আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

রায়পুর- রামগঞ্জ সড়ক ৫ মাসেও শুরু হয়নি সংস্কার কার্যক্রম, বর্ষায়ও ভোগান্তিতে জনগন

 

 

মোঃ হৃদয় হোসেন লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:

 

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার রায়পুর-পানপাড়া একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। রায়পুর -রামগঞ্জ সড়ক ৫ মাসেও শুরু হয়নি সংস্কার কার্যক্রম, গাছ কাটা নিয়ে ঠেলাঠেলিতে বর্ষায়ও ভোগান্তিতে লাখ লাখ জনগন!

গত এক যুগেও সংস্কার হয়নি সেই সড়ক জুড়ে গর্ত আর খানাখন্দ। স্থানে স্থানে উঠে গেছে মাটিও। বড় বড় গর্তে জমে আছে কাদা পানি। দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় লক্ষ্মীপুরের রায়পুর-পানপাড়া সড়কের এমন দশা হয়েছে।

বেহাল এই সড়কে প্রায় দুই বছর ধরে ভারী যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। কোথাও কোথাও সড়কের অবস্থা এতটাই বেহাল যে হেঁটেও চলাচল করা যায় না। ফলে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন দুই উপজেলার অন্তত ৩০ হাজার মানুষ।

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর-রামগঞ্জ উপজেলার মধ্যে যোগাযোগের সহজ মাধ্যম ওই সড়ক। দুই উপজেলার বিভিন্ন পণ্য দ্রুত শহরে পৌঁছানো সম্ভব হতো এ সড়ক দিয়ে। কিন্তু দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় এই সড়কে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্তমানে ওই সড়কের যানবাহনগুলোকে প্রায় ২৫ কি.মি. ঘুরে রায়পুর-রামগঞ্জ উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) আওতাধীন এই সড়ক এক সময় কাঁচা ছিল। আট বছর আগে এলজিইডি বিভাগ সড়কটির ছয় কিলোমিটার সংস্কার করে। সংস্কারের ৬মাস পরই সড়কের বিভিন্ন স্থানে পিচ ঢালাই উঠে গর্ত হয়ে যায়। সব শেষ গত দুই বছর আগে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে সড়কের বিভিন্ন স্থান ভেঙে যায়। সৃষ্টি হয় ছোটবড় গর্তের। বিশেষ করে সাত কিলোমিটার সড়কের তিন কিলোমিটার একেবারেই ভেঙে গেছে।

সড়কটিতে চলাচল করা সিএনজি চালক আনোয়ার বলেন, সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গিয়ে বড় বড় গর্ত হয়েছে। ওই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে লোকজন দুর্ঘটনার শিকারও হচ্ছেন। আর সামান্য বৃষ্টি হলে সিএনজি দূরের কথা পাঁয়ে হেঁটেও যাওয়া যায় না। বর্তমান এমপির বাড়িও এই সড়কে। এরপরও সড়কটি সংস্কার হচ্ছে না।

এই পথ দিয়ে নিয়মিত চলাচল করা যাত্রী এলএম মডেল পাইলট স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বলেন, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে সংস্কার না হওয়ায় লক্ষ্মীপুরের রায়পুর-পানপাড়া সড়ক যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের ৯০ ভাগ স্থানে কাপেটিং উঠে বিভিন্ন আকৃতির গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়কে যান চলাচলে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছে রায়পুর ও রামগঞ্জ উপজেলার হাজারও মানুষ। রায়পুর উপজেলার সঙ্গে রামগঞ্জ উপজেলার যোগাযোগের প্রধান সড়কটির অধিকাংশ স্থানের কার্পেটিংসহ ইট-খোয়া উঠে গেছে। রায়পুর উপজেলা হয়ে রামগঞ্জ উপজেলায় যাতায়াতকারী ছোট-বড় গাড়ির পাশাপাশি পণ্যবাহী গাড়িগুলোকে পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। সড়কের বেহাল দশার কারণে অনেক সময় যাত্রী ও পণ্যবাহী গাড়ি বিকল হয়ে পড়ে।

কেরোয়া ইউনিয়নের একজন জনপ্রতিনিধি সামসুল আলম সামু জানান, এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন রায়পুর উপজেলাসহ পাশ্ববর্তী চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জের হাজারো মানুষ রামগঞ্জ উপজেলায় যাতায়াত করে। অথচ দীর্ঘ ১০ বছর ধরে রায়পুর-পানপাড়া-রামগঞ্জ সড়কের পানপাড়া অংশ পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার সংস্কার না হওয়ায় সড়কটি পরিণত হয়েছে মরণ ফাঁদে। এখন এ সড়ক দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত ছোট-বড় দুর্ঘটনা শিকার হতে হয় তাদের। এ ছাড়া সড়কটির পাশে রায়পুর সরকারি ডিগ্রি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরাও যাতায়াতে পড়তে হয় দুর্ভোগে।

ঢাকা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তানভীর হায়দার চৌধুরী রিংকু বলেন, এ পথে গাড়ি চালাতে হিমশিম খেতে হয় ঢাকা থেকে বাইপাস হয়ে রায়পুর আসতে ট্রাক, পিআকপের। সড়কে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় প্রতিনিয়ত নষ্ট হচ্ছে যানবাহন। ফলে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন গাড়ির মালিকরা।

এদিকে সড়কটির সংস্কার কাজের টেন্ডারের ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা। এ অবস্থায় সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দ্রুত সময়ের মধ্যে সড়কটি সংস্কার কাজ শুরু করতে কার্যকর উদ্যোগ ভেস্তে গিয়েছে গাছ কাটা নিয়ে ঠেলাঠেলিতে।

রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান কামাল বলেন, এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন দুই উপজেলার বিপুল সংখ্যক মানুষকে জেলা শহরে চলাচল করতে হয়। বর্তমানে সড়কের এমন অবস্থা যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচল করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। তাই সড়ক দিয়ে ভারী সব যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। মানুষের দুর্ভোগের বিষয়টি এমপিসহ বিভিন্ন জায়গায় জানানোর পরও কাজ এডিসি জেনারেল ও বন বিভাগের মধ্যে গাছ কাটা নিয়ে আটকে আছে। ফলে এই বর্ষায়ও সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

মেসার্স তমা কনস্ট্রাকশন এর রায়পুর অংশে দায়িত্বে থাকা তত্ত্বাবধায়ক আবু তাহের বলেন, গাছ কাটার কারনে কাজ শুরুই করতে পারিনি আমরা। গাইড ওয়ালের জন্য পিলার নির্মাণ চলছে। কিন্তুু গাছ কেটে না দিলে রাস্তা সম্প্রসারণ ছাড়া কাজ শুরু করা সম্ভব না। আগামী জুনের আগেই কাজ শেষ হবে তিনি জানান। প্রায় ৭ কোটি ব্যায়ে কাজটি পেয়েছি আমরা।

রায়পুর উপজেলা প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ বলেন, সড়কটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বিগত সাংসদ নোমান এমপি জরুরি ভিত্তিতে সড়কটি মেরামতের জন্য আর.সি.আই.পি. প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করে দরপত্রও আহ্বান করার ব্যবস্থা করেছিলেন। আন্তর্জাতিক ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স তমা এন্টারপ্রাইজ ওয়ার্ক অর্ডার পায়। ডিসেম্বরে কাজ শুরু হলেও বন বিভাগের গাছ কাটা নিয়ে ৫ মাসেও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজই শুরু করতে পারেনি। আনুমানিক ৬ কিঃমিঃ সড়কে ৭ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। তবে রাস্তাটি এই অঞ্চলের জন্য নতুন প্রজেক্টের আওতাধীন তাই আগে গাছ কাটার টেন্ডার শেষ করে তারপরই রাস্তার কাজ শুরু করতে হবে।

রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী বলেন, সড়কটি রামগঞ্জ – রায়পুর সড়কে চলাচলের একমাত্র সড়ক। দীর্ঘদিন সড়কটির সংস্কার হয়নি। গত ডিসেম্বরে উপজেলা চেয়ারম্যান সহ সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু হলেও রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য গাছ কাটা দ্রুত হয়ে পড়ছে প্রশাসনিক জটিলতা ও করোনার কারনে কাজটি সময় লাগছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ