আজ ৯ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুন, ২০২২ ইং

ওসি আব্দুল জলিল আসার পরে পাল্টে গেছে রায়পুরের দৃশ্য

 

মোঃ হৃদয় হোসেন রায়পুর প্রতিনিধি:

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর থানা পুলিশের কার্যক্রম গত প্রায় বছর দুয়েক অনেকটা ঝিমিয়ে পড়েছিল। তৎকালীন ওসি’র ঐকান্তিক ইচ্ছা থাকা স্বত্ত্বেও অজ্ঞাত কারনে আসামী ধরার ক্ষেত্রে পুলিশ অফিসাররা কেমন যেন ধীরগতি নীতি অবলম্বন করেছিল। ভাব ছিল যেন, ‘ধরি মাছ, না ছুঁই পানি’।

আবার কোন কোন ক্ষেত্রে দেখা গেছে এলাকাতে আসামী ধরে, এলাকাতেই দফা-রফা। ওসি বেচারা কিছুই জানতেন না। অনেক দিনই থানা হাজত ছিল ফাঁকা। দেখে মনে হতো রায়পুর যেন শান্তির নগরী। নেই কোন অপরাধ, নেই কোন অপরাধী।

তবে তৎকালীন ওসি’র মাদক, সন্ত্রাস, ইভটিজিং বিরোধী সভা সমাবেশ হয়েছে গ্রামে-গঞ্জে, হাট-বাজারে, যত্রতত্র অসংখ্যবার। পুলিশ অফিসারদের আড্ডা ছিল থানার আশপাশের বিভিন্ন দোকানে, অভিযান ছিল একান্ত হাতেগনা।

ওসি আব্দুল জলিল আসার পর পাল্টে গেছে সে দৃশ্য। পুলিশকে এখন আর তেমন একটা আড্ডা দিতে দেখা যায়না। প্রাণ ফিরে পেয়েছে রায়পুর থানা ও সংশ্লিষ্ট সকলে। দালালদের আনাগোনা তেমন চোখে পড়েনা। লক্ষ্মীপুর জেলার বিচক্ষণ পুলিশ সুপার ডঃ এ এইচ এম কামরুজ্জামানের নির্দেশনায় তারুণ্যদীপ্ত নতুন ওসি’র নেতৃত্বে অভিযানে প্রতিদিনই গ্রেফতার হচ্ছে একাধিক আসামী।

চোর-ডাকাত, সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী ও সাজাপ্রাপ্ত আসামীদের ঘুম হারাম। অনেকে চলে যাচ্ছে রায়পুর ছেড়ে। নতুন নতুন মাদক ব্যবসায়ী ধরা খাচ্ছে মাদকসহ। যাদের কেউ কখনো ঘৃণ্য এ ব্যবসার সাথে জড়িত হতে পারে বলে কল্পনাও করেনি।

বেড়িয়ে আসছে ভাল মানুষের মুখোশ পড়া অপরাধীদের চেহারা। প্রতিদিনই গ্রেফতার হচ্ছে দুই থেকে ৮/৯জন বিভিন্ন ধরনের আসামী/অপরাধী। এলাকায় এলাকায় গঠিত হয়েছে বিট পুলিশিং কার্যালয় ও কমিটি।

আপোষহীনভাবে চলছে অভিযান। তদবির হচ্ছে উপেক্ষিত। সত্যিকারের অপরাধীরা পাচ্ছেনা কোন প্রকার ছাড়।

রায়পুর থানা পুলিশের সাঁড়াশী অভিযান ও গ্রেফতারের সফলতায় উচ্ছসিত এলাকাবাসী, জনমনে এখন স্বস্তির নিঃশ্বাস। ওসি আব্দুল জলিলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ রায়পুরের আপামর জনতা। সাধারণ মানুষের বক্তব্য, রায়পুরের বর্তমান চিত্রের ন্যায় দেশের সকল পুলিশ হোক জনতার বন্ধু, আপরাধীর শত্রু।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ