আজ ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

রাজশাহীতে নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের বাজার স্থিতিশীল থাকলেও ক্রেতাদের উপস্থিতি কম

 

জিয়াউল, আনোয়ার, (রাজশাহী ব্যুরো):

 

করোনার প্রভাব যেন কোন কিছুকেই ছাড়ছে না। যত দিন যাচ্ছে তত যেন ঘিরে বসছে। মানুষ থেকে শুরু করে করোনার প্রভাব পড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বেশ কিছুদিন থেকেই পণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকলেও বাজারে কমেছে ক্রেতাদের ভিড়। এতে বিপাকে পড়েছেন নগরীর ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি, ক্রেতা কম থাকায় গুণতে হচ্ছে লোকসান।

মঙ্গলবার নগরীর সাহেববাজার, বিনোদপুর কাঁচাবাজার, কাজলা বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন পণ্য নিয়ে বসে আছেন। কিন্তু সেই তুলনায় ক্রেতার সংখ্যা কম। সবজি বিক্রেতারা জানিয়েছেন, প্রায় সব সবজির দামই আছে আগের মতো। গত এক মাস ধরে সবজির দামের ক্ষেত্রে তেমন কোন পার্থক্য দেখা যায়নি।

বিক্রেতাদের দেয়া তথ্যমতে, ভেনডি গত সপ্তাহের ৩৫ টাকা কেজি হলেও এখন দাম হয়েছে ৩০ টাকা। লেবু ২০ টাকা হালি হলেও এখন ৮ টাকা হালিতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। দাম কমেছে কাঁচা মরিচের। কাঁচামরিচ ৫০ টাকা কেজি হলেও এখন ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। পুঁইশাক, পালং শাক, কচু শাক আগের মতো ১০ থেকে ১৫ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

সবজির মতো দাম কমেছে পেঁয়াজ, রসুন এবং আদার। গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ৫ টাকা থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত দাম কমেছে। কিছুদিন আগেও পেঁয়াজের দাম ছিলো ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। তবে এখন ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। আদা ও রসুনের দাম কমেছে কেজি প্রতি ৪০ টাকা। আদার দাম কেজি প্রতি ৪০ টাকা কমে দাম হয়েছে ১৪০ টাকা এবং রসুনের দাম হয়েছে ১২০ টাকা।

আলু আগের মতোই ২০ থেকে ২৫ টাক কেজিতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। তেমনি দামের পরিবর্তন হয়নি টমেটোরও। টমেটো এখনো ৩৫ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। পটল আগের মতোই ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। আগের মতোই ৩৫ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে বেগুন।

প্রায় মাসখানেক ধরে স্থিতিশীল আছে মাছের দামও। গত কয়েকদিন ধরেই মাছের দামের কোন পার্থক্য দেখা যায়নি। কাতলা কেজি প্রতি ৪৫০ টাকা, রুই ২২০ টাকা, টেংরা ৬০০ টাকা, পাবদা ৩৫০ টাকা, কই ২০০ টাকা, শিং ৪০০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে।

আগের মতোই আছে বিভিন্ন মসলার দামও। জিরা ও দারুচিনি ৪০ টাকা সোয়াতে পাওয়া যাচ্ছে। এলাচ ২৮০ টাকা সোয়াতে কিনতে পারছেন ক্রেতারা। তবে দাম বেড়েছে মাংসের। করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই মাংসের বাজার কিছুটা চড়া। ব্রয়লার ১২০ টাকা কেজি থাকলেও এখন ৩০ টাকা দাম বেড়ে হয়েছে ১৫০ টাকা। সোনালী ১৭০ টাকা কেজি থাকলেও এখন দাম হয়েছে ২০০ টাকা।

তবে দাম কমেছে হাঁসের ও খাসির মাংসের। ঈদের আগে খাসির মাংসের দাম ছিলো ৮০০ টাকা তবে এখন কমে দাম হয়েছে ৭২০ টাকা। তেমনি হাসের দাম ছিলো ৩০০ টাকা এখন দাম কমে হয়েছে ২০০ টাকা। দাম স্থিতিশীল আছে বিভিন্ন চালের। পাইকারি বাজারে চালের দাম বাড়লেও খুচরা বাজারে এর তেমন প্রভাব পড়েনি। গত এক মাস ধরেই চালের দাম খুচরা বাজারে স্থিতিশীল আছে। আঠাশ চাল ৪৫ টাকা, মিনিকেট ৫৩ টাকা, জিরাশাল ৫২ টাকা, বাসমতি ৬০ টাকা, স্বর্ণা ৪০ টাকা কেজিতেই পাওয়া যাচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ