আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

আনন্দের নয়, উদ্বিগ্নের ঈদ উদযাপন

 

 

রেজাউর রহমান মুন্না, ব্রাহ্মণবাড়িয়া:

 

গতকাল বাংলাদেশে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর, কিন্তু এই বারের ঈদ আর প্রতিবারের ঈদের মধ্যে রয়েছে অনেক পার্থক্য। এইবারের ঈদে কেউ ঈদগাহে নামাজ পড়তে পারেনি, ছিল না আনন্দের কোলাকোলি, রাস্তার মোড়ে ছিল না বন্ধুদের আড্ডা। সবার মনেই বিরাজ করেছে অজানা এক আতঙ্ক। আমরা যেই ঈদের মানে খুশি হিসেবে জানি সেই ঈদ এবার আমাদের কাছে শুধুই একটা অনুভুতির বিষয় ছিল। প্রতিদিন ২.৩০টা বাজলে মানুষ অপেক্ষায় থাকে কতজন নতুন আক্রান্ত হল. কতজন মারা গেল জানার জন্য। আজ ঈদের দিনেও আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছে এক দিনে সর্বোচ্চ এবং মৃত্যু বরণ করেছে ২১ জন। মৃত্যু মানুষের একটি স্বাভাবিক বিষয়, কিন্তু এই মৃত্যুটাই যখন সবসময় নিজ থেকে মনে করিয়ে দেয় আমি ঠিক তোমার পাশে তখন স্বাভাবিক ভাবেই নিজের মধ্যে অজানা উদ্বেগ কাজ করে। এমন ঈদ আমরা কখনো আর চাইনা।

মহামারীর ইতিহাস অনেক বেদনাদায়ক, অ্যান্থনি ফন লিউয়েনহুক যখন আজ থেকে মাত্র সাড়ে তিনশ বছর আগে আতশী কাঁচের নিচে কিলবিল করা প্রাণগুলোকে দেখতে পেলেন, তখনো তিনি জানেন না যে তিনি এক নতুন দুনিয়ার সন্ধান পেয়ে গেছেন। তিনিই প্রথম আণুবীক্ষণিক প্রাণের দুনিয়াকে মানুষের সামনে উন্মোচিত করেন, ওই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র প্রাণগুলোর নাম দেন ‘এনিম্যালকুলস’। ইতিহাসের শুরু থেকেই মানুষ এই অণুজীবদের আক্রমণের শিকার হয়েছে, প্রাণ হারিয়েছে কোটিতে কোটিতে, অথচ কারা এই প্রাণহাণির কারণ তা মানুষের বুঝে উঠতে লেগেছে লাখ লাখ বছর। ক্ষুদ্র ব্যাকটেরিয়া আবিষ্কারেরও বেশ কিছু সময় পর, রোগ সৃষ্টিকারী ভাইরাস সম্পর্কে মাত্র মানুষ জানতে শুরু করে উনবিংশ শতাব্দীর একেবারে শেষভাগে। কয়েকশ বছর আগেও এই বিপর্যয় সৃষ্টিকারী মহামারীগুলোর কারণ হিসেবে অণুজীবকে কল্পনা করা দুরূহ ছিল। কিছুদিন আগেও আমাদের দেশের মানুষ কলেরার কারণ হিসেবে কাল্পনিক ‘ওলা বিবি’কেই চিহ্নিত করতো। ইতিহাসে এই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণুজীবসৃষ্ট মহামারীর প্রভাবে সভ্যতা ধ্বংস হয়েছে, পাল্টে গেছে সমাজ সংগঠন-অর্থনীতি। প্রাচীন যুগে যুগে মানুষ যেহেতু ছিল ছোট ছোট গোত্রে বিভক্ত, এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় তারা দ্রুত চলে যেত, জীবনযাপন ছিল যাযাবর ধরনের, তখন মহামারীর ব্যাপক বিস্তৃতি সেভাবে সম্ভবপর ছিল না। ইতিহাস থেকে আমরা আরো জানি, ১৬৫ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৮০ খ্রিস্টাব্দে রোমে স্মল পক্স মহামারীতে বহু মানুষ মারা যায়, রাজপরিবারের সদস্যরাও এর প্রকোপ থেকে বাঁচেনি। ২৫০ খ্রিস্টাব্দে সাইপ্রিয়ানের প্লেগ মহামারী রোমান সাম্রাজ্যকে দুর্বল করে দেয়। এর পর,পঞ্চম শতাব্দীতে একদিকে যুদ্ধ অন্যদিকে এই মহামারী পরাক্রমশালী পশ্চিম রোমান সাম্রাজ্যকেই শেষ করে দেয়। পরবর্তী দুই শতাব্দীতে বিউবনিক প্লেগে প্রায় ৫ কোটি মানুষ মারা যায়, যা তৎকালীন জনসংখ্যার ২৬ শতাংশ। ১৩৫০ খ্রিস্টাব্দের দিকে ‘দ্য ব্ল্যাক ডেথ’ বলে পরিচিত প্লেগ মহামারী পৃথিবীর জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশের মৃত্যুর কারণ হয়। ১৬৬৫ সালের দিকে ‘দ্য গ্রেট প্লেগ অব লন্ডন’-এ লন্ডনের জনসংখ্যার ২০ শতাংশ মৃত্যুবরণ করে। ১৮৫৫ সালের দিকে চীন, হংকং ও ভারতে প্রায় দেড় কোটি মানুষ প্লেগে মারা যায়। ১৯১৮ সালে শুরু হওয়া স্প্যানিশ ফ্লুতে পৃথিবীতে মারা যায় ৫ কোটি মানুষ। আজকের যুগে বিজ্ঞানীরা খুব কম সময়ের মধ্যে এখন মহামারীর জন্য দায়ী অণুজীবকে সনাক্ত করতে পারেন। তবুও ক্রমবর্ধমান অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স, ভাইরাসের জিন নকশা পরিবর্তন ইত্যাদি মানুষকে আজও বিপর্যয় সৃষ্টিকারী মহামারীর বিপদে ফেলছে।

করোনাভাইরাস কোনো নির্দিষ্ট ভাইরাসের নাম নয়, বরং এটি ভাইরাসদের এক ‘ফ্যামিলি’কে নির্দেশ করে। এই ভাইরাস একটি এক সূত্র বিশিষ্ট আরএনএ নিয়ে গঠিত, যে আরএনএ’র মিউটেশন এর কারণে করোনাভাইরাস গোত্রের ভাইরাসগুলো প্রাণীদেহ থেকে মানবদেহে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। প্রাকৃতিকভাবে ঘটা এই মিউটেশনের কারণে ভাইরাস নিজেকে বদলে ফেলে, সে কারণেই নতুন নতুন মহামারী দেখা দিয়েছে। পুরো পৃথিবীতে আজকে পর্যন্ত করোনা মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছে ৫৪,৩৪,৬১৭ জন, এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩,৪৪,৫০৪ জনের আর সুস্থ হয়েছেন ২২,৭৩,১৫০ জন, এই পরিসংখ্যান প্রতি মিনিটেই পরিবর্তন হচ্ছে।

অণুজীববিজ্ঞান, জিন প্রকৌশল ও জৈবপ্রযুক্তির প্রসারের এই যুগে, মানুষ যেমন এখন মহামারী সংক্রান্ত দুর্যোগ সামলাতে যেমন ইতিহাসের যেকোন সময়ের তুলনায় বেশি সক্ষম, তেমনি এই গ্লোবাল ভিলেজে যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি ঘটায় রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু মানুষের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাও বেশি। অথচ, মহামারী ব্যবস্থাপনায় বিশ্বের সব দেশ সমানভাবে প্রস্তুত নয়। বাংলাদেশের মত তৃতীয় বিশ্বের দেশে মহামারী প্রতিরোধের জন্য পর্যাপ্ত সচেতনতা ও গবেষণা, মাঠ পর্যায়ের কাজের ক্ষেত্রে নানা প্রতিবন্ধকতা ও চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে। এসব দেশে কম আয়ের মানুষেরা আছে বিরাট স্বাস্থ্যঝুঁকিতে। আজকের যুগে কেবল মহামারীর কারণ ও এর প্রতিরোধের রাস্তা আবিষ্কারই যথেষ্ট নয়, পাশাপাশি সাধারণ মানুষেরও সচেতন হওয়া অত্যন্ত জরুরি।

ঈদ মানেই আনন্দ কিন্তু আমাদের করা ভুলটা যদি সবার আনন্দ কেড়ে নেয় তাহলে আমরা কি আসলেই স্রষ্টার কথা মেনে চলছি? স্রষ্টা যেখানে মানুষকে ভালবেসে সৃষ্টির সেরা জীবের মর্যাদা দিয়েছেন, যেখানে তিনি মানুষকে সঠিক ভুল বোঝার ক্ষমতা দিয়েছেন সেখানে কেন আমরা শুধু তার উপর দায় চাপাতে চাচ্ছি? আমরা কেন ভুল সিদ্ধান্ত নিচ্ছি ? তিনিত আমাদের আশরাফুল মাখলুকাত বলেছেন।

কিন্তু তবুও আমরি বিশ্বাস করি ভাল দিন আসবে, আমরা অপেক্ষায় আছি ঐ মুহুর্তের যখন শুনব আমাদের আর কোন ভয় নেই,আমাদের নেই কোন বাধা, সাস্থ্য অধিপ্তরের ব্রিফিংয়ে বলবে বাংলাদেশ আজ করোনা মুক্ত অথবা করোনা প্রতিরোধের প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়েছে।

পরিশেষে আবারো বলতে চাই এমন ঈদ কখনো চাইনা, ভাল দিন আসবেই, সেই সোনালী দিনের অপেক্ষায়…..

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ