আজ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

পিরোজপুরে প্রথম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলনকারী ও মহাকুমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা ওমর ফারুকের মৃত্যু বার্ষিকী

 

 

মতিউর রহমানঃ পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধি:

পিরোজপুরে সর্ব প্রথম মহান স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলীত হয়েছিল শহীদ ওমর ফারুক হাতে।

পিরোজপুর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ওমর ফারুকের জন্ম ১৯৫০ সালের ১২ মার্চ পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার ২নং আমড়াজুড়ি ইউনিয়নে।তার দেশের জন্য সংগ্রামের প্রথম ধাপ ছিল ছাত্র-রাজনীতির মধ্যে দিয়ে। তিনি তখন (বি.কম) শ্রেণীর ছাত্র এবং একই সঙ্গে পিরোজপুর মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজের ভিপি ছিলেন।

বাঙালী জাতির মুক্তির সনদ ছেষট্টির ৬ দফা আন্দোলনের সময়ই শুরু হয় ওমরের ছাত্র-রাজনীতি। পশ্চিম পাকিস্তানের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করার দায়বদ্ধতায় যোগদান করেন কেন্দ্রীয় ” স্বাধীন বাংলা নিউক্লিয়াসে” এবং পিরোজপুরে গড়ে তোলেন “পিরোজপুর মহাকুমা ছাত্রলীগ”।

পিরোজপুরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার সময় দ্বায়িত্ব পালনে তিনি অন্যতম ভূমিকা পালন করেন।১৯৭১ সালের ২৯ মার্চ পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা সহ ধরা পড়েন। তার উপরে চালানো হয় নির্মম অত্যাচার ও নির্যাতন। নির্যাতনেই খ্যান্ত হননি, দেশের প্রতি তাঁর দুর্বলতাকে পুঁজি করে তাকে ” পাকিস্তান জিন্দাবাদ” স্লোগান দিলে তাকে ছেড়ে দেয়া হবে বলে। কিন্তু তিনি তখন দিয়েছিলেন “জয় বাংলার স্লোগান”। “জয় বাংলার স্লোগান” দেওয়ায় পাকিস্তানি বাহিনীর নির্দেশে এই পিরোজপুর অঞ্চলের রাজাকার’রা বীর মুক্তিযুদ্ধা শহীদ ওমর ফারুক’কে লোহার রডের সঙ্গে স্বাধীন বাংলার পতাকা বেঁধে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মাথায় ঢুকিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ পিরোজপুরে প্রথম স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর ফারুক। ১৯৭১ সালের ৪ জুন তাঁকে নির্মম হত্যাকান্ড সংঘটিত করে ৩ দিন মৃত লাশ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখেন এ অঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধাদের শিক্ষা দিতে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ