আজ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুন, ২০২১ ইং

মতলবে নামাজে আমিন  বলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ৩

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার উপাদী উত্তর ইউনিয়নের মধ্য ডিংগা ভাঙ্গা গ্রামে মদিনা জামে মসজিদে নামাজে উচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলাকে কেন্দ্র করে দু-পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এতে মুসুল্লী রাব্বি ওরফে সাকিল (১৭), শাহাদাত (৩৫) ও ফাতেমা আক্তার( ৩২) আহত হয়।

আহতরা মতলব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ২৯ই মে শুক্রবার জুম্মার নামাজের পূর্বে এ ঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদশীরা জানান, নামাজে যেন উচ্চস্বরে ‘আমিন’ না বলে ইমামের মাধ্যমে মুসল্লিদেরকে সতর্ক করতে বলেন মসজিদের ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন বকাউল। এ বিষয়টি নিয়ে মুসুল্লীদের পক্ষে বিপক্ষের মাঝে তর্ক বিতর্ক শুরু হয়।

ইমামের পক্ষ নিয়ে মুসল্লি মোঃ শাহাদাত হোসেন বলেন, নামাজ শেষ হলে এই বিষয় নিয়ে দলিল দেখে সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে। একথা বলায় ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন ও তার লোকজন উত্তেজিত হয় শাহাদাতকে মারধর করে।

শাহাদাত আত্মরক্ষার্থে দৌড়ে নিজ বাড়িতে আশ্রয় নেয়। রুহুল আমিন ও তার দলবল তাদের বাড়িতে গিয়ে শাহাদাত ও তার বোন ফাতেমাকে এবং চাচা শাকিলকেও মারধর করে।

আহত শাহাদাত হোসেন বলেন, মসজিদে নামাজের সময় ইমামের পেছনে থাকা মুসল্লীরা যেন উচ্চস্বরে ‘আমিন’ বলা না হয় এ নিয়ে ক্যাশিয়ার রুহুল আমিন ও ইমামের মধ্যে কথা কাটা কাটি হয়। আমি শুধু বলেছি নামাজের শেষে এই বিষয় নিয়ে দলিল দেখে সিদ্ধান্ত নিয়েন। এ কথা বলার সাথে সাথে রুহুল আমিন ও তার লোকজন আমাদেরকে মারধর করে।

এ বিষয়ে রুহুল আমিন বকাউল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমার সাথে ইমামের এ বিষয়ে কথা হচ্ছিল। ওর (শাহাদাত) মাঝখানে কথা বলার কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে।

মসজিদের ইমামের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমি এখানে চাকরি করি, তাই আমি এ বিষয়ে কিছু বলবো না।

মতলব দক্ষিণ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) স্বপন কুমার আইচ বলেন, বিষয়টি আমি এখনো জানিনা। জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ