আজ ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

দোহারে প্রেম দ্বন্দে ভয়াবহ সঙ্ঘর্ষঃ নিহত ১

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

দোহারে প্রেম নিয়ে সঙ্ঘর্ষের জেরে এক যুবক মারা গিয়েছে। নিহতের নাম মোঃ রাসেল। তিনি আঃ রশিদ (সাবেক মেম্বার) এর পুত্র । নিহতের খবর ছড়িয়ে পড়লে পড়লে উত্তেজিত জনতা ৮/১০ টি মোটর বাইক ভাংচুর করে ও ৪টি বাইকে আগুন ধরিয়ে দেয়।
ঘটনার সরেজমিনে জানা যায়, দোহারের মালিকান্দা এন্ড মেঘুলা কলেজের একাদশ শ্রেণির দুই শিক্ষার্থী – মনির ও সোহান প্রেমে পড়ে যায় রাকা নামে একই কলেজের একই শ্রেণীর এক ছাত্রীর। সোহান ও মনিরের বাড়ী মইতপারায়, খালের এপার আর ওপার। আর রাকার বাড়ী নারিশায়। বিষয়টি নিয়ে তাদের মাঝে প্রথমে দ্বন্দ ও পরে শত্রুতার সৃষ্ট হয়।
বিষয়টি চরম আকার ধারণ করে, মনিরের সাথে রাকার ঘনিষ্ঠতা বৃদ্ধি পেলে ও সোহানের সাথে রাকার দূরত্ব সৃষ্ট হলে। রাকার কাছে সোহান ও মনিরের একে অপরের নামে বানোয়াট কথা বলেছে, এই অভিযোগে তাদের মাঝে শত্রুতা বৃদ্ধি পায়। যারফলে, মনির সোহানের মধ্যকার কথা কাটাকাটি থেকে মনির সোহানকে মারধর করে রবিবার। বিষয়টি ফুলতলা ফাড়ির
সোমবার সকাল ১০টার পরে, সোহানের মারধরের বিষয়ে জানতে ও ঘটনার মীমাংসার জন্য কথা বলতে মইতপাড়া আসে দোহার উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আহমেদ শাকিল, সাইম মোল্লা, আল-আমিনসহ আরো অনেকে।
কিন্ত সোহানের পক্ষ ও মনিরের পক্ষের মধ্যে কথাবার্তা ও তর্কাতর্কির একপর্যায়ে উত্তেজনা থেকে উভয়গ্রুপের মধ্যে কথাকাটি, ধস্তাধস্তি ও সংঘর্ষ হয়। এসময় রাসেল নামে একজন জ্ঞান হারিয়ে পড়ে যান। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। রাসেলকে মাথায় আঘাত করা হয়েছে বলে তার স্বজনেরা অভিযোগ করেন।
স্থানীয়রা এসময় উত্তেজিত হয়ে হামলাকারীদের ধাওয়া দিলে তারা সবাই মটরবাইক ফেলে পালিয়ে যায়। আহত রাসেলকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। মৃত্যুর সংবাদ দ্রুত মইতপাড়া গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত জনতা তাদের ফেলে রাখা মটরসাইকেলগুলোতে আগুন ধরিয়ে দেয়। সংবাদ পেয়ে পুলিশ-র্যা ব ঘটনাস্থলে পৌছে টানা তিনঘন্টার চেষ্টায় সবাইকে ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং তিনজনকে আটক করেন।
সংবাদ পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে দোহার সার্কেল এএসপি জহিরুল ইসলাম,দোহার থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ সাজ্জাদ হোসেন, ওসি (তদন্ত) আরাফাত রহমান, ফুলতলা পুলিশ ফাড়িঁর ইন-চার্জ জাহাঙ্গীর আলম, র্যা ব-১১এর সদস্যসহ মুকসুদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান খান ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে চেষ্টা চালিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনেন। দোহার ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থানে গিয়ে মটরসাইকেলের আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন এবং মটরসাইকেল থানায় নিয়ে আসা হয়।
দোহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডা. ওমর ফারুক জানান, মৃতের শরীরে আঘাতের কোন চিহ্ন নেই। হাতাহাতির ঘটনায় হয়তো স্টোক করে করে মারা যেতে পারে। তবে মাথার পিছনে ফোলা ছিলো, সেখান থেকে কিছুটা রক্ত বের হয়েছে। এখন ময়নাতদন্ত শেষে সঠিক তথ্য পাওয়া যাবে যে সেটি কি আঘাত জনিত নাকি মাটিতে পরে যাওয়ার কারণে হয়েছে।
ঢাকা জেলা ছাত্রলীগ দক্ষিণের সভাপতি গিয়াসউদ্দিন সোহাগ বলেন, আইন সবার জন্য সমান। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হোক। আর এই ঘটনায় কেই যদি ছাত্রলীগকে ব্যবহারের অপচেষ্টা করে, তবে তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ