টদাতার নাম রকি . রকি তার পোস্টের শুরুতেই লিখেছেন  এটি হয়তো আমার জীবনের শেষ পোস্ট . এটাতে শেয়ার করতে চায় আমার জীবনের কিছু অব্যক্ত কথা . যা আমি কাউকে কখনো বলতে পারি নি . হয়তো আমার মতো অনেকেই আছে যারা তাদের মনের অব্যক্ত কথা মনে চেপে রেখে কষ্টের সঙ্গে জীবন যাপন করছে আবার কেউবা মনের কথা মনে রেখে অকালে চলে গেছেন পরপারে . যাই হোক পরের সঙ্গ আর টেনে আনবো না আমার কাছে বেশি একটা সময় নেই আমার কথাই আমি বলি . আমি রকি . আমার গ্রামের নাম ফুলবাড়ি . এই গ্রামের একটা মধ্যবিত্ত পরিবারে আমার জন্ম . আমার বাবা একজন কৃষক এবং মা গৃহিনী . আমরা চার ভাই-বোন . আমার বড় তিন জন বোন আর আমি . ছোটবেলা থেকেই আমি চার ভাই-বোনের মধ্যে খুব আদরের ছিলাম . আমি যখন যেটা চাইতাম আমার মা-বাবা সেটা দেওয়ার চেষ্টা করতো . তবে আমি এমন কিছু চাইতাম না যেটা আমার বাবার সাধ্যের বাইরে . আমার বাবা আমাদের চার ভাই-বোন কেই পড়ালেখা শিখিয়েছেন . আমি সবার থেকে ভালো স্টুডেন্ট ছিলাম . আমার বাবা-মা ও আমার প্রতি বেশি নজর রাখতেন . আমার অন্য তিন বোন খারাপ রেজাল্ট করলে তাদের বেশি কিছু বলতো না কিন্তু আমি খারাপ রেজাল্ট করলে আমাকে অনেক বোকা ঝোকা করতো . এমনকি আমাকে আমার বাবা-মা ছোটবেলা থেকেই প্রাইভেট পড়িয়েছেন যাতে আমি ভালো স্টুডেন্ট হয় . কিন্তু আমার তিন বোনের ক্ষেত্রে আমার বাবা-মা এটা করেন নি . মাঝে মাঝে আমি খুব কষ্ট পেতাম যখন আমার বাবা-মা আমি খারাপ রেজাল্ট করলে আমাকে খুব বোকাঝোকা করতো অথচ আমার বোনরা আমার থেকে খারাপ রেজাল্ট করতো কিন্তু তাদের তেমন কিছু বলতো না . তখন বিষয়টি আমি বুঝতে পারিনি আমার বাবা-মা এমন কেন করেন . যাইহোক আমার তিন বোনেরই বিয়ে হয়ে যায় এসএসসি পাশ করার পর . আমি এখনও পড়ালেখা করছি . আমি অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র . আমি এসএসসি পাশ করার পর থেকেই আমার বাবা-মা আমাকে চাকরি করার জন্য বলে আসছে . কিন্তু আমি তেমন গ্রাহ্য করিনি কারন আমি পড়ালেখা শেষ করে চাকরি করতে চাইছিলাম . কিন্তু কোন ভাবেই আমার বাবা-মাকে আমি বোঝাতে পারছিলাম না . তারা আমাকে বিভিন্ন ভাবে কথা শোনাতো . কিন্তু  আমি সেটা কানে না নিয়ে আমি আমার পড়াশুনা চালিয়ে যায় . তারপর আমি মনে মনে ভাবি যে আমার বাবা-মা আমাকে এত কষ্ট করে মানুষ করেছে আমার উচিত তাদের মতামতকে সম্মান করা . পরে আমি তাদেরকে সম্মতি দিয়ে বিভিন্ন ভাবে চাকরির জন্য চেষ্টা করি . কিন্তু আমাদের বাংলাদেশের যা পরিস্থতি চাকরি পাওয়া যে কত কষ্ট সেটাতো আপনারা জানেনই . অনেক ভাবে চেষ্টা করি অনেকের সঙ্গে যোগাযোগ করি কিন্তু কোন ভাবেই একটা চাকরি ম্যানেজ করতে পারলাম না . মায়ের ইচ্ছাই ড্রাইভিং শিখলাম . ড্রাইভিং  শিখলে নাকি অতি সহজে সেনাবাহিনীতে চাকুরি পাওয়া যায় . কিন্তু কোন ফলাফলই পেলাম না . পরে জানলাম সরকারি চাকুরি নাকি যোগাযোগ আর টাকা ছাড়া হয় না . বাবা-মা যোগাযোগের চেষ্টা করে টাকা দিতে রাজি হয় তাতেও কোন কাজ হয়না . পরে আবার নতুন করে জানলাম টাকা হলে শুধু হয়না সাথে মামা-খালু লাগে . যাইহোক তারপরও চেষ্টা চালিয়ে যেতে লাগলাম কিন্তু কোনো ফলাফল পাচ্ছিলাম না . কিছুদিন পর আমার এইচএসসি পরীক্ষার ডেট চলে আসে . আমি আবার পড়াশুনাতে ব্যস্ত হয়ে যায় . আমার বাবা-মাও আমাকে আর চাকুরির জন্য চাপ দিচ্ছিলোনা . পরীক্ষা দেওয়া শেষে আমি নিজের থেকে বিভিন্ন ভাবে চাকুরির জন্য ট্রাই করে যাচ্ছিলাম সেটা আমার বাবা-মা জানতো কিন্তু তবুও তাদের মনে আমাকে নিয়ে সবসময় এক বিষন্নতার কালোমেঘ জমে থাকতো . এভাবে দিন কয়েক যাওয়ার পর আমার পরীক্ষার ফলাফল দেয় . আশানরুপ ফলাফল করতে পারি নি এটা নিয়ে ভীষণ ভাবে ভেঙে পড়েছিলাম . আমার মা আমাকে সান্তনা দেয় তারপর আমি ওটা থেকে রিকভার করি . ফলাফলের কিছুদিন পরেই ন্যাশনাল ইউনি ভার্সিটিতে ভর্তির আবেদন ফর্ম ছাড়ে . আমি আবেদন ফর্ম পূরণ করে অনার্সে ভর্তি হয় . ভর্তির কিছুদিনের মধ্যে ক্লাস শুরু হয় . আমার প্রথম থেকেই টার্গেট ছিল যে করেই হোক আমি স্যারদের নিকট যেন প্রিয় হতে পারি . এজন্য প্রতিদিন নিয়মিত ক্লাস করতাম আর অনেক পড়াশুনা করতাম যাতে স্যারদের প্রতিটা পশ্নের উত্তর আমি দিতে পারি . আর এমনটাই হচ্ছিল . আমি অল্প সময়ের মধ্যে স্যারদের নিকট এমনকি ক্লাসের অন্য ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট আমি খুব পরিচিত হয়ে গেছিলাম . কলেজ আর পড়াশুনা করে দিন আমার ভালোই যাচ্ছিল . কিন্তু হঠাত্ একদিন আমার বাবা আমার মায়ের সাথে আমার বিষয়ে কথোপকথন করছিল এমন সময় বলে উঠলো বাপের হোটেলে খাইতেছে এজন্য কিছু গায়ে লাগছে না . কথাটা শোনার পর আমার এতটা খারাপ লাগছিল আপনাদের বলে বোঝাতে পারবোনা . আমি জীবনে এতটা কষ্ট কখনো পায়নি . আমি কান্না করতে চাইছিলাম না তারপরও কেন যেন আমার চোখের পানি আমি থামাতে পারছিলাম না . তারপর আমার মা আমাকে শান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করলো আর সাথে বোঝানোরও চেষ্টা করলো . আমি এবার জীদ ধরলাম পড়াশোনা করি আর না করি চাকুরি একটা আমার জোগাড় করতেই হবে . এমন সময় অনলাইনে দেখি ফায়ার সার্ভিসে লোক নিয়োগ দিচ্ছে . আমি অ্যাপলাই করলাম, এখন মাঠে দাড়াতে হবে . মাঠে দাড়ানোর স্থান দিলো ঢাকার ঐদিকে . মাঠে দাড়ালাম কিন্তু এটাতেও কোন কাজ হলোনা . ফলাফল দেওয়ার আগেই করোনা মহামারিতে আঘাত আনলো . চারিদিকে লকডাউন পড়ে গেলো . স্কুল-কলেজ সবকিছু বন্ধ বাড়িতে বসে বসে দিন কাটাচ্ছিলাম . এমন সময় মাথায় একটি বুদ্ধি আসলো যে বসে না থেকে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি কেননা বর্তমান চাকুরির জন্য এটা আ্যাবেল আ্যাবেল প্রয়োজন পড়ছে . তাছাড়া ততদিনে লকডাউন শিথীল করে দিয়েছিল . কম্পিউটার প্রশিক্ষণ শুরু করলাম . এটাতে বাবা-মারও সাপোর্ট ছিল . আমার প্রশিক্ষণ যখন মাঝপথে তখন আমার বাবা হঠাত্ স্ট্রোক করেন . আল্লাহর অশেষ রহমতে তিনি করুন অবস্থা থেকে ফিরে আসেন . কিন্তু তিনি তার কার্যক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন . তিনি ডান হাত দিয়ে ভাত পর্যন্ত খেতে পারেন না . এমন পরিস্থিতে আমার উপর সংসারের ভারটা চলে আসে . আমি প্রশিক্ষণ নেওয়ার পাশাপাশি সংসারের যাবতীয় কাজ এমনকি মাঠে কৃষি কাজও করতে থাকি . আমার প্রশিক্ষণ নেওয়া শেষ হলে আমি বিভিন্ন কম্পান্নিতে আ্যাপলাই করতে শুরু করি . কিন্তু ফলাফল সেই আগের মতই . এদিক থেকে আমার উপর অনেক পেশার সংসারের . আমি কি করবো ভেবে পাচ্ছিলাম না . হঠাত্ আমার মাথায় আসে আমি যেহুতু কম্পিউটারের কাজ শিখছি সেহুতু একটি কম্পিউটার কিনে অনলাইনের কাজ শিখে অনলাইনে কাজ করতেই পারি . বিষয়টি আমি আমার মাকে বোঝালাম সে আমাকে সমর্থন জানালো . আমার মা অনেক কষ্টে ধারদেনা করে আমাকে একটি ল্যাপটপ কিনে দেয় . যেহুতু আমার মা আমাকে ধারদেনা করে ল্যাপটপ কিনে দিয়েছে সেহুতু আমার যে অনলাইন কোচিং করার কথা ছিল সেটা টাকার অভাবে সম্ভব হয়ে উঠছিলনা . আমার যেটুকু জ্ঞান ছিল ইউটিউব দেখে অনলাইনের কাজের উপর আমি সেটা আ্যাপলাই করতে থাকি . কিন্তু ফলাফল পাচ্ছিলাম না . এদিক থেকে আমার বাবার ঔষুধের জন্য প্রতিমাসে প্রয়োজন হয় ছয় থেকে সাত হাজার টাকার . আমার মা অনেক কষ্ট করে সেটা জোগাড় করেন . যেটা আমার করার কথা ছিল . আমি আমার বাবা-মার চোখের দিকে তাকাতে পারিনা . আমার নিজের প্রতি আমার করুণা হয় . যেখানে আজ আমার বাবা-মাকে দেখার কথা সেখানে আমি আজও তাদের একটা বোঝা হয়ে রয়েছি . এতটা অসহায়ত্ব নিজেকে অনুভব করছিলাম এর আগে আমি এমনটা কখনো অনুভব করিনি . খুব খারাপ লাগছিল আমার . যেন চারপাশ আমার অন্ধকার হয়ে আসছিল . আমার জীবনের পুরানো সৃতিগুলো সব ভেসে উঠছিল . আর আস্তে আস্তে সব বিষয়গুলো আমি বুঝতে পারছিলাম যা ছোটবেলাই বুঝতে পারিনি . কেন আমার বাব-মা আমার তিন বোন থেকে আমাকে বেশি প্রাধান্য দিত . কারণ তাদের ধারণা তাদের সপ্ন ছিল আমি বড় হয়ে তাদের দেখাশুনা করবো, তাদের জীবনের হালটা ধরবো . কিন্তু আমি আমার ব্যর্থতার জন্য তাদের সপ্ন, আশা কোনটাই পূরণ করতে পারলাম না . এমনকি আমি একজনকে ভালোবাসতাম কিন্তু কখনো তাকে বলা হয়ে উঠে নি কারণ আমি চেয়েছিলাম একটা ভালো চাকুরি পেলে সরাসরি তার পরিবারকে জানাবো . তবে সেটা আর হয়ে উঠলো না . আমার অনেক সপ্ন ছিল, তার মধ্যে একটি হলো আমি শহরের পরে একটি বাড়ি করবো সেখানে আমার ছোট্ট একটা সংসার হবে . যেখানে থাকবে আমার বাবা-মা আমি আর যাকে আমি ভালবেসে বিয়ে করবো সে . কিন্তু সবার সপ্নতো আর পূরণ হয়না . তেমনি আমার সপ্নগুলোও সপ্নই রয়ে গেলো . আমি একটু পরে এ পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে যাচ্ছি . কারণ কষ্ট করে বেঁচে থাকার চেয়ে আমার মৃত্যুটাকে সহজ মনে হলো . আমি জানি আত্নহত্যা করা মহাপাপ . এর জন্য হয়তো আমার আল্লাহ আমাকে কখনো ক্ষমা করবেন না . কিন্তু আমি আমার বাবা-মার উপর বোঝা হয়ে থাকতে চায় না . আমার বাবা স্ট্রোক করেছিলেন হয়তো আমার জন্যই . আমার ভবিষত্ এর কথা চিন্তা করে . আমি কিছু করতে পাচ্ছিলাম না, ভবিষত্ এ তারা না থাকলে আমার কী হবে এই ভেবে . আমার বাবা-মা  এখন আরো আমাকে নিয়ে বেশি চিন্তা করেন . বিশেষ করে আমার মা, একদিকে আব্বু অসুস্থ অন্যদিকে আমার ভবিষত্ নিয়ে তিনি সবসময় চিন্তিত থাকেন . আমি চাইনা আমার কারণে আমার বাবা-মার আবার ক্ষতি হোক . আমি আমার বাবা-মাকে অনেক বেশি ভালোবাসি . বিশেষ করে আমি আমার মাকে আমার প্রাণের চাইতে বেশি ভালোবাসি . তাই আমি কখনো চাইবো না যে আমার কারণে আমার বাবা-মার ক্ষতি হোক . তাদের জন্য আমি জীবন দিতে রাজি .
আপনারা হয়তো চিন্তা করছেন বা চিন্তা করতে পারেন যে আমি হয়তো আমার জীবনের ব্যর্থতার কাছে হার মেনে আত্নহত্যার সিদ্ধান্ত নিয়েছি . তাহলে বলবো আপনারা ভুল ভাবছেন . আমি ব্যর্থতার কাছে হার মেনে নয় যাতে না হেরে যায় এজন্য আত্নহত্যা করছি . আজকের বাংলাদেশে বেকারত্ব একটি নিত্য নৈমত্যিক বিষয় . আর এ বেকারত্বের চাপে পড়ে অনেকে আমার মতো আত্নহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে কেউবা অন্ধকার সন্ত্রাসের পথ . জানি না যারা আত্নহত্যা করেছে তারা কী ভেবে আত্নহত্যা করেছে . কিন্তু আমি আত্নহত্যা করছি যাতে আমার এতদিনের যে শিক্ষা বিশেষ করে আমার মায়ের দেওয়া শিক্ষা যাতে বিফলে না যায় . আমি হয়তো বেঁচে থাকতে পারতাম অন্যদের মতো অন্ধকারের রাজত্বে . কিন্তু আমার মায়ের এতদিনের যে পরিশ্রম আমাকে আলোর পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সেটা বিফল হয়ে যেত . কিন্তু এটা আমি কী করে হতে দিতে পারি . যে মাকে আমি আমার জীবনের চেয়ে বেশি ভালোবাসি তাকে আমি কী করে হেরে যেতে দিতে পারি . তাই আমার এই পথ বেছে নেওয়া . হ্যাঁ এটা ঠিক যে আমি এ দুনিয়া থেকে চলে গেলে আমার মা খুব কষ্ট পাবেন . কিন্তু আমি বেচেঁ থাকলেও আমার ভবিষত্ এর কথা চিন্তা করে আমার মা প্রতিনিয়ত কষ্ট পাবেন . তাই প্রতিনিয়ত কষ্ট পাওয়ার থেকে একবার কষ্ট পাওয়া ভালো . আমার এই পোস্টটি করার উদ্দেশ্য আপনাদের সামনে বাস্তবতা তুলে ধরা . আমাদের সমাজে বেকারত্বের কারণে যেমন ক্রাইম বাড়ছে তেমনি ক্রাইমের কারণে বেকারত্ব বাড়ছে . তবে ফারাকটা হলো একজন সরাসরি ক্রাইম করে আরেকজন মুখোশের আড়ালে . মুখোশের আড়ালে যারা ক্রাইম করে তারা হলো এক লেবেজধারী শয়তান . যারা ভালো মানুষের মুখোশ পরে প্রতিনিয়ত অন্যায় করে যাচ্ছে . যাদের কারণে আজ আমাদের সমাজে বেকারত্বের এত চাপ . যাদের কারণে যোগ্য বক্তিদের স্থলে আজ অযোগ্যদের রাজ . যারা সমাজটাকে প্রতিনিয়ত ধ্বংস করছে . আর এভাবে চলতে থাকলে একদিন এই সোনার বাংলা পুড়ে কয়লা হয়ে যাবে .
মন্তব্য : আসলে আজ আমাদের সমাজে ধীরে ধীরে যোগ্যদের স্থান অযোগ্যরা দখল করে নিচ্ছে . আর যার কারণে দিন দিন বেকারত্ব বেড়েই চলেছে . আর আমার এই গল্পের মূল উদ্দশ্যটাই হলো এই বাস্তবতাটাকে ফুটিয়ে তোলা . যাতে করে এই বাস্তবতার সম্মুখীন হয়ে আমাদের সমাজের কিছু পরিবর্তন হয় .  জানিনা আদৌ এটা হবে কিনা কিংবা কতটুকু হবে . তবে আমি আমার মৌলিক দায়িক্তটুকু পালন করলাম মাত্র . আর যদি সমাজের পরিবর্তন হয় তাহলে আমাদের এই সোনার বাংলাকে নিয়ে যে স্বপ্ন , বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন সেটা বাস্তবে পরিণত হবে . আর একদিন এই সোনার বাংলা পৃথিবীর বুকে মাথা উচু করে দাড়িয়ে বিশ্বকে নেতৃত্ব দিবে .
লেখক :
ফয়সাল হুসাইন রাব্বি
শিক্ষার্থী, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ