আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থায় জনগণকে সচেতন থাকতে হবে

 

মোঃ আব্দুল্লাহ হোসাইন রানা :

বর্তমান বিশ্বে মূহুর্তের মধ্যে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ছড়িয়ে পড়তেছে এই মরণঘাতী করোনাভাইরাস। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশেও ব্যতিক্রম নয়।
কিন্তু দুঃখের বিষয়, ব্যবসায়ীদের প্রায় দেড় মাস অবধি রুজিরোজগারের পথ বন্ধ থাকায় সংসার চালানো ভীষণ কষ্টকর হয়ে পড়েছে, ঠিক এই সময়ে সরকারে সিদ্ধান্ত যে, ১০ মে থেকে শপিংমল নিয়মবিধি মেনে অর্থাৎ সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে। যদি এই সংবাদ ব্যবসায়ীদের জন্য পরম পাওয়া হলে ও তা করোনা ঝুঁকির দিক দিয়ে কতটুকু ভয়াবহ একবার চিন্তা করেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, একজন সংক্রমিত মানুষ যতজন সুস্থ মানুষের সংস্পর্শে আসবেন ততজনই আক্রান্ত হবেন। এখন একজন কেভিড ১৯ আক্রান্ত ব্যক্তি কোনো জনসমাবেশ বা শপিংমলে যান,তাহলে উনার সংস্পর্শে যতজন আসবেন ততজনই আক্রান্ত হবেন এটাই স্বাভাবিক। ফলশ্রুতিতে, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস দীর্ঘমেয়াদী হবে। জনগণের কথা সরকার চিন্তা করে আবারও কঠোর ভাবে লকডাউ করা হতে পারে। এক দীর্ঘমেয়াদী সংক্রমণের মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দিনে দিনে বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা।
এমন দিন যেন না আসে বাতাসে লাশের গন্ধে ভরে উঠে আকাশ-বাতাস।
আল্লাহ তুমি হেফাজতের মালিক। আমরা সবাই ঘরে থাকি সুস্থ থাকি নিজে সুস্থ থাকি দেশ কে সুস্থ রাখি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ