আজ ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই মে, ২০২১ ইং

গণধর্ষণের পর হত্যা আদালতে জবানবন্দি

বিশেষ প্রতিনিধি : আব্দুস সালাম

ঢাকার সাভারে আলোচিত গৃহবধূ হত্যাকান্ড ঘটনায় আসামীরা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে।

সাভারে গত ২৮ ডিসেম্বর উত্তর জামসিং এলাকায় গৃহবধু টুকটুকি লাশ উদ্ধার ঘটনায় আসামীরা জবানবন্দি প্রদান করে আদালতে। জবানবন্দিতে আসামী জনি, সেলিম ও জুলেয় হত্যার কথা স্বীকার আদালতে। টুকটুকিকে প্রথমে গণধর্ষণ করে আসামীরা। গণধর্ষণের কথা বলে দেওয়ার হুমকি দিলে টুকটুকিকে গলায় গামছা পেচিয়ে হত্যা করে আসামীরা। গামছা দিয়ে জনি টুকটুকির গলায় ফাস লাগায় আর সেলিম ও জুয়েল পা চেপে ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করে।
সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক মলয় কুমায় সাহা বলেন আসামী ৩ জনই আদালতে হত্যার বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন। নিহত নারী সাভার বনপুকুর এলাকায় তাজুল ইসলামের বাড়িতে স্বামী মিল্লাত নিয়ে বসবাস করে ২ বছর ধরে। গত ২৫ শে ডিসেম্বর জনি টুকটুকিকে ডেকে নেয় জামসিং এলাকায়। সেখানে প্রথমে জনি ধর্ষণ করে। পরে সেলিম ও জুয়েল ধর্ষণ করে।
পুলিশ আরও জানায় গত ২৫ শে ডিসেম্বর রাত আনুমানিক ৭ টা থেকে ১০ টার মধ্যে টুকটুকিকে তারা হত্যা করে। হত্যার পর টুকটুকির লাশ প্রথমে জনির নিজ বাসায় ওয়ারড্রপে রাখে। ২৬ শে ডিসেম্বর রাতে তারা লাশটি ওই নির্মাণধীন বাড়িতে ফেলে চলে আসে। ২৮শে ডিসেম্বর স্থানীয় জনতা সাভার মডেল থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। সাভার মডেল থানায় হত্যা মামলা হওয়ার পরই পুলিশ নড়েচড়ে বসে। পুলিশ নিহত নারীর স্বামীর কাছ থেকে টুকটুকির মোবাইল নাম্বার নিয়ে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘাকতদের সন্ধানে মাঠে নামে। শনিরাব ৩ জানুয়ারি ভোর রাতে প্রথমে জনিকে তার জামসিং বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে। জনির দেওয়া তথ্যর ভিত্তিতে সেলিম কে কেরানীগঞ্জ এবং জুয়েল কে কলমা থেকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় সাভার মডেল থানা পুলিশ।
রবিরাব (৫ জানুয়ারি) বিকেলে ঢাকার চিপ জুডিশিয়াল আদালতে জবানবন্দি শেষ হলে আদালত ৩ আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণ পাঠিয়ে দেয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ