আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২৪ ইং

সাগরকন্যা কুয়াকাটার, বালু ভাস্কর্য প্রদর্শনীর উদ্বোধন করলেন ডিআইজি

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ,কুয়াকাটা- কলাপাড়া   (পটুয়াখালী)প্রতিনিধি :

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবসে কুয়াকাটা সৈকতে বালু ভাস্কর্য প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ পুলিশের বরিশাল জোনের ডিআইজি মোঃ শফিকুল ইসলাম,পিপিএম। ১৭ মার্চ  বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টায় এ বালু ভাস্কর্য প্রদর্শনীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। পরে অতিথিদের নিয়ে বালু ভাস্কর্যটি পরিদর্শন করেন। এরপর পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ,পিপিএম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে ৭ মার্চের ভাষন শুনতে পরতো না বাঙ্গালীরা। এই দেশ স্বাধীন হতোনা। বাংলাদেশের জনগন পরাধীনতার শৃঙ্খলে বন্দী থাকতো। পুলিশের উদ্দেশ্য করে ডিআইজি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে দেশ সেবায় ব্রত হয়ে কাজ করতে হবে পুলিশের। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলমগীর ও সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ভিপি আবদুল মান্নান, পটুয়াখালী পৌর মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ, পটুয়াখালী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম সরোয়ার, কলাপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম রাকিবুল আহসান, কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু হাসনাত মোঃ শহীদুল হক, কুয়াকাটা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আঃ বারেক মোল্লা, কুয়াকাটা পৌর মেয়র মোঃ আনোয়ার হাওলাদার, কুয়াকাটা প্রেসক্লাব সভাপতি নাসির উদ্দিন বিপ্লবসহ মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিক ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সৈকতে জিরো পয়েন্টের কোলঘেঁষে ৪০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৮ ফুট প্রশস্ত এ ভাস্কর্যে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বাহান্নর’র ভাষা আন্দোলন,ছেষট্রি’র ৬ দফা, উনসত্তর’র গণআন্দোলন ও একাত্তর’র মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। পটুয়াখালী জেলা পুলিশের উদ্দ্যোগে নির্মিত এ ভাস্কর্যটি উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে নতুন প্রজন্ম ও পর্যটকদের ইতিহাস সম্পর্কে জানতে উৎসাহীত করবে বলে পুলিশের দাবি। ভাস্কর্যটি আগামী ২৬ মার্চ পর্যন্ত প্রদর্শনের জন্য রাখা হবে। এ তথ্য জানিয়েছেন পটুয়াখালী জেলা পুলিশ। উদ্বোধনী আলোচনা অনুষ্ঠানের পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ