আজ ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুলাই, ২০২১ ইং

আজ ঐতিহাসিক ৭ জুন বাঙালী জাতির মুক্তির সনদ ছয় দফা দিবস

 

মতিউর রহমানঃ পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধি :

বাঙালী জাতির মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে অনন্য প্রতিবাদী, আত্মত্যাগে ভাস্বর ও গৌরবোজ্জ্বল সংগ্রামী একটি দিন। ৬ দফাকে বলা হয় বাঙালির “ম্যাগনাকার্টা” বা মুক্তির সনদ।ম্যাগনাকার্টায় ব্রিটিশ জনগণের নিরাপত্তার জন্য “সিভিল কোর্ট” প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়, অপরদিকে ৬ দফায় “প্যারা মিলিশিয়া” বাহিনী গঠনের কথা বলা হয়েছে বাংলার মানুষের নিরাপত্তার জন্য। ৬ দফা দিয়ে পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর সামনে বঙ্গবন্ধু এমন একটি ট্রাম্প কার্ড ছুড়ে দিলেন যে, এই ৬ দফা যদি পাকিস্তান মেনে নেয় তবে এমনি এমনিই ভেঙ্গে যাবে পাকিস্তান, আর যদি মানতে না চায় তবে যুদ্ধ অনিবার্য। যখন ৬ দফা ঘোষিত হয়ে গিয়েছে তখনই আসলে বাংলাদেশের স্বাধীনতার দিনক্ষণ গণনা শুরু হয়েছে। ১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি লাহোরে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর বাসভবনে অনুষ্ঠিত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর এক সম্মেলনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে “৬ দফা দাবি” পেশ করেন। আনুষ্ঠানিকভাবে ছয় দফা উত্থাপন করা হয় ১৯৬৬ সালের ২৩ মার্চ। জিন্নাহ লাহোর প্রস্তাব উত্থাপন করেন ১৯৪০ সালের ২৩ মার্চ। আর বঙ্গবন্ধু ৬ দফা উত্থাপন করে ১৯৬৬ সালের ২৩ মার্চ, লাহোর প্রস্তাবের সাথে মিল রেখে। কিন্তু ১৯৬৬ সালের ৭ জুন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালী জাতির মুক্তির সনদ ছয় দফা দাবির পক্ষে দেশব্যাপী তীব্র গণআন্দোলনের সূচনা হয়। এই দিনটি বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনকে স্পষ্টত নতুন পর্যায়ে উন্নীত করে। ৬ দফা উত্থাপন করা হলে পাকিস্তান সরকারের দমন নিপীড়ন মাত্রা ছাড়িয়ে যায়, বঙ্গবন্ধুকেও গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে আন্দোলনের এক পর্যায়ে ১৯৬৬ সালের ৭ জুন মনু মিয়া সহ ১২ জন শহীদ হন। তাই ৭ জুনকে ৬ দফা দিবস হিসেবে পালন করা হয়।ছয় দফা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় আসে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, ১১ দফা আন্দোলন, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ’৭০-এর নির্বাচন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং সর্বশেষ বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ