আজ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ঝালকাঠিতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলা চেয়ারম্যানের লিফলেট বিতরন

ইমাম হোসেন, ঝালকাঠি প্রতিনিধি

 

বর্তমান বিশ্বে এবং বর্তমান সময়ের আলোচিত বিষয় কোভিড-১৯ ( যা করোনা ভাইরাস নামে পরিচিত ) বা করোনা ভাইরাস। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে বিরজমান এই ভাইরাস প্রতিরোধের জন্য উন্নত দেশের ন্যয় বাংলাদেশেও এর প্রতিরোধে চলছে জনসচেতনতা মূলক প্রচারাভিযান। আর তারই ধারাবাহিকতায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ঝালকাঠিতে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান খান আরিফুর রহমান শহরের বিভিন্ন বিদ্যালয়, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান সহ গুরুত্বপূর্ন স্থানে দাড়িয়ে নিজ হাতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে বিভিন্ন স্তরের মানুষের মাঝে লিফলেট বিতরণ করেন। এ উপলক্ষ্যে ১৪ মার্চ শনিবার সকাল থেকে সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খান আরিফুর রহমান সহ তার উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ করা হয়।
করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণের সময় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোজী আক্তার উপস্থিত ছিলেন।

অপর দিকে বিভিন্ন দেশ থেকে ঝালকাঠিতে আশা এখন পর্যন্ত বিদেশ ফেরত ৫ জন প্রবাসীকে তাদের নিজ ঘরে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এদের মধ্যে তিনজন সৌদি প্রবাসী, একজন ইতালি ও একজন চীন প্রবাসী। তবে এরা কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নয়, তাঁরা সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঝালকাঠি সিভিল সার্জন ডা. শ্যামল কৃষ্ণ হাওলাদার।

কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস সাম্প্রতিক সময়ে এশিয়ার বিভিন্ন অংশ এবং এর বাইরেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। সাধারণ সতর্কতা অবলম্বন করে আপনি এই ভাইরাসটির সংক্রমণ ও বিস্তারের ঝুঁকি কমিয়ে আনতে পারেন বলে মনে করে ইউনিসেফ। এর লক্ষন সমূহ তুলে ধরে ইউনিসেফের দেয়া বার্তা হুবুহু তুলে ধরা হলো। শ্বাসতন্ত্রের অন্যান্য অসুস্থতার মতো এই ভাইরাসের ক্ষেত্রেও সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা এবং জ্বরসহ হালকা লক্ষণ দেখা দিতে পারে । কিছু মানুষের জন্য এই ভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক হতে পারে। এর ফলে নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট এবং অর্গান বিপর্যয়ের মতো ঘটনাও ঘটতে পারে। তবে খুব কম ক্ষেত্রেই এই রোগ মারাত্মক হয়। এই ভাইরাস সংক্রমণের ফলে বয়স্ক ও আগে থেকে অসুস্থ ব্যক্তিদের মারাত্মকভাবে অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

করোনা ভাইরাসসহ অন্যান্য রোগের বিস্তার সীমিত পর্যায়ে রাখতে মেডিক্যাল মাস্ক সাহায্য করে। তবে এটার ব্যবহারই এককভাবে সংক্রমণ হ্রাস করতে যথেষ্ঠ নয়। নিয়মিত হাত ধোয়া এবং সম্ভাব্য সংক্রমিত ব্যক্তির সাথে মেলামেশা না করা এই ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমানোর সর্বোত্তম উপায়।
শিশুরা কি ঝুঁকিতে? যে কোন বয়সের মানুষই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। তবে একটি বিষয় লক্ষ্যণীয় যে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত শিশুদের ক্ষেত্রে এখনও পর্যন্ত কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। প্রধানত: আগে থেকে অসুস্থ বয়স্ক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে এই ভাইরাস মারাত্মক হতে পারে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ