আজ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৪শে মে, ২০২৪ ইং

জাতির পিতা ” কবিতা লেখার জন‍্য আরব আমিরাত প্রবাসী নূরুল ইসলাম মাসূম খেলো চাপাতির কুপ আর গুলি। ত্রিশ বছর পর মনো কষ্টের আত্মপ্রকাশ

 

মো:নয়ন সরদার

**জাতির পিতা **
===========
(কবি আরব আমিরাত প্রবাসী)
নূরুল_ইসলাম_মাসুম =====================
বিশ্ব নন্দিত “শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী ” তুমি বঙ্গবন্ধু শেখ-
মুজিবুর রহমান,
তোমারি অনুপম বিপ্লবী চেতনায় বদ্বীপে আজি –
সবুজ বিরাজমান।
স্বাধীনতার কঠিনতম বজ্র হুঙ্কারে কম্পিত –
পাকসেনা পাকিস্তান,
শোনালো বিশ্বময় এক ইন্দু বাঙ্গালী হবেনা স্থান –
পূর্ব বঙ্গে হবে প্রস্থান।
ধৃষ্টতা ওদের কল্পিত মনে একদেশ পেরিয়ে-
ভষ্মিভূত করিয়া রাখিবনা আস্ত,
আছে পাকিস্তান পন্থী মীরজাফর ভাই-
অহর্নীশ কুর্নিশে সারাক্ষণ ব‍্যস্ত।
পিশাচ আইয়ুব জেনেছে, জানে ইয়াহিয়া, জানে –
শকুন চোখা টিক্কা খান,
মুজিব মানেই বিপ্লব সাড়ে সাত কোটি বাঙ্গালী –
স্বপ্নবিলাসে আগুয়ান।
ইয়াহিয়া খান করিল ফরমান জালিম সেনাপতি –
টিক্কা খানের তরে,
জ্বালাও পোড়াও শ্মশান বানাও নিপাত কর সব-
প্রতি বাংলার ঘরে।
অমানিশার রাতে আলো আঁধারিতে ঘুমন্ত সবে-
মারিল অসংখ্য আবাল বৃদ্ধ বণিতা,
দরদী হইয়া দু’হাত বাড়াইয়া ভারত মাতা ইন্দিরা –
জানাইল অকুন্ঠ সহমর্মিতা।
ওরা মুজিবকে নিয়া পাকিস্তানে গিয়া পঁচিশে –
মার্চ ঊনিশ’শ একাত্তর,
ভাবিত সবে মুজিব বিহীন বাংলা করিবে স্বাধীন-
কে এমন বাঙ্গালী বাহাদূর!
নরাধম ওরা জানেনা কিছুই মুজিব মানেই বীর-
বাঙ্গালী সাড়ে সাত কোটি,
জলে স্থলে সবখানে আছাড়ি মারিবে নারীপুরুষ-
ধরিয়া তোদের টুটি।
কিছু মীরজাফর ছাড়া সকলের মনে দিল নাড়া –
নির্ভয়ে করিব স্বাধীন দেশ,
বঙ্গবন্ধু দিয়াছে ভাষণ সাত মার্চ রেসকোর্স মাঠে –
গঠন করিবে বাংলাদেশ।
তোরা জালিম তোরা নরপিশাচ তোরা শয়তান –
ক্রোধিত চোখ রাখিবেনা বাংলাতে,
জয় বাংলা বলিয়া তোদের নি:শেষ করিয়া-
পদানত করিবে বাংলার ঘাটিতে।
অবশেষে তোরা পরাজিত হইয়া ষোল ডিসেম্বর-
বাংলা ছাড়িয়া পাকিস্তান গিয়া,
মুজিবকে ছাড়িতে বাধ‍্য হইলি মুখেতে তোদের –
সবার কালিমা লেপন করিয়া।
দশ জানুয়ারি ঊনিশ’শ বাহাত্তর বঙ্গবন্ধু মুজিব –
ফিরিল স্বপ্নলালিত স্বাধীন দেশে,
বাঙ্গালী বাংলাদেশ নব চেতনায় হলো স্পন্দিত –
আসিল সে ‘জাতির পিতা’র বেশে।
================================
তৎকালীন ঠিকানা :
নূরুল ইসলাম মাসুম
সান ফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্টেন স্কুল
বলোয়ার দিঘির উত্তর পশ্চিম পাড়
চট্টগ্রাম। ( ১০/ ০৮/ ১৯৯০ ইং)
=============================
(0088 0183 2929295/ 01823 770724 ) বিডি
*উত্তর খারপাড়া, স্বাধীনতা রোড, (মডার্ন কিন্ডার গার্টেন স্কুলের পিছনে,সাবেক কালা পুকুর) কসবা,বাহ্মণবাড়িয়া।

============================
বর্তমান ঠিকানা :
নূরুল ইসলাম মাসুম
আল্ ওয়াদী গার্ডেন ডিজাইন
আদান, রাস্ আল্ খাইমা, (ইউ.এ.ই)
মোবাইল :00971 50 3816739/ 54 3810752
================================
বি:দ্র:- **এই ‘জাতির পিতা’ কবিতাটি ত‍ৎকালীন চট্টগ্রামে ‘দৈনিক আজাদী ‘ পত্রিকার সম্পাদক অধ‍্যাপক খালেদ সাহেবের ছেলে জহির সাহেব সম্পাদিত ১৫ আগস্ট ১৯৯০ ইং “শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী ” ম‍্যাগাজিনে প্রকাশিত।
**কবিতাটি আমার কাছ থেকে সংগ্রহ করেছিলেন, বলোয়ার দিঘির বিশিষ্ট ব‍্যবসায়ী নূর মোহাম্মদ সওদাগরের ছেলে সাব্বির ভাই।

**এই কবিতাটি তৎকালীন বিখ‍্যাত বিপ্লবী জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রাণ প্রিয় শেখ হাসিনাকে দিতে গিয়েছিলাম বন্ধু মাসুদকে সাথে নিয়ে চন্দন পুরা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা জনাব আতাউর রহমান খান কায়সার ভাইয়ের বাড়িতে।
নেত্রী একেবারে আমার সামনে সোফায় বসা। আমি ও আমার ওই বন্ধু মাসুদ সোজা সামনে চেয়ারে বসা। যাকে নিয়ে কবিতা লেখা তাঁকে কোনদিন দেখিনি – কিন্তু মনে হচ্ছে তাঁরই জ্বলন্ত সপ্নবিলাসে উজ্জীবিত বঙ্গকন‍্যার অবয়বে যেনো আপাদমস্তক তাঁরই প্রতিচ্ছবি অবলোকন করছি।
আমার হাতে কবিতার কাগজ। নেত্রীকে দিতে যাব, ঠিক ওই সময় পূর্ব দিকে বাসা থেকে আওয়াজ এলো আগে খাওয়া দাওয়া, পরে সৌজন্য সাক্ষাতকার মিটিং।
নেত্রী ওঠে যেতে যেতে বললেন -আবার এসবের কি দরকার ছিলো কায়সার ভাই -ভাবী।
খাওয়ার পরে নেত্রী যাবেন কক্সবাজার দলীয় প্রোগ্রামে। অনিবার্য কারণবশত কবিতার কাগজটি দেয়া আর সম্ভব হলোনা।
এই কবিতা লেখার জন্য ২৭৮, সিরাজুদ্দৌলা রোড বন্ধু শওকতের বাড়িতে ছাত্র শিবিরের ছেলেরা আমাকে নাস্তিক বলে লান্ছিত ও ভীষণ অপমানিত করে।
এর কিছুদিন পরে সন্ধ্যায় মোমিন রোডে ছাত্র শিবিরের কার্যালয়ের ( টর্চার সেল) সামনে আমাকে পায়ে চাপাতির কুপ দেয়।
গুলি করতে আসলে ভাগ্যক্রমে শিবির নেতা সাতকানিয়ার মুছা ভাই আমি ভালো ছেলে বললে আল্লাহর রহমতে প্রাণে বেঁচে যাই।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ