আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২১ ইং

ধামরাইয়ের ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথযাত্রা উৎসব এর বর্ণিল ইতিহাস

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক :

 

বাংলা ১০৭৯ সালে ৩৪৯ বছর আগে তৈরী হয়েছিল ধামরাইয়ের প্রথম রথ। এই রথের প্রতিষ্ঠাতা দেবতা যশোমাধব।
রাজধানী ঢাকার অদূরে ধামরাই শ্রী শ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথযাত্রা সম্পর্কে জানা যায়, বাংলার পাল বংশের শেষ রাজা যশোপাল ছিলেন প্রজাবৎসল ও ধার্মিক। রাজা যশোপাল এই মাধব মূর্তি আবিষ্কার করেন। ঘটনা সূত্রে রাজা যশো পাল একদা হাতিতে আরোহণ করে বেড়াতে যান ধামরাই এলাকার পাশেই অন্য একটি গ্রামে। রাস্তায় চলার সময় একটি মাটির ঢিবির সামনে গেলে হাতিটি থেমে যায়, আর চলতে চায় না। রাজা শত চেষ্টা করেও হাতিটি সামনে নিতে ব্যর্থ হন এবং এটা দেখে তিনি অবাক হলেন। তখন তিনি হাতি থেকে নেমে স্থানীয় লোকজনকে ওই (শ্রী শ্রী যশোমাধব বিগ্রহ) মাটির ঢিবি খনন করতে বললেন। যথা সময়ে খনন কাজ শুরু হলে সেখানে একটি মূর্তি পাওয়া যায়। তার মধ্যে শ্রী বিষ্ণু মূর্তির মতো দেখতে শ্রী মাধবের মূর্তি ছিল। রাজা ভক্তি করে সেটি নিয়ে এসে ধামরাই সদরে ঠাকুরবাড়ির পঞ্চাশ গ্রামের বিশিষ্ট পণ্ডিত শ্রী রাম জীবন রায়কে মাধব মূর্তি প্রতিষ্ঠার ভার দেন।
তখন থেকে শ্রী মাধবের নামের সঙ্গে রাজা যশোপালের নামটি বিগ্রহের নতুন নামকরণ হলো শ্রী শ্রী যশোমাধব। রাজা অমর হয়ে রয়ে গেলেন। সেই দিন থেকে সেবা-পূজা বন্দোবস্ত হলো। আজও ধামরাইয়ের শ্রী মাধব অঙ্গনে পূজা-অর্চনা চলে আসছে।
শ্রী মাধবকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে ধামরাইয়ের শ্রী শ্রী যশোমাধবের রথযাত্রা ও মেলা। বাংলা ১০৭৯ সালে প্রথম জনৈক রাম জীবন রায় মল্লিক প্রতিষ্ঠিত বাঁশের তৈরি এ রথে মূর্তি চড়িয়ে যাত্রা শুরু হয়। বাংলা ১২০৪ সালে তৎকালীন ঢাকা জেলার অন্তর্গত মানিকগঞ্জের বালিয়াটি জমিদার যশোমাধব মন্দির ও এ রথ নির্মাণের ব্যয়ভার বহন করেন। যশোমা্ধবের শ্বশুরবাড়ী বলে পরিচিত ধামরাই যাত্রাবাড়ীতে একটি মন্দির নির্মান করে দেয়, সেখানেই যশোমাধব প্রতি বৎসর রথ উৎসবের সময় রথে চড়ে শ্বশুরালয়ে গমন করেন এবং উল্টো রথ পর্যন্ত থেকে পুনরায় শ্রী যশোমাধব অংগনে ফিরে আসেন। উক্ত রথটি টানতে প্রায় ১০০০ কেজি ওজনের পাটের রশি ব্যবহার করা হয়। বালিয়াটি জমিদার যশোমাধব অঙ্গন যাত্রাবাড়ীর যশোমাধবের শ্বশুরালয়ের মন্দির, বংশী নদীর তীরের ঘাট এর জন্য ও যাত্রবাড়ীর মাঠ শ্রীশ্রী যশোমাধব এর নামে দেবোত্তর সম্পত্তি করে দেন।
জমিদারী শাসন বিলুপ্তি হবার পর ১৯৫০ সাল থেকে মির্জাপুরের রনদা প্রসাদ সাহা শ্রী শ্রী যশোমাধব মন্দির ও রথের সংস্কার সাধন করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি বর্ব্বর সেনারা রথটিকে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয়। তখন পাকসেনারা সমগ্র বাংলাদেশে বিশেষকরে হিন্দু-স্থাপনা ও হিন্দুব্যক্তির উপর ধ্বংশযজ্ঞ চালায়, তারই ধারাবাহিকতায় আলোকিত মানুষ দানবীর রনদা প্রসাদ সাহা ও তার বড় ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহাকে ধরে নিয়ে যায়, তারা আর কখনো ফিরে আসে নাই। বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর স্হানীয় লোকের সার্বিক সহযোগিতায় বাঁশের রথ তৈরী করে রথোৎসব করা হতো যাহা ১৯৭৩ সন পর্যন্ত চলছে এর পর রনদা প্রসাদ সাহার প্রতিষ্টিত কুমুদিনি ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্ট এর আর্থিক সহযোগীতায় পুরোনো রথের আদলে (আকারে ছোট) কাঠের রথ তৈরী করা হয়। উক্ত রথে রথোৎসব করা হয় ২০০৯ সাল পর্যন্ত।
২০০৬ সালে বাংলাদেশে ভারতীয় হাইকমিশনার বিণা সিক্রি ভারত সরকারের আর্থিক অনুদানের ব্যবস্থা করে রথটি আরো বড় ও পুরোনো রথের আদলে সম্পূর্ন নতুন করে প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান কাজ শুরু করে দেন, যা ২০১০ সালে শেষ হয় এবং একই সময় শহীদ দানবীর রনদা প্রসাদ সাহার দৌহিত্র (নাতী) রাজীব প্রসাদ সাহা কুমুদিনি ওয়েল ফেয়ার ট্রাষ্টএর আর্থিক সহযোগীতায় গোপনগর, যাত্রাবাড়ীর যশোমাধবের শ্বশুরালয়ের মন্দির টি সম্পূর্ন নতুন করে নির্মান করে দেন। তাই আজও হাজার হাজার হিন্দুভক্ত উপস্থিত হয়ে তাদের ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় অনুষ্ঠান রথযাত্রা সম্পাদন করেন। আবার মিষ্টি আর জিলাপির অমৃত গন্ধে মেলার জায়গাটি হয়ে ওঠে সুগন্ধময়। এখনো ধামরাই সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে রথযাত্রা এবং সে উপলক্ষে মেলা বসে। রথযাত্রা শুধু ধর্মীয় উৎসবই নয়, এর সঙ্গে সামাজিক বন্ধনেরও একটা শিক্ষা রয়েছে। লাখো মানুষের সমবেত শক্তিতে অচল রথ সচল হয়, এই সত্যটা রথযাত্রার মাধ্যমে স্পষ্ট হয়ে ওঠে।
ধামরাইয়ের রথযাত্রাটি বাংলাদেশের প্রাচীন এবং বৃহত্তম রথযাত্রা। প্রতিবছর রথযাত্রার দিন একটি বিশাল রথে শ্রীশ্রী যশোমাধব বিগ্রহ ও কানাই – বলাই বিগ্রহ সহ আরো অন্যান্য দেব দেবীর মূর্তি স্থাপন করে এখানে শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। রথটি হিন্দু দেব-দেবীর নানা রকম মূর্তিতে সজ্জিত থাকে। সারাদেশ থেকে পুণার্থীরা এই রথযাত্রায় অংশগ্রহণ করে থাকেন।
এখানে উত্থান একাদশী এবং মাঘী পূর্ণিমাতে মেলা বসে। সে মেলায় সারাদেশ থেকে প্রচুর লোকের আগমন ঘটে। শ্রীশ্রীযশোমাধব অঙ্গনে সারা বৎসর ব্যাপী সনাতন ধর্মের সকল পূজা-অচ্চর্না ও ধর্মীয় উৎসব অনুষ্টিত হয়ে থাকে। এছাড়া ও মাধব মন্দিরে প্রতি বছর বৈশাখ মাসের ১৩,১৪ ও ১৫ তারিখ ২৪প্রহর ব্যাপী মহানামযঞ্জ ও ১৬ই বৈশাখ অষ্টকালীন লীলা কীর্ত্তন হয়। ধামরাই সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলার ভক্তবৃন্দ আশে-পাশের অনেকে শ্রীশ্রীযশোমাধব মন্দিরের ভোগের প্রসাদে শুভ অন্নপ্রাসন করিয়ে থাকে।
সম্প্রতি বংশী নদীর তীরে মাধব বাড়ীর ঘাট পুনরূদ্বার করা হয়েছে ।যেখানে মহাদেব মন্দির প্রতিষ্ঠা করে দেব বিগ্রহ স্হাপন করে নিত্য সেবা-পূজা কার্যক্রম চলছে, সেই সাথে বাৎসরিক ষোল প্রহরব্যাহী হরিনাম সংকীর্তন, রাধা গোবিন্দেেে অষ্টকালীন লীলাকীর্তন ও মহাপ্রভুর ভোগ, নরনারায়ণ সেবার আয়োজন করা হয়েছে। তাছাড়াও এখানে প্রতি বছর শারদীয় দুর্গোৎসব এর শুভ বিজয়াদশমী (পৌরসভার ভিতর শারদীয় দুর্গোৎসব এর সকল প্রতিমা মাধব বাড়ির এ’ঘাটে আনা হয়) পর্যায়ক্রমে দশমীর কার্যক্রম পরিচালনা

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ