আজ ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

মনে মনে মেঘ

    আনিসুর রহমান দিপু:   খুব দূরে যেতে নেই! হয়তো ‘মেঘ’ আজও জানে না যতো দূরে থাকে মনের ততো কাছে ভীড়ে! মেঘ আর আমি সেই দূরত্বে আছি, কাছাকাছি তবুও

রাষ্ট্রীয়সহায়তা বা ত্রাণভিক্ষা চাই না গণমাধ্যমকর্মীর পাশে দাঁড়ান হে অভিভাবকগণ

আফজাল বারীঃ   গণমাধ্যমের প্রতি এখনো কেন যে সরকার প্রধানের মন টলে না । আল্লাহ তাদের দিলবরফ গলিয়ে দাও। ৬ সহকর্মী করোনায় আক্রান্ত। লাখো সহকর্মীর মধ্যে অন্যদের আভ্যন্তরিন অবস্থা অজানা।

কঠিন জ্বর ২/৩দিন ধরে ঘুম নেই আবোলতাবোলে চলি

নজরুল ইসলাম তোফা:  আমি শুয়ে শুয়ে ভাবি মাথাটা শূন্য কি লিখব, কি লিখব ভাই আমি? দিন কাটে তো রাত কাটে না কি যে করি কি ভাবি। ভাবনায় মগজে চলে ঝড়,

মানবিকতা কোথায়? বিত্তশালীদের আচরণ রহস্যজনক

    আকমল হোসেনঃ   মানুষ এখন ঘর বন্দী, কর্মহীন। যে পরিবারটি একদিন কাজ না করলে, পরেরদিন সংসার চলেনা। সে পনের দিন ধরে আটকে আছে ঘরে। এভাবে বেঁচে থাকা সম্ভব

করোনা আতঙ্ক ব্যাংকার পরিবারে

  এডভোকেট জহির উদ্দিন লিমন   গত ২২ মার্চ থেকে পুরোপুরি হোম কোয়ারান্টাইনে আছি।বাসার নীচেও নামি নাই । প্রতিদিন এক অজানা আশংকায় থাকি। আমার সহধর্মিণী আনুভা আরীবার আম্মু একটি প্রাইভেট

করোনায় সংবাদকর্মীর আবেগের মৃত্যু

  লিটন মাহমুদঃ   দেশের এমন দূর্যোগে গণমাধ্যমের একজন সাধারণ কর্মি হিসেবে প্রতিনিয়ত ছোটাছুটি করতে হয় আমাকে। একি অবস্থা প্রতিটি হাউজে কাজ করা সংবাদ কর্মিদেরও। জাতীর এই দুঃসময়ে সবাইকে নিরাপদ

করোনার ক্রান্তিকালে খুঁজে ফিরি

হায়দার আলী   আওয়ামী সরকারের তিন মেয়াদ চলে যাচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের অনেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক ছিল এবং এখনো আছে। অনেকেই ফোন দিয়ে খোঁজ খবরও নেন। পেশাগত কাজে উনাদের

ম্যাজিষ্ট্রেট মেয়ে

আব্দুল বারীঃ আমার সিনিয়র ফ্রেন্ড একসময় ঢাকার ডিসি অফিসের স্ট্যানোগ্রাফার ছিলেন। ম্যাজিষ্ট্রেট হওয়ার পর কিভাবে তাঁর আদর্শে গড়া মেয়ে দাম্ভিক হয়ে গেল সেই গল্প শুনালেন একদিন। সারা জীবন জেলা প্রশাসনে

কেন অসহায়দের লাঞ্ছিত করে ?

  নজরুল ইসলাম তোফা   ফেসবুকে ইউটিউবে এবং বহু গণমাধ্যমের বেশ কিছু জায়গায়তেই দুঃখ জনক হলেও সত্য অসহায় মানুষকে আঘাত বা লাঞ্ছিত করার ছবি ও ভিডিও প্রকাশ হয়েছে। সেখানে মুলত

মানুষ মানুষের শত্রু হয় জ্ঞানীর কর্ম শত্রুতা নয়

নজরুল ইসলাম তোফা মানুষ মানুষেরই শত্রু হয়। এই মানুষের ভেতরে যে শত্রুতা জন্ম হয়, তা চিহ্নিত করাটা খুুবই কঠিন। পৃৃথিবীতে ‘কে- শত্রু’ আর ‘কে- মিত্র’ তাকে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে উপলব্ধি করা