আজ ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

মা ইলিশ রক্ষায় ২২ দিন অবরোধ জারি

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ কুয়াকাটা,কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :
কুয়াকাটা, আলিপুর, মহিপুর মৎস্য বন্দর সহ, বাংলাদেশ মা ইলিশ রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।
দেশে ইলিশের উৎপাদন বাড়াতে প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে বন্ধ হচ্ছে ইলিশ ধরা। আগামী ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, কেনা-বেচা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
মঙ্গলবার মধ্যরাত ১২.১ মিনিট থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর শুরু হবে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় প্রতিবছরের মতো এ বছরও ইলিশের প্রজনন নির্বিঘ্ন করতে এ পদক্ষেপ নিয়েছে।
মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান-২০২০ (১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর) উপলক্ষে সোমবার (১২ অক্টোবর) সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উৎপাদন বাড়াতে ২২ দিন ইলিশ ধরা-বিক্রি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী রেজাউল করিম।
রেজাউল করিম বলেন, “বিশ্বের মোট উৎপাদিত ইলিশের ৮০ শতাংশের বেশি বাংলাদেশের নদ-নদী মোহনা ও সাগর থেকে আহরিত হয়।
অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার অনেক সুন্দর ও বড় আকারের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের সময়োপযোগী এবং বাস্তবমুখী কার্যক্রমের কারণে। ইলিশ এক সময় দুষ্প্রাপ্য হয়ে যাচ্ছিল, এখন তা মানুষের হাতের নাগালে চলে এসেছে। বাংলাদেশে অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে এবার ইলিশ উৎপাদিত হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ২২ দিন মা ইলিশ ধরা সস্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করেছি। যেসব এলাকায় মা ইলিশ বা জাটকা ধরার আশঙ্কা আছে, সেসব এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। ”
নিষেধাজ্ঞা কার্যকর ও এ সময়ে জেলেদের সহায়তা দিতে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ২২ দিন গভীর সমুদ্রে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও সমুদ্র মোহনায় কোস্ট গার্ডের টহল জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া মসজিদে জুমার নামাজের খুতবায় ইমামেরা মা ইলিশ রক্ষার গুরুত্ব ও আইন ভঙ্গের শাস্তির বিষয়ে আলোচনা করবেন।  আইন অমান্যকারীকে এক থেকে সর্বোচ্চ ২ বছরের জেল অথবা সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ড হতে পারে। সরকারের জেলেদের সহযোগিতা নিয়ে কথা বলেন, কুয়াকাটার এক জেলে, তিনি সরকারসহ মৎস্য প্রাণিসম্পদ বিভাগের উচ্চতম কর্মকর্তাদের কাছে অনুরোধ জানান, যে মহামারী করোনাভাইরাস কাটিয়ে উঠতে এখনো পারেনি, তারমধ্যে ছিল হঠাৎ ৬৫ দিনের অবরোধ. তখন আমরা আরও বিপর্যয় হয়ে পড়েছি, যখন সাগরে কিছু মাছের দেখা গেছে তখনই আবার সরকারের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। আমরা সরকারের নিষেধাজ্ঞা মেনে সাগরের ইলিশ মাছ শিকার করার সকল সরঞ্জাম নিয়ে কুল প্রান্তে চলে এসেছি। আপনারা আমাদের সহযোগিতা করেন সেটা আমরা জানি, কিন্তু আমার অনুরোধ জেলেদের যে সহযোগিতা আসে সেই সহযোগিতা জানো সত্তিকারের জেলেরাই পেয়ে থাকে।  ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের উৎপাদন বৃদ্বিতে মৎস্য বিভাগের এমন সিদ্বান্তে খুশী জেলেরা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ