আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

তারাগঞ্জ উপজেলায় বোরো খেতে নেক ব্লাস্ট রোগে কৃষক দিশেহারা

 

 

 

মাহমুদুল হাসান ইউসুফ,
তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি:

রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় বোরো ধান খেতে নেক ব্লাস্ট (ধানের গলাপঁচা) রোগ দেখা দিয়েছে। কীটনাশক প্রয়োগ  করেও এ রোগ দমন না হওয়ায় কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।
দোলাপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুস সালেক বলেন, ‘মোর ৫০শতক ধান খেতো একনা রোগ ধরছে। যায় যেটা ঔষধ দিবার কয়ছে সেইটায় খেতোত দেউছুন। কিন্তুক ভাইজান রোগ তো পালায়ছে না। দিন দিন এ রোগ খেতোত আরোও বাড়োছে। শিষ শুকি পাতান হয়া যাছে।’
ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের কৃষক আবেদ আলী বলেন, ‘বাবা মুই হনু গরিব মানুষ। মাইনসের বাড়িত কাম করো।  আদি (বর্গা) নেওয়া জমিত ধান চাষ করি ছাওয়া ছোটোক পালন করো। করোনার জন্য কাম নাই। ভুঁইয়োত ওষুধ দেইম হাতোত টাকাও নাই। ওষোধ দিবার অবানে মোর ৮০শতক জমির ধান নষ্ট হওছে।’
উপজেলার কৃষি বিভাগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী তারাগঞ্জ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ৮হাজার ১৭ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। হঠাৎ প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে উপজেলায় এ রোগ ছড়িয়ে পড়ছে। খেতে বের হওয়া ধানের শিষ শুকিয়ে যাচ্ছে। ধানের গাছের যে জায়গা থেকে শিষ শুরু হয়েছে সেখান থেকে শিষটি সম্পূর্ণ আস্তে আস্তে সাদা হয়ে ধান চিটা হয়ে যাচ্ছে। কীটনাশক প্রয়োগ করেও কৃষকেরা কোন ভাবে এ রোগ সামাল দিতে পারছে না।
উপজেলার  সয়ার, আলপুর, ইকরচালী, হাড়িয়ারকুঠি, কুর্শা ইউনিয়নের বিভিন্ন মাঠ ঘুরে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অনেক জমির বোরো ধানের শিষ সাদা হয়ে গেছে। বিশেষ করে ব্রি-২৮, ব্রি-২৯ জাতের ধানে এ রোগ বেশি দেখা দিয়েছে। ধানের শিষ আস্তে আস্তে সাদা হয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। শিষের গোড়ায় প্রথমে এ রোগ দেখা দেয় ক্রমান্বয়ে তা সর্বত্র ছড়িয়ে পরছে। এ অবস্থায় কৃষকেরা দুশ্চিন্তায় পড়েছেন।
পূব দোলার মাঠে কথা হয় মেনানগর গ্রামের কৃষক বিষাদ রহমানের সঙ্গে। তিনি নষ্ট হওয়া ধান খেত দেখিয়ে  বলেন, ‘মুই এই ৭৫শতক জমিত ২৮ জাতের ধান নাগাছুং। গাছ দেখে মনে হইছিলো ফলন ভাল হইবে। কিন্তুক ভাইয়া হঠ্যাৎ করি এই রোগ খেতোত ধরি শিষগুলা শুকি নষ্ট হয়ছে। ঔষধ দিয়াও কাম হয়ছে না।’
বিষাদের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ফকিরপাড়া গ্রামের স্বামীহারা হাছনা বেগম বলেন, ‘গ্রামোত ঘুরি কাপড় বেচে খাও। করোনার জন্য দেড় মাস থাকি ব্যবসা নাই। ৩০শতক জমিত ২৮জাতের ধান গারছুনু তাক পাতান হয়া গেইছে। মোর কপালোত যে কি হইছে আল্লায় জানে। এবার মোক না খেয়া মরিবার নাগবে।
সয়ার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আজম বলেন, গত দুই তিন বছর ধরে তারাগঞ্জে হাইব্রিড (মোটা) জাতের ধানের চেয়ে বোরো মৌসুমে ব্রি-২৮, ব্রি-২৯ (চিকন) জাতের ধান বেশি চাষ হয়েছে। আগে চিকন জাতের ধানে কোন রোগ বালাই না থাকলেও এবার এই রোগ খেতে দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে নিচু জমিতে এই রোগের প্রকোপ বেশি। খেতে কীটনাশক প্রয়োগ করেও এ রোগ দমন না হওয়ায় কৃষকের দিশেহারা হয়ে পড়েছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অশোক কুমার মুঠোফোনে বলেন, আবহাওয়া প্রতিকূল হওয়ায় কিছু জমিতে নেক ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। তবে অন্য বছরের তুলনায় কম। যেসব জমি এখনো সংক্রমিত হয়নি বা কেবল সংক্রমণ দেখা দিয়েছে, সেসব জমিতে প্রতিরোধক হিসেবে ছত্রাকনাশক ছিটানোর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ