আজ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে শত বছরের প্রথা ভেঙে জানাজার পর দাফন

নিজস্ব প্রতিবেদক

 

শত বছরের অচলায়তন প্রথা ভাঙাটা সহজ কাজ নয়। এর বাইরে ধর্মীয় ভাবাবেগতো রয়েছেই। দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর মানুষের চাওয়া কতো কম ছিলো। এরা স্বাচ্ছন্দ চায়নি, কাড়ি কাড়ি টাকাও কেবল মৃত্যুর পরে যেনো ধর্মীয় রীতি অনুসারে জানাজা আর দাফনটা হয়। জোটে একটা কবর।
যতোই পাপিষ্ঠ হোক, কেউ মারা যাওয়ার পরে লাশ গোপনে রাতের আধারে মাটিতে পুঁতে ফেলা, নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া ইসলামও সমর্থন করেনা।
আর এটাও শতভাগ সত্য, আমাদের মতো ধর্মভীরু দেশের মেয়েরা স্ব-ইচ্ছায় কেউ এ পেশায় আসেনা। প্রতিটি মেয়ের যৌনপল্লীতে আসার পেছনের গল্পটা বড়ই নির্মম, কষ্টের। নারীদের নিরাপত্তা আর সামাজিক বৈষম্য দূরীকরণে রাষ্ট্র যেখানে ব্যর্থ সেখানে তাদেরই একটি কবর-জানাজা জুটবেনা এটা হতে পারে না।
সেই ছোট্ট চাওয়াটাই এতোদিন পূরণ হয়নি। থানার কত ওসি বদল হয়েছে, জনপ্রতিনিধি বদল হয়েছে। কিন্তু দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রায় ১,২০০ যৌনকর্মীর সেই ছোট্ট চাওয়া পূরণ করতে এগিয়ে আসেনি কেউ।

গোয়ালন্দ থানার ওসি আশিকুর রহমান বছরের পর বছর ধরে চলে আসা নিয়ম ভাঙার দু:সাহস দেখালেন। গত ৩ ফেব্রুয়ারী ১ যৌনকর্মীর জানাজা হলো, ধর্মীয় রীতি মেনে দাফনও সর্বশেষ একটি কবর পেয়েছেন। ওসি আশিকুর রহমান সহ ওই এলাকার প্রায় কয়েক শত লোক জানাজায় অংশ গ্রহন করে। জানাজা শেষে দাফন করা হয়।
ওসি আশিকুর রহমান এর আগে ছিলেন ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি। সেখানে তিনি চালু করেছিলেন জনগণের দরবার। সাধারণ মানুষকে কাছে টানতে অফিস চালু করেছিলেন থানার বাইরে। পেয়েছিলেন মানুষের ভালোবাসাও।

আমি বিশ্বাস করতে চাই পুলিশ জনগণের বন্ধু। জনগণের টাকায় বেতন পাওয়া পুলিশ সদস্যরা তাদের উপর মানবিক হবেন। তাদের কাছে ভীতির নাম নয়, নিরাপদ আশ্রয়ের নাম হবেন।
আশিকুর রহমানের সঙ্গে আমার নূন্যতম পরিচয় না থাকলেও এই মানুষটিকে স্যালুট জানাই। আর পুলিশ জনগনের বন্ধু আশিকুর রহমান তার জলন্ত প্রমান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ