আজ ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

বরিশাল বিভাগে ১০৫৭ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে

 

খান ইমরান , বরিশাল প্রতিনিধি 

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বরিশাল বিভাগে ১ হাজার ৫৭ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।যার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ২৮১ জন হোম কোয়ারেন্টিনে আনা হয়েছে। যা আগের ২৪ ঘণ্টার থে‌কে কিছুটা কম। আগের ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টিনে ৩৬২ জনকে আনা হয়েছিল।

শনিবার (১৯ মার্চ) বেলা ১২ টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস এ তথ্য জানিয়েছেন। বিভাগের ছয় জেলার হিসাব অনুযায়ী, বরিশালে নতুন ২২ জনসহ ১৭৯ জন, পটুয়াখালীতে নতুন ১০২ জনসহ ১৭৯ জন, ভোলায় নতুন ২১ জনসহ ২০১ জন, পিরোজপুরে নতুন ৬৪ জনসহ ১৮৪ জন, বরগুনায় নতুন ৪১ জনসহ ১৮৬ জন ও ঝালকাঠিতে নতুন ৩০ জনসহ ১২১ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এছাড়া বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকায় নতুন ১ জনসহ ৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

বাসুদেব কুমার জানান, কোয়ারেন্টিনে থাকা ১০৫৭ জনের অধিকাংশই প্রবাসী। এছাড়া বরগুনা জেলায় ১ জন ও বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একজন রোগীকে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন র‌য়ে‌ছেন এবং আ‌গের ১ জন‌কে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। তবে বরিশাল বিভাগে এখন পর্যন্ত কারো করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

এদিকে বিভাগে গত ১০ মার্চ থে‌কে এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন শেষ করেছেন ৬৬ জন এবং গত ২৪ ঘন্টায় শেষ ক‌রে‌ঝেন ২৭ জন। যারমধ্যে বরিশালে ১৫ জন, পটুয়াখালীতে ২০জন, পিরোজপুরে ৫জন, বরগুনায় ১৭জন ও ঝালকাঠিতে ৯জন রয়েছে। স্বাস্থ্য পরিচালক বলেন, কোয়ারেন্টিনে থাকা লোকজনদের পর্যবেক্ষণ করছেন স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্যকর্মী। পাশাপাশি এদের সবাইকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখার কাজে জেলা-উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন সহায়তা করছে। আমরা ইউনিয়ন থেকে জেলা পর্যায়ে আমাদের সার্সিং কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। আর সেবক-সেবিকা, চিকিৎকসহ সংশ্লিষ্টদের নিরাপত্তায় পারসোনাল প্রটেকশন সরঞ্জাম এরইমধ্যে উপজেলা পর্যায়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে সংশ্লিষ্টদের শঙ্কার কোনো কারণ নেই।

তিনি আরো জানান, স্বর্দি-কাশি ও জ্বরের রোগীকে দেখার জন্য আলাদা ব্যবস্থা হাসপাতালগুলোতে করা হয়েছে। টিকেট কাউন্টারে গেলেই এ বিষয়ে তথ্য জানাযাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ