আজ ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুলাই, ২০২১ ইং

মানব রথে যশোমাধব বিগ্রহ স্থানান্তর হলো মন্দিরের ভিতর অন্য কক্ষে

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক :

 

ঐতিহাসিক ধামরাই শ্রীশ্রী যশোমাধব দেবের রথযাত্রা আয়োজন সীমিত পরিসরে মন্দিরের ভেতরেই,অনুষ্ঠিত হয় শুধু পূজা অর্চনা।এবার করোনার কারনে রথ নড়লো না। মন্দিরে এক কক্ষ থেকে আরেক কক্ষে শ্রীশ্রী যশোমাধব বিগ্রহ ও অন্যান্য বিগ্রহগুলো মানব-রথে চড়ে নাট-মন্দির প্রদক্ষিণ করে মাধব মন্দির আঙ্গিনায় আরেক মন্দির কক্ষে শ্রীশ্রী যশোমাধব বিগ্রহ ও অন্যান্য বিগ্রহ স্থাপন করে রথোৎসবের ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকা রক্ষা করা হলো।
আবার ১লা জুলাই বুধবার উল্টো রথোৎসবের দিন মানব রথে চড়ে মন্দিরের এক কক্ষ থেকে পূর্বের মূল মন্দিরে বিগ্রহ গুলো স্থানান্তর করা হবে
রথোৎসব উদযাপন কমিটির ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা উপলক্ষে এক আলেঅচনা সভা শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথোৎসব উদযাপন কমিটির সহ-সভাপতি ডাঃ অজিত কুমার বসাকের সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) শ্রী দীপক চন্দ্র সাহা।
সভা সঞ্চালনা করেন শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথোৎসব উদযাপন কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নন্দ গোপাল সেন।বক্তব্য রাখেন শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথোৎসব উদযাপন কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট বিমল ঘোষ, সহ-সভাপতি অসিত গোস্বামী ও উক্ত মন্দির ও রথোৎসব উদযাপন কমিটির প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক দীপক চন্দ্র পাল প্রমুখ।

উপমহাদেশ খ্যাত ৪০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী ধামরাইয়ের শ্রীশ্রী যশোমাধবের বাৎসরিক রথযাত্রা উৎসব ২৩শে জুন মঙ্গলবার বিকেলে মন্দিরের ভেতরে অনুষ্ঠিত হয় শুধু মাত্র পূজা অর্চনার মধ্য দিয়ে। মানব রথে চড়ে মন্দিরের ভিতর প্রদক্ষিণ করে পাশের মন্দিরে স্থানান্তর করা হয় শ্রীশ্রী যশোমাধব দেবের বিগ্রহ সহ অন্যান্য দেব বিগ্রহ।
মহামারী করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ এড়াতে ভক্তবৃন্দের স্বাস্থ্য সুরক্ষার ও মানব কল্যাণ বিবেচনা করে এবার ধামরাইয়ের রথ উৎসব স্হগিত ঘোষণা করা হয়েছে। চার শত বছরে দিতীয়বার মাধব তার শ্বশুর বাড়ি যাত্রা বাড়ি অঙ্গনে যেতে পারেনি করোনার প্রাদুর্ভাব এর কারনে।

করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব এর কারণে সরকার জন সমাগম নিষিদ্ধ করায় রথযাত্রা সীমিত পরিসরে অনু্ষ্ঠিত হয় মন্দিরের ভেতরেই,চলছে শুধু পূজা অর্চনা,বাহিরে কোনো অনুষ্ঠানিকতা নেই। মাধব মন্দির ও রথোৎসব উদযাপন দ কমিটির নির্দেশে মেলাঙ্গনে এবার বসবে না কোনো ষ্টল,
এর আগে সকালে রথের সামনে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন পুরোহিত উজ্জল গাঙ্গুলী।
প্রতি বছর নিছিদ্র নিরাপত্তায় হাজারো আইন শৃংখলাবাহিনীর পাহাড়ায় অনুষ্ঠিত হতো রখ টানা উৎসব।এবার চার জন পুলিশ উপস্থিত ছিলেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ ‘সালের ৯ই এপ্রিল’ সকাল ১০টা,ইতিহাসের ধারক ও এদেশের গৌরবময় ঐতিহাসিক সনাতনধর্মী হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসবের মূল্যবান কারুকাজ সমৃদ্ধ কাঠের ‘রথ’ টি বর্বর পাক হানাদার বাহিনী ও এদেশের দেশীয় দোসররা মিলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। তখন সারা দেশে জুড়ে চলছিল হত্যাযজ্ঞ,নির্যাতন,লুটপাট, পাশাপাশি চলছিল মুক্তিযুদ্ধ। সে সময়ে রথ হয়নি। এবার করোনার কারনে দেশের বৃহৎ রথ উৎসব পালিত হচ্ছে না।
তবে সীমিত আকারে মন্দিরের ভেতরেই কমিটির কয়েক জনে শুধু ধর্মীয় পূজা অর্চনা কররেন ।মাধব বিগ্রহ সহ সকল বিগ্রহ কথিত মাধবের শ্বশুরালয় যাত্রাবাড়ি মন্দিরেও নেওয়া হয়নি জানিয়েছে মন্দির পরিচালনা কমিটির সহ সভাপতি ডাঃ অজিত কুমার বসাক ও কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নন্দ গোপাল সেন।
জানা গেছে, ধামরাইয়ে প্রতি বছরই আষাঢ়ের শুক্লা পক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে এই রথযাত্রা উৎসব ও মাসব্যাপী মেলা শুরু হয়। এ উৎসবে প্রতি বছরই দেশ-বিদেশের লাখো লাখো মানুষের মিলন মেলায় পরিণত হয়।
শ্রীশ্রী যশোমাধব মন্দির পরিচালনা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নন্দ গোপাল সেন বলেন- করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব এর কারণে ধামরাইয়ের রথযাত্রা উৎসব স্হগিত ঘোষণা করা হয়েছে। অল্প কয়েকজনে স্বাস্হ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মাধব মন্দিরের ভেতরেই মানব- রথে করে মূল মন্দির থেকে বিগ্রহ গুলো মাধব আঙ্গিনার আরেক মন্দির কক্ষে স্থানান্তর করা সহ ধর্মীয় পূজা অর্চনা করা হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ