আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৭শে মে, ২০২৪ ইং

বৃহত্তর মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন এখন সময়ের দাবী 

মোহাম্মদ খোরশেদ আলম :

চান্দিনার মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন খেলা সরল অর্থে ভাগ-ভাগ খেলা কখন জানি শেষ হবে,আসলে কি ভাগ হবে,আমার বিশ্বাস করতে দু টানায় পড়তে হচ্ছে।ভাগ হলে জনগন উপকৃতই হবে! মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সফল চেয়ারম্যান মোঃ বাবুল ফেইসবুক স্ট্যাটাস।আর একটি স্ট্যাটাসে তিনি জানান বৃহত্তরর ০৯ নং মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন নিয়ে কিছুকথা শিরোনামে–“ভালোয়-ভালোয়,সবায় মিলে-মিশে, মানে সর্বসম্মতিতে মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন (দুই ভাগে বিভক্ত) প্রস্তাব দিলে ও কোন না কোন অদৃশ্য শক্তির বাধার মুখে বিভাজন প্রস্তাব আটকে যাবে। সার কথা ভাগ হইতে দেওয়া হইবে না তার উপর আমার দৃষ্টিতে ত্রুটিপূর্ণ প্রস্তাবনা!
২৯/০৮/২০২০ইং অত্র ইউনিয়ন বিভাজন সভায় ইউনিয়ন দুই ভাগে বিভক্ত হইলে জনসাধারনের উপকারিতা,অপকারিতা,সুবিধা,অসবিধা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার মত সুযোগ সৃষ্ঠি করা হয় নাই। গ্রাম ওয়ারী বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গগনকে চিঠি দিয়ে গোল টেবিলের আলোচনায় সর্ব-সাধারনরা কি,কি সুবিধা পাবেন তাহা ব্যাখ্যা করা প্রয়োজন ছিল! দুই ভাগে বিভক্ত হওয়া নির্বাচন কমিশন অফিসের আইন মতে গ্রহন যোগ্য,তিন ভাগে বিভক্ত আইনে গ্রহন যোগ্য নয় এই সব বিষয় গুলি ব্যাখ্যা-বিশ্লেষন করে বহুল প্রচার করা প্রয়োজন ছিল!প্রস্তাবিত বিভাজন লম্বালম্বি ভাবে উত্তর-দক্ষিন ভাগে বিভক্ত হইলে প্রস্তাবিত দুই ভাগের জনসাধারনের যোগাযোগ ভোগান্তি পূর্বের ন্যায় থাকবে!দৈর্ঘ-প্রস্থ মোটামোটি সামজ্যপূর্ণ থাকবে পূর্ব-পশ্চিম ভাগে বিভক্ত হইলে। যেমন:- চান্দিনা-কাদুটি রাস্তা হয়ে মাইজখার মহিলা মাদ্রাসা হইতে এতবারপুর রাস্তায় দুই ভাগে বিভক্ত!”

সাবেক ছাত্রনেতা নজরুল ইসলাম সুমন তাঁর ফেইসবুক স্ট্যাটাসে জানান মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদ বিভাজনের ব্যাপারে কিছু কথা শিরোনামে

“আজ কয়েকদিন এই ছবিটা দিয়ে অনেকে নতুন প্রস্তাবিত পরিষদের নাম বা স্থান নিয়ে ভার্চ্যুয়ালে আবেগে অভিযোগের আঙ্গুল তুলছেন।
আপনারা বুঝতে ভুল করছেন, কেননা নাম আর পরিষদ ভবন স্থান এক নয়, যেমন বর্তমান মাইজখার ইউনিয়নের পরিষদ ভবন বদরপুরে অবস্থিত। নামের জন্য অনেকেই যার যার পছন্দ দাবি করতেই পারেন, যতটুকু জানি পরিষদ ভবনের জন্য জায়গা যিনি বা যারা গিফট দিবে সেখানে পরিষদ ভবনের সম্ভাবনাই বেশি।
নাম & ভবন স্থান এক নয় বা এক জায়গায় হবার সম্ভাবনা ক্ষীণ।প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়, মন্ত্রী, সচিবদের দাপ্তরিক অবস্থান রাজধানী হতেই সারা বাংলাদেশ পরিচালনা করে, ব্রাদার্স। আমি ভাগের পক্ষে সাধারণ জনতার স্বার্থে, প্রস্তাবিত পরিষদের নাম বা ভবন স্থান মুখ্য নয়।বহুজনে রাজনীতির মাঠে জনতার সামনে জনতার ভাগ্য উন্নয়নে আয়নাবাজির গলাবাজি করে, অথচ জনতার বৃহৎ স্বার্থে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে সরকারের সুষম বণ্টন নিশ্চিত করতে এবং উন্নয়নমূলক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিতে বিভাজন একান্ত প্রয়োজন… সেই আঙ্গিকে রাঘববোয়ালরা অবস্থান নেন না… তাদের বৃহৎ পরিসরের ইপ্সিত ক্ষমতা নস্ট হবে ভেবে।

আরেকটা কথা,বহুজনে জানেইনা যে… উপজেলা ভিত্তিক সরকারি উন্নয়নমূলক বরাদ্ধ বেশির ভাগই ইউনিয়ন ভিত্তিক ভাগ হয়, জনতা দেখে নয়।
পার্শ্ববর্তী এতবারপুর ইউনিয়নে ০৬ হাজার ভোটারের জন্য যা বরাদ্ধ, ঠিক তেমনি বরাদ্ধ বৃহত্তর মাইজখার ইউনিয়নেও, অথচ মাইজখার ইউনিয়নে ভোটার প্রায় ৩৪,৭৩৭.
মাইজখারের জনগণ উন্নয়নমূলক বরাদ্ধে তুলনামূলক বরাবরই ঠকে আসতাছে।
জনপ্রতিনিধিদের কর্মকান্ডের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে, জনগনের ভাগ্য উন্নয়নের পথ বাড়াতে বরাবরই ভাগের পক্ষে আমার অবস্থান।
বৃহৎ ইউনিয়নের দাপ্তরিক ভাগ চাই, নাম বা ভবন স্থান মুখ্য নয়।

মাইজখারবাসীর পক্ষে সুমন খান তারঁ ফেইসবুক স্ট্যাটাসও মতামত দিয়েছেন “মাইজখার ইউনিয়ন যদি দুই ভাগে বিভক্তহয় তাহলে ভাল কথা।আমিও ভাগেরপক্ষে। এমপি মহোদ্য়কে স্বাগতম জানাই
আগের ইউনিয়ন যদি পুরাতন নামে হয় মাইজখার ইউনিয়নতাহলে বাকী ১৬ গ্রামের মিডল সেন্টার পরেযায়(কালেমসার,বল্লারচর
কাশারীখোলা টামটা মনারটং) আমার মতে উপযুক্ত ইউনিয়ন পরিষদ ভবন এই মিডল সেন্টারে নির্মাণ করা হোক সকলের সুবিধার জন্য
আমার ব্যাক্তিগত মত বিনিময় করলাম”

মনির মাইজখারের জনগণের পক্ষে তাঁর ফেইসবুক স্ট্যাটাসও মতামত দিয়েছেন মাইজখার বিভাজন নিয়ে তা হল “মাইজখার ইউনিয়ন এখন মনে হয় দুই ভাগে বিভক্ত হতে যাচ্ছে। ভাল কথা একটা থাকবে পুরাতন নামে অন্যটি হবে নতুন নামে। যদি নতুন নাম হয় তাহলে পানিপাড়া নামে কেন হবে? একটা ইউনিয়ন পরিষদ নতুন করে হবে তাহলে এটা মধ্যবর্তী স্হানের নামে না হয়ে কেন একটা কর্নারে বা শেষের গ্রামের নামে হবে? যেহেতু পানিপাড়া থেকে আরম্ভ করে সিংআড্ডা, জিরুআইশ পর্যন্ত ইউনিয়ের সীমানা নির্ধারণ করা হচ্ছে,তাহলে মধ্যবর্তী স্হান হিসেবে টামটা কাশারীখোলা চৌমুহনী নামে কেন নয়? এখন জিরুআইশ গ্রামের কারো কোন প্রয়োজন হলে ওদের (ইউনিয়নের) এক বর্ডার থেকে আরেক বর্ডারে যেতে হবে কেন? মধ্যবর্তী কোন স্হানের নামে বা কোন যায়গায় কি ইউনিয়নের নাম বা স্হান নির্ধারণ করা যায় না? এইটা আমার একান্ত ব্যক্তিগত মতামত প্রকাশ করলাম। সবার মতামত আশা করি জানাই বেন আর বেশি বেশি সেআর করবেন”

ফারুক খান মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা তার ফেইসবুক স্ট্যাটাসও জানান “আহারে এই ভবনে নতুন নাম বসাবে পানি পাড়া ইউনিয়ন পরিষদ। মনে হয় না বাইচ্চা থাকতে দেইক্কাম। বি:দ্র:- ইউনিয়ন ভাগ হইছে বলে গুজব ছরাইয়েন না।” বৃহত্তর মাইজখার ইউনিয়ন বিভাজন এখন সময়ের দাবী যা জনসাধারণের ভোগান্তি কমাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ