আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

নিজগুণে দেশের ‘শীর্ষ’ আলোচনায় বিজয়নগরের ইউএনও মেহের নিগার

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

 

নিজ গুনে ক্রমেই আলোকিত হচ্ছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার ইউএনও। সবাই যখন করোনা ভাইরাসের কারনে হোম কোয়ারেন্টাইন নিয়ে ব্যস্ত। ঠিক তখনই সারে ৬ মাসের অন্তসত্তা হওয়া সত্ত্বেও নিজের অনাগত সন্তানের কথা চিন্তা না করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে নজির স্থাপন করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহের নিগার। তিনি নিজের বেতনের টাকা দিয়ে দরিদ্র শিক্ষার্থী, , করোনা আক্রান্ত রোগী, ভিক্ষুক ও হত দরিদ্র মানুষের জন্য অর্থ সহায়তা দিয়েছেন। উপজেলার প্রায় প্রত্যকটি অঞ্চলকেই নিজগুনে আলোকিত করছেন এই নারী ইউএনও।

২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর থেকে বিজয়নগরের ইউএনও হিসেবে কাজ শুরু করেন মেহের নিগার।তিনি সাভারে বসবাসরত বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ খান এর মেয়ে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ থেকে কৃতিত্বের সাথে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রী লাভ করেছেন।

জানা যায়, যোগদানের পর থেকে সূর্য উদয় থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ইউএনও ছুটছেন উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। ব্যবসায়ীরা যখন ক্রেতা সাধারণকে জিম্মি করে দ্রব্য মূলের দাম বাড়াচ্ছেন, ঠিক তখনি সাধারন মানুষের প্রতিনিধি হয়ে ছুটে গিয়েছেন অসাধু ব্যবসায়ীদের সতর্ক করতে। পরিচালনা করেছেন মোবাইল কোর্ট।প্রায় ৩০টি বাল্যবিয়ে আটকে দিয়ে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের দেখিয়েছেন আলোর পথ। শুধু তাই নয় বয়স্ক ও বিধবা ভাতা নিয়েও রাখছেন কঠোর নজরদারি। বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতন রোধে ইউনিয়নের ওয়ার্ড গুলোতে করেছেন সতেচনমূলক উঠান বৈঠক।

উপজেলার সাধারন মানুষ বলছে ইউএনওর কাজে সন্তষ্ট তারা, সরকারী সহায়তার পাশাপাশি ব্যাক্তিগত উদ্দ্যেগে অসহায় হত দরিদ্রদের মাঝে যে আর্থিক ও খাদ্য সহায়তা করেছেন এতে খুশি অসহায় ও হত দরিদ্র মানুষ গুলো, তারা বলেন দেশের স্বার্থে মানুষের স্বার্থে আইন মেনে চলা আমাদের সবার দ্বায়িত্ব, ইউএনও কাছে গিয়ে আমাদের সমস্যার কথা বলতে পারছি, সমস্যা সমাধান হচ্ছে এটাই বড় কথা।

অদৃশ্য শক্তি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সৃষ্ট সংকটে উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের কেউ যাতে খাদ্যের অভাবে কষ্ট না পায় অথবা কোনো অসচেতনতার ফলে যাতে করোনা সংক্রমণ না ছড়ায় সেজন্য কাজ করছেন রাত দিন। মুখে মাস্ক-হাতে গ্লাভস আর কাঁধে দায়িত্ব নিয়ে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরিতে ঝুঁকি নিয়েই মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে তাদের করোনা প্রতিরোধ ও করণীয় বিষয়ে সচেতন করছেন।

সরকারি খাদ্য সহায়তা যেন সঠিক মানুষের কাছে গিয়ে পৌঁছে সেজন্য তিনি সততা ও স্বচ্ছতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন।

এছাড়াও উপজেলার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রয়েছে তার সজাগ দৃষ্টি। এই সংকটকালে আইনশৃঙ্খলার যাতে অবনতি না হয় সেজন্য সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে যোগযোগ করে নানা দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন। প্রতিদিনই সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন, বাজারমূল্য নিয়ন্ত্রণ রাখতে এবং শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনী ও পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে হাট-বাজারসহ বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার একমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টার বিজয়নগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তার সরাসরি তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে।এমনকি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাসপাতালের সকল রোগীদের জন্য ৩ বেলা খাবার পাঠানো সহ সকল কর্ম সম্পাদন করা হচ্ছে ইউএনও র সরাসরি তত্ত্বাবধানে।রাখছেন উপজেলার প্রত্যেকটি করোনা আক্রান্ত রোগীর সার্বক্ষনিক খবরাখবর।

মেহের নিগার বলেন, করোনার সংকটময় মূহুর্তে যদিও আমি শারীরিকভাবে কিছুটা অসুস্থ। মাতৃত্বকালীন জটিলতার কারণে আমার চিকিৎসক আমাকে বলেছেন যেন বেশি চলাফেরা না করি এবং অতিরিক্ত মানসিক চাপ না নেই। আমি ইচ্ছা করলেই হয়তো ছুটি নিতে পারতাম। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে দেশের এই সংকটকালে কাজ করা প্রয়োজন।

তাই বীরমুক্তিযোদ্ধা বাবার পথ ধরে এবং প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা হিসেবে আমি এই যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছি। যদি আমি করোনায় আক্রান্ত হই কিংবা মারা যাই তারপরও আমি একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়ে দেশের এমন পরিস্থিতিতে পিছিয়ে আসতে পারি না। আমার ওপর সরকার যে দায়িত্ব দিয়েছে শত শারীরিক প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করেই আমি তা পালন করব। আমার একটি ৬ বছরের সন্তান রয়েছে তাকে আমি আদর করতে পারিনা। আমি তার সঙ্গে বসবাসও করি না। আমি দূর থেকে তাকে দেখি। সবাইকে সুরক্ষা দেওয়া আমার দায়িত্ব। এই দায়িত্ব আমি জীবনের শেষ মৃহূর্ত পর্যন্ত পালন করে যেতে চাই।

তিনি আরো বলেন,
কর্মক্ষেত্রে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঠিক দিকনির্দেশনার কারণে নিজ দায়িত্বের পাশাপাশি মানবিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে ভূমিকা রাখতে পারছি। এই উপজেলায় যোগদানের পর থেকে চেষ্টা করছি মানুষের জন্য কিছু করতে। আমাদের কর্ম দিয়ে মানুষের উপকার করতে পারি এটাই আমার সাথর্কতা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ