আজ ২৪শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ও শৌচাগার দখল করে প্রধান শিক্ষকের বাস

পাথরঘাটা বরগুনা প্রতিনিধি : তাওহিদু ইসলাম :

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার জালিয়াঘাটা এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনটি শ্রেণিকক্ষ ও ছাত্রীদের শৌচাগার দখল করে স্বপরিবারে বসবাস করছেন ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ফেরদৌস।

রোববার বিকেলে সংবাদকর্মীরা সংবাদ সংগ্রহে গেলে তাদেরকে চলে যেতে বলেন। দীর্ঘ ৬ বছর ধরে ওই শ্রেণী কক্ষ দখল করে বসবাস করে আসছেন বলেও জানান তিনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ৩ তলা বিশিষ্ট ওই বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় তলার পশ্চিম পাশের ৩ টি শ্রেণিকক্ষ ও বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের শৌচাগার দখলে নিয়ে পরিবাদের সদস্য স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে দীর্ঘ ৬ বছর ধরে বসবাস করছেন প্রধান শিক্ষক মো. ফেরদৌস।

ওই ৩টি শ্রেণীর কক্ষের বেঞ্চ একত্রিত করে বানিয়েছেন খাট এবং কিছু বেঞ্চ একত্রিত করে রেখেছেন অন্যান্য মালামাল। রান্নার জন্যে বারান্দার এক কোনে চুলা বসিয়ে তার পাশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২৬ মার্চের স্বাধীনতা দিবস ও ১৫ই আগস্টের শোক দিবসের ব্যানার দিয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনী ২ শিক্ষার্থী ও ষষ্ঠ শ্রেণীর ২ শিক্ষার্থী জানান, আমাদের শুরু থেকেই স্যার আমাদের শ্রেণি কক্ষগুলো আটকিয়ে তার স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে থাকছেন। ছাত্রীদের ওয়াসরুমটাও দখলে নিয়েছে। ওই ছাত্রীরা ছেলেদের ওয়াসরুম ব্যাবহার করছেন।

এছাড়া ৩ থেকে ৪ জন ছাত্র-ছাত্রী ছারা তাদের রুমে কেউ ডুকতে পারে না। অনেক ছাত্রী ওই ওয়াসরুমে গেলে তার সামনেই স্যারের খাট রাখা আছে সেখানে থাকেন তাই লজ্জায় ভিতরে যায় না। আমরা কিছু বললে আমাদের মারধর ও ট্রানেসফার সার্টিফিকেট দিয়ে দিবে বলে হুমকি দেয় তাই ভয়েও ক্লু কিছু বলে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক জানান, দীর্ঘদিন ধরেই তিনি শ্রেণী কক্ষগুলো দখল করে বসবাস করছেন। তিনি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করেই এগুলো করেছেন।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ফেরদৌস শ্রেণি কক্ষ দখলের কথা স্বীকার করে সংবাদিকদের ধমক দিয়ে বলেন, আমি সব কিছু ম্যানেজ করেই ৬ বছর ধরে থাকছি।

আপনারা নিউজ করে যা করার করেন, দেখি আমার কি হয়। বঙ্গবন্ধুর ছবি ও ব্যানারের বেড়া দিয়ে রান্না করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে ভিতরে গিয়ে সেগুলো সরিয়ে ফেলেন। যার ভিডিও চিত্র সাংবাদিকদের মুঠোফোনে ধারণ করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সে বঙ্গবন্ধুর ছবি ছিরে সেগুলো দিয়ে বেড়া দিয়েছে এটা সে বড় অন্যায় করেছে। আমরা বিষয়টি উপজেলা আওয়ামী লীগকে জানাবো। সে অনেক বছর ধরেই শ্রেনি কক্ষ দখল করে এখানে পরিবার নিয়ে থাকেন।

এ বিষয়ে বরগুনা জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে (ভারপ্রাপ্ত) শাহাদাৎ হোসেন বলেন, আমি জানি উনি বাসা নিয়ে থাকেন। উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বলেছি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখতে।

পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মাদ আল মুজাহিদ জানান, বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের শ্রেণী কক্ষ দখল করে পরিবার নিয়ে থাকার কোন সুযোগ নেই। এ বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত ছিলাম না। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ডেকে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ