আজ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নাসিরনগরের ধানতলিয়া গ্রামে চরম করোনা আতংকে বিরাজ করছে

হাসনাত কাইয়ূম, সরাইল প্রতিনিধিঃ

 

ইটালী আর কাতার ফেরত দুই প্রবাসী কোয়ারেন্টাইন না মেলে অবাধে চলাফেরা করায় চরম করোনা আতঙ্ক বিরাজ করছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ধানতলিয়া গ্রামে।
জানা যায়, ইটালীতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় জীবন বাঁচাতে গত ৯ মার্চ দেশে ফিরে নিজ বাড়ীতেই অবস্থান করেন ধানতলিয়া গ্রামের তাজপুরের জাকির হোসেন ভূইয়ার ছেলে মোঃ বাবলু ভূইয়া(২৬) ও প্রায় দুই সপ্তাহ পূর্বে নিজ বাড়ীতেই অবস্থান করেন ধানতলিয়া মধ্যপাড়ার হাজী আহাম্মদের ছেলে কাতার ফেরত কাশেম মিয়া(২৫)। সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের অংশ হিসেবে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশনা থাকলেও কোনো ভাবেই তা মানছেন না বিদেশ ফেরত দুই প্রবাসী। উপরন্তু সরকারী নির্দেশনার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে অবাধে হাটে বাজারে গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এতে চরম আতংক বিরাজ করছে ধানতলিয়া গ্রামবাসীর মধ্যে।

ইটালী ও কাতার ফেরত দুই ব্যক্তির অবাধে মেলামেশা ও চলাফেরায় সবচেয়ে ঝুঁকিতে তাদের প্রতিবেশিরা। বিষয়টি নিয়ে বেশ শঙ্কায় দিন কাটছে গ্রামবাসীর । নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামের কয়েক জন বলেন দুই প্রবাসীর অবাধে ঘোরা ফেরায় আমরা গ্রামবাসী চরম আতংকের মধ্যে আছি।

এব্যাপারে নাসিরনগড় উপজেলার চাতলপাড় পুলিশ ফাড়ির আইসি বাবু রন্জন কুমার ঘোষ এর সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি বলেন আমি ধানতলিয়া গ্রামে গিয়ে কাশেমের বাড়িতে গিয়ে দেখিছি কাশেম বাড়িতে থাকেনা।দুই সপ্তাহ পূর্বে বাড়িতে এসেছে এখন কোথায় থাকে কেউ জানেনা। আর ইটালী ফেরত বাবলু ভূইয়ার ব্যাপারে কিছু জানেন না।
এদিকে কাশেমের ভাই হারুনের সাথে ০১৭১৪-২৮৬৯০১ নাম্বারে কথা বললে তিনি বলেন কাশেম ১৮ দিন আগে দেশে আসে কে জানি পত্রিকায় দিছে তুলে দিছে চাতলপাড়ের দারোগা প্রথমে চৌকিদার দিয়ে খবর নিছে পরে দারোগা নিজে এসে দেখে গেছে কাশেম পুরু সুস্থ আছে। বাড়িতে থাকতেই বলে গেছে। ফেন রাখতেই কাশেমের আরেক ভাই সুমন ০১৭৬৬-৪৪৭০৮০ নাম্বারে কল করে বলে ভাই আপনারা সাংবাদিক মিথ্যা কথা লিখে কি লাভ, আপনারাতো প্রমোশনের জন্য লিখবেনই।দারোগা দেখে গেছে কাশেম সুস্থ আছে।
এব্যাপারে ধানতলিয়া গ্রামের বর্তমান মেম্বার আব্দুল হক এর সাথে ০১৭৯২-০৭৭৯৭৫ নাম্বারে কথা বললে তিনি বলেন কাতার ফেরত কাশেম আমাকে একটু আগে ফোন করে বলে আমি আগামী কাল ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসপাতালে যাব পরীক্ষা করার জন্য। আর ইটালী ফেরত বাবলু সাথে দুই দিন আগে কথা হয়ছে তারা করোনার ব্যাপারে জিগাস করছিলাম সে বলল আমারে ঢাকা থেকে পরীক্ষা করে দিছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ