আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

শিক্ষার্থীদের বাড়ি ভাড়া কমানোর আবেদন করলেন, সাহেব ইমন

 

শান্ত মালো,বিশেষ প্রতিনিধি :

ঢাকার অদূরে আশুলিয়ার নলাম মির্জানগর এলাকায় গ্রামীণ পরিবেশে গড়ে উঠেছে গন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। স্বল্প খরচে পড়াশোনার সুযোগে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা এখানে ভর্তি হয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পর্যাপ্ত ছাত্রাবাস ব্যবস্থা না থাকায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা আশেপাশের বিভিন্ন গ্রাম নলাম, খেজুরটেক,ফুলেরটেক,এনায়েতপুর ও নিরিবিলিতে বসবাস করেন। তাই এখানে শিক্ষারত প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থীকে কেন্দ্র করে নিকটস্থ বাড়ি মালিকরা গড়ে তুলেছেন অতিরিক্ত ভাড়া বাসা, ফ্ল্যাট এবং কলোনী।

এদিকে করোনা মহামারীকে কেন্দ্র করে গত মার্চে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটির ঘোষণা দিলে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ গ্রামে ফিরে যান। এমন্ত অবস্তায় কয়েকমাস অতিক্রম হওয়ায় বিভিন্ন বাড়ির মালিকেরা ফোন করে শিক্ষার্থীদের ভাড়া প্রদানের জন্য চাপ প্রয়োগ করছেন। শিক্ষার্থীরা ভাড়া কমানোর সুপারিশ কিংবা দেরীতে দেবার আবেদন প্রকাশ করলে অনেক বাড়িওয়ালা তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করছেন বলেও জানান এখানকার শিক্ষার্থীরা।

এরূপ পরিস্থিতিতে সরকারের নির্দেশনা এবং মানবিক দিক বিবেচনা করে শিক্ষার্থীদের ভাড়া যথোপযুক্ত কমিয়ে আনা এবং সময় প্রদানের সুপারিশ করে আবেদন জানালেন সাহেব ইমন।

আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের এই ছাত্র জানান,

আমার মতে শিক্ষার্থীরা ছুটি পেয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিলো অনিশ্চিত একটা সম্ভাবনা নিয়ে। কারও জানা ছিলো না বন্ধের মেয়াদকাল এতদিন থাকবে। জানা থাকলে হয়তো অনেকে বাসা ছেড়ে দিয়ে তারপর যেতো। আর যেহেতু শিক্ষার্থীরা এতদিন ধরে তাদের ভাড়া বাসার কোনোরূপ ব্যবহার’ই করেননি। সেহেতু তারা অর্ধেক ভাড়া মাফ পাবার ন্যায়সঙ্গত দাবিদার। আমার মনে হয় সমস্ত বাড়িওয়ালাদের সাথে সম্মিলিত ভাবে বসে শিক্ষার্থীদের পক্ষ হতে এরূপ আবেদন নিয়ে আলোচনা করা দরকার। বাকিটা সকলের যৌক্তিক মতামতের উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে। যেহেতু এখানে ভাড়াটে শিক্ষার্থী এবং বাড়ির মালিকেরা সামাজিক বন্ধনে আবদ্ধ সেইসাথে একে অন্যের পরিপূরক। তাছাড়া আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিকটস্থ বাড়ি মালিকদের এটাও মাথায় রাখতে হবে, বাসায় শিক্ষার্থীরা ভাড়া না থাকলে এই অঞ্চলের অধিকাংশ বাড়ি পরিত্যক্ত ও জনশূন্য হয়ে পড়ে থাকবে। কাজেই দুঃসময়ে এই যৌক্তিক দাবিতে তাদের উচিত শিক্ষার্থীদের চাপের মুখে না ফেলে আলোচনা সাপেক্ষে নির্দিষ্ট হারে ভাড়া কমিয়ে এনে শিক্ষার্থীদের পাশে থাকা।

সেইসাথে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিপি নির্বাচন করা ছাত্র প্রতিনিধি সরকার ও রাজনীতি প্রশাসন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী সুজন রানা জানান,

গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা দূর থেকে পড়াশোনা করার জন্য এসে বিভিন্ন হোস্টেলে অথবা কারো বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকেন। তারা বেশিরভাগই মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছেন। অনেকে টিউশনি করে নিজের বাসা ভাড়া ও পড়াশোনার খরচ বহন করেন।

আমি বাড়িওয়ালাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই আপনারা একটু ভেবে দেখেন যদি ছাত্রছাত্রীরা আপনাদের বাড়িতে ভাড়া না থাকতো তাহলে আপনাদের বড়-বড় দালানের অবস্থা কি হতো! এটাও সত্য অনেক বাড়িওয়ালাদের সংসার চলে বাড়ি ভাড়াকে কেন্দ্র করে। তাই মানবিক আবেদন থেকে আপনাদের উদ্দেশ্যে বলি আপনারা ছাত্র ছাত্রীদের সাথে খারাপ আচরণ না করে, চাপ প্রয়োগ না করে যতটুকু ভাড়া একান্তই গ্রহণীয় ততটুকু নিয়ে আপাতত সন্তুষ্ট থাকবেন বলে আশা রাখি।

উল্লেখ্য শিক্ষার্থীরা বাড়ি মালিকদের চাপ প্রয়োগ এর ফলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন। তাদের ভাষ্যমতে তাদের ভাড়া কমিয়ে দেবার আবেদন ও দাবি যৌক্তিক এবং সময়উপযোগী।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ